Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

শীর্ষস্থান অর্জনের সাফল্য উদযাপন করল এনএসইউ

শীর্ষস্থান অর্জনের সাফল্য উদযাপন করল এনএসইউ
শীর্ষস্থান অর্জনের সাফল্য উদযাপন করল এনএসইউ, ছবি: সুমন শেখ
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রদূত নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি (এনএসইউ) আবারও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের র‌্যাংকিং তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে। শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের এ সাফল্য উদযাপন করতে দিনব্যাপী বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বুধবার (১৯ জুন) নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ক্যাম্পাসে এই উদযাপন অনুষ্ঠিত হয়। এতে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছন মাহমুদ বলেন, ‘নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির একজন সাবেক শিক্ষক হিসেবে দেশের সকল প্রাইভেট বিশ্বদ্যালয়ের মধ্যে নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটিকে শীর্ষস্থানে দেখে আমি আজ আনন্দিত। একই সঙ্গে আজকের এ সাফল্যের জন্য আমি নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষকে অভিনন্দন জানাই।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/19/1560956051021.jpg

নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান এমএ হাসেম বলেন, ‘নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি আজ র‌্যাংকিংয়ে প্রথমস্থান অধিকার করায় আমি অত্যন্ত আনন্দিত। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি আন্তর্জাতিক মানের সুযোগ-সুবিধা ও আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষকদের দিয়ে পাঠদানের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আন্তর্জাতিক মানের শিক্ষা প্রদানের কারণেই আজ এ সাফল্য অর্জন করা সম্ভব হয়েছে।’

সমাপনী বক্তব্যে উপাচার্য প্রফেসর ড. আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘বাংলাদেশের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে শীর্ষ স্থান অর্জন করা একটি অত্যন্ত মর্যাদাপূর্ণ বিষয়। নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের প্রাইভেট সেক্টরের শিক্ষা ক্ষেত্রে অগ্রগামী ভূমিকা পালন করছে। শিক্ষার্থীদের বিশ্বমানের গবেষণামূলক শিক্ষা দিয়ে আসছে। আমাদের দেশের তরুণ শিক্ষার্থীদের বিশ্বমানের শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে তাদেরকে দক্ষ জনশক্তিতে রুপান্তর করতে চাই, যারা এগিয়ে থাকবে বুদ্ধিবৃত্তিক দিক থেকে, বিশ্বাসী হবে সমতায় এবং দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে।’

আপনার মতামত লিখুন :

আন্দোলনকারীরা তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ!

আন্দোলনকারীরা তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ!
তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গত তিন দিন ধরে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলনে সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে পড়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস, পরীক্ষাসহ প্রশাসনিক কার্যক্রম।

আন্দোলনকারীরা প্রশাসনিক এবং গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা লাগানোর ফলে অকার্যকর হয়ে পড়ে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবারও (২৪ জুলাই) রয়েছে আন্দোলনকারীদের কর্মসূচি।

তবে ক্যাম্পাসে যেকোনো ধরনের তালা ঝোলানো কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্ন ঘটাবে এমন কাজে বাধা প্রদান করার জন্য প্রস্তুত ঢাবি ছাত্রলীগ। বিভিন্ন হলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রলীগ নেতা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'আগামীকাল ভোর ৬টায় আমাদের কর্মসূচি রয়েছে। আন্দোলনকারীরা প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ রাখতে তালা ঝোলাতে এলে তাদের বাধা প্রদান করা হবে। তাতে কাজ না হলে, যা করার তাই করতে হবে এমন নির্দেশনা রয়েছে।'

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে উত্তেজনা দেখা যায়। এক পর্যায়ে ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেনকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া যায়। সে ঘটনা থেকে ক্যাম্পাসে উত্তেজনাকর পরিবেশ বিরাজ করছে।

আরও পড়ুন: ঢাবিতে পাল্টাপাল্টি অবস্থানে ছাত্রলীগ-আন্দোলনকারীরা

আরও পড়ুন: মার খাইতে অভ্যস্ত, প্রয়োজনে জীবন দেব: ভিপি নুর

ডাকসুর আখতারের ওপর হামলা: ছাত্র ইউনিয়নের নিন্দা

ডাকসুর আখতারের ওপর হামলা: ছাত্র ইউনিয়নের নিন্দা
ডাকসু সমাজ সেবা সম্পাদক আখতারের ওপর হামলায় নিন্দা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সমাজ সেবা সম্পাদক আখতারের ওপর ছাত্রলীগের হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ছাত্র ইউনিয়ন।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) ছাত্র ইউনিয়নের দফতর সম্পাদক অপূর্ব রায় স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ নিন্দার জানানো হয়।

এতে বলা হয়, 'সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলন চলাকালীন ডাকসুর সমাজ কল্যাণ সম্পাদকের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনাটি দুঃখজনক। ক্যাম্পাসে যেকোনো ইস্যুভিত্তিক আন্দোলনে বারবার ছাত্রলীগের পেশিশক্তির ব্যবহারে তারা সুন্দর-সুস্থ ক্যাম্পাসের যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে তার বিপরীত রূপ তুলে ধরে। আমরা, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ, আজকের হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।'

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, 'আমরা আজ এও দেখেছি যে, শিক্ষার্থীরা বর্তমান বিতর্কিত ডাকসুর ডাকে সাড়া না দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে। এই পরিস্থিতি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় যে, এই ডাকসু শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিত্ব করে না; এই ডাকসু শিক্ষার্থীদের আকাঙ্ক্ষার বিপরীতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে (ডাকসু সাধারণ সম্পাদক বনাম সমাজ কল্যাণ সম্পাদক) মারামারিতে আজ লিপ্ত। শিক্ষার্থীদের এই সচেতনতায়, নিজেদের অধিকার বুঝে নেয়ার চেতনায় আমরা আশাবাদী হই।'

উল্লেখ্য যে, অধিভুক্তির এই আন্দোলন সাত কলেজ বিরোধী হয়ে ওঠায় এবং সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে যেভাবে বিদ্বেষ ছড়ানো হয়েছে তা পর্যবেক্ষণ করে আমরা শিক্ষার্থীদের মুখোমুখি অবস্থান লক্ষ্য করছি এবং সংঘর্ষের আশঙ্কা করছি। আমরা চাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থী এবং অধিভুক্ত সাত কলেজের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আলোচনা সাপেক্ষে উভয় পক্ষের স্বার্থ ও অধিকার বিবেচনা করে উদ্ভূত সংকট নিরসন করবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র