Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

১৬ দফা দাবিতে অনঢ় শিক্ষার্থীরা

উত্তাল বুয়েট: প্রশাসনিক ভবনে তালা, রাস্তা অবরোধ

উত্তাল বুয়েট: প্রশাসনিক ভবনে তালা, রাস্তা অবরোধ
১৬ দফা দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে প্রশাসনিক ভবনে তালা ও রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) শিক্ষার্থীরা।
ঢাবি করেসপন্ডেন্ট 


  • Font increase
  • Font Decrease

বিতর্কিত প্রক্রিয়ায় শিক্ষক নিয়োগ বাতিল, নিয়মিত শিক্ষক মূল্যায়ন প্রোগ্রাম,ক্যাম্পাস প্রবেশ মুখে সুদৃশ্য তোরণ নির্মাণ, নতুন ছাত্রকল্যাণ দফতরের পরিচালককে অপসারণ, শিক্ষার্থীদের সব লেনদেন ডিজিটাল করা, গবেষণায় বরাদ্দ বৃদ্ধি, টার্ম পরীক্ষায় কোডিং সিস্টেম চালু, ছাত্রী হলকে সনি হল নামকরণসহ ১৬ দফা দাবিতে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে প্রশাসনিক ভবনে তালা ও রাস্তা অবরোধ করে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে  বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (১৯ জুন) পঞ্চম দিনের মতো বুয়েট শিক্ষার্থীদের লাগাতার আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। এদিন আন্দোলনকারীরা দলবদ্ধ হয়ে ভিসি ভবনে তালা লাগিয়ে দেন।

পাঁচদিন যাবৎ আন্দোলন চালিয়ে গেলেও এখনও কোনো আশ্বাস পাননি তারা। এতে উত্তাল বুয়েট ক্যাম্পাস।  দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ক্লাসে ফিরে যাবেন না বলে ঘোষণা দেন তারা।

বুয়েট সূত্র জানায়,পূর্বঘোষিত কর্মসূচী অনুযায়ী বুধবার (১৯ জুন) সকাল সাড়ে ১০টায় পঞ্চম দিনের আন্দোলন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও বেলা ১টায় বুয়েট শহীদ মিনারের সামনে বিভিন্ন বিভাগের হাজার হাজার শিক্ষার্থী জড়ো হন। এরপর তারা মিছিল নিয়ে স্লোগান দিতে দিতে ভিসি ভবনের সামনে গিয়ে টানা তিন ঘণ্টা  অবস্থান করে ফের শহীদ মিনারে এসে শেষ হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/19/1560947650057.jpg

আন্দোলনের মুখপাত্র হাসান সারোয়ার সৈকত বলেন, আমাদের যৌক্তিক আন্দোলনকে বুয়েট শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে সমর্থন জানানো হয়েছে। অধ্যাপক ডা. এ কে এম মাকসুদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতি আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে, বর্তমান ভিসির কর্মকাণ্ডে আমরা শিক্ষকরা সন্তুষ্ট নই। শিক্ষার্থীরা যেসব দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে তা যৌক্তিক। তাদের আন্দোলনের সঙ্গে বুয়েট শিক্ষকরা সংহতি প্রকাশ করছেন।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, বুয়েট উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলামের সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য বারবার চেষ্টা করে ব্যর্থ হলে গত দুদিন আগে ভিসি ভবনে তালা লাগিয়ে দেন। এরপর থেকে ভিসি স্যার আর ক্যাম্পাসে আসেননি।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া পাননি অভিযোগ করে আন্দোলনের মুখপাত্র মেকানিক্যাল বিভাগ শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী হাসান সরোয়ার সৈকত বলেন, দাবি আদায় ছাড়া আমরা ক্লাসে ফিরব না। আমরা পাঁচদিন ধরে আন্দোলন চালিয়ে এলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো সাড়া দেয়া হয়নি। এ কারণে আমরা বাধ্য হয়েই বুধবার প্রশাসন ভবনে তালা লাগিয়ে দিয়েছি।

তিনি বলেন, আমাদের আন্দোলনকে বুয়েট শিক্ষক সমিতি সমর্থন জানিয়েছে। যৌক্তিক আন্দোলন বলেই তারা এতে সংহতি প্রকাশ করেছেন। বিভিন্ন সময়েও আমরা এসব দাবিতে আন্দোলন করেছি, আমাদের শুধু আশ্বাস দেয়া হয়েছে। তবে এবার দৃশ্যমান বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবো।

এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ‘প্রশাসনের কালো হাত ভেঙে দাও, গুঁড়িয়ে দাও’; ‘প্রহসনের প্রশাসন মানি না, মানি না’; ‘স্বৈরাচারী প্রশাসন মানি না, মানবো না’; ‘স্বৈরাচারের ঠিকানা, এই বিশ্ববিদ্যালয়ে হবে না’ নানা ধরণের স্লোগান দেয়।

আপনার মতামত লিখুন :

আন্দোলনকারীরা তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ!

আন্দোলনকারীরা তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ!
তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গত তিন দিন ধরে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলনে সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে পড়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস, পরীক্ষাসহ প্রশাসনিক কার্যক্রম।

আন্দোলনকারীরা প্রশাসনিক এবং গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা লাগানোর ফলে অকার্যকর হয়ে পড়ে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবারও (২৪ জুলাই) রয়েছে আন্দোলনকারীদের কর্মসূচি।

তবে ক্যাম্পাসে যেকোনো ধরনের তালা ঝোলানো কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্ন ঘটাবে এমন কাজে বাধা প্রদান করার জন্য প্রস্তুত ঢাবি ছাত্রলীগ। বিভিন্ন হলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রলীগ নেতা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'আগামীকাল ভোর ৬টায় আমাদের কর্মসূচি রয়েছে। আন্দোলনকারীরা প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ রাখতে তালা ঝোলাতে এলে তাদের বাধা প্রদান করা হবে। তাতে কাজ না হলে, যা করার তাই করতে হবে এমন নির্দেশনা রয়েছে।'

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে উত্তেজনা দেখা যায়। এক পর্যায়ে ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেনকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া যায়। সে ঘটনা থেকে ক্যাম্পাসে উত্তেজনাকর পরিবেশ বিরাজ করছে।

আরও পড়ুন: ঢাবিতে পাল্টাপাল্টি অবস্থানে ছাত্রলীগ-আন্দোলনকারীরা

আরও পড়ুন: মার খাইতে অভ্যস্ত, প্রয়োজনে জীবন দেব: ভিপি নুর

ডাকসুর আখতারের ওপর হামলা: ছাত্র ইউনিয়নের নিন্দা

ডাকসুর আখতারের ওপর হামলা: ছাত্র ইউনিয়নের নিন্দা
ডাকসু সমাজ সেবা সম্পাদক আখতারের ওপর হামলায় নিন্দা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সমাজ সেবা সম্পাদক আখতারের ওপর ছাত্রলীগের হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ছাত্র ইউনিয়ন।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) ছাত্র ইউনিয়নের দফতর সম্পাদক অপূর্ব রায় স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ নিন্দার জানানো হয়।

এতে বলা হয়, 'সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলন চলাকালীন ডাকসুর সমাজ কল্যাণ সম্পাদকের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনাটি দুঃখজনক। ক্যাম্পাসে যেকোনো ইস্যুভিত্তিক আন্দোলনে বারবার ছাত্রলীগের পেশিশক্তির ব্যবহারে তারা সুন্দর-সুস্থ ক্যাম্পাসের যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে তার বিপরীত রূপ তুলে ধরে। আমরা, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ, আজকের হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।'

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, 'আমরা আজ এও দেখেছি যে, শিক্ষার্থীরা বর্তমান বিতর্কিত ডাকসুর ডাকে সাড়া না দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে। এই পরিস্থিতি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় যে, এই ডাকসু শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিত্ব করে না; এই ডাকসু শিক্ষার্থীদের আকাঙ্ক্ষার বিপরীতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে (ডাকসু সাধারণ সম্পাদক বনাম সমাজ কল্যাণ সম্পাদক) মারামারিতে আজ লিপ্ত। শিক্ষার্থীদের এই সচেতনতায়, নিজেদের অধিকার বুঝে নেয়ার চেতনায় আমরা আশাবাদী হই।'

উল্লেখ্য যে, অধিভুক্তির এই আন্দোলন সাত কলেজ বিরোধী হয়ে ওঠায় এবং সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে যেভাবে বিদ্বেষ ছড়ানো হয়েছে তা পর্যবেক্ষণ করে আমরা শিক্ষার্থীদের মুখোমুখি অবস্থান লক্ষ্য করছি এবং সংঘর্ষের আশঙ্কা করছি। আমরা চাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থী এবং অধিভুক্ত সাত কলেজের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আলোচনা সাপেক্ষে উভয় পক্ষের স্বার্থ ও অধিকার বিবেচনা করে উদ্ভূত সংকট নিরসন করবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র