Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

অনলাইনে ফল প্রকাশে ইবি‘র সফটওয়্যার উদ্বোধন

অনলাইনে ফল প্রকাশে ইবি‘র সফটওয়্যার উদ্বোধন
সফটওয়্যার উদ্বোধন করলেন ইবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. হরুন উর রশিদ আসকারী, ছবি: বার্তা২৪
ইবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

অনলাইনের মাধ্যমে দ্রুত ফলাফল তৈরি ও প্রকাশের লক্ষ্যে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) রেজাল্ট প্রসেসিং সফটওয়্যারের উদ্বোধন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কার্যক্রমে অগ্রগতি ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে নতুন এ সফটওয়্যারের উদ্বোধন করা হয়।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সভাকক্ষে নতুন এ সফটওয়্যারের উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হরুন উর রশিদ আসকারী। এ সময় উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তোহাসহ বিভিন্ন অনুষদের ডিন ও শিক্ষক-কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেল সূত্রে জানা গেছে, নতুন এ সফটওয়্যারটি মোট তিন ধাপে কাজ সম্পাদন করবে। প্রথমত, এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক শাখা নতুন ভর্তিকৃত শিক্ষার্থীদের সকল তথ্য প্রশাসনকে প্রদান করবে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর একজন শিক্ষার্থীর প্রয়োজনীয় সকল তথ্য এখানে সংরক্ষিত থাকবে।

দ্বিতীয় ধাপে, বিভাগের পরীক্ষা কমিটি কর্তৃক শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা সংক্রান্ত সকল তথ্য দেওয়া থাকবে এবং তৃতীয় ধাপে, বিভাগের শিক্ষকরা পরীক্ষা শেষ করার পর বিষয়ভিত্তিক কোর্সের নম্বর রোল অনুযায়ী সফটওয়্যারে প্রদান করবে। এরপর চূড়ান্তভাবে নম্বর প্রদানের পর পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অফিস ফলাফল প্রকাশ করবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে শিক্ষার্থীরা নিজেদের রোল নম্বর দিয়ে তাদের ফলাফল সহজে দেখতে পারবেন। এছাড়া শিক্ষার্থীদের মোবাইল নম্বর এই সফটওয়্যারে অন্তর্ভুক্ত করা থাকলে এসএমএসের (খুদে বার্তা) মাধ্যমেও পরীক্ষার ফল জানা যাবে। ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে এই প্রক্রিয়া কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাজে অগ্রগতি ও শিক্ষার্থীদের কথা চিন্তা করে এটি করা হয়েছে। এর মাধ্যমে জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়কে সফল করার অংশ হিসেবে আমরা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল ক্ষেত্র ডিজিটালাইজেশন করতে চাই।’

আপনার মতামত লিখুন :

আন্দোলনকারীরা তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ!

আন্দোলনকারীরা তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ!
তালা দিলে ভাঙতে প্রস্তুত ছাত্রলীগ, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

গত তিন দিন ধরে সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলনে সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে পড়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্লাস, পরীক্ষাসহ প্রশাসনিক কার্যক্রম।

আন্দোলনকারীরা প্রশাসনিক এবং গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা লাগানোর ফলে অকার্যকর হয়ে পড়ে পুরো বিশ্ববিদ্যালয়। বুধবারও (২৪ জুলাই) রয়েছে আন্দোলনকারীদের কর্মসূচি।

তবে ক্যাম্পাসে যেকোনো ধরনের তালা ঝোলানো কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্ন ঘটাবে এমন কাজে বাধা প্রদান করার জন্য প্রস্তুত ঢাবি ছাত্রলীগ। বিভিন্ন হলের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ছাত্রলীগ নেতা বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম-কে বলেন, 'আগামীকাল ভোর ৬টায় আমাদের কর্মসূচি রয়েছে। আন্দোলনকারীরা প্রশাসনিক কার্যক্রম বন্ধ রাখতে তালা ঝোলাতে এলে তাদের বাধা প্রদান করা হবে। তাতে কাজ না হলে, যা করার তাই করতে হবে এমন নির্দেশনা রয়েছে।'

এর আগে গতকাল মঙ্গলবার আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সঙ্গে উত্তেজনা দেখা যায়। এক পর্যায়ে ডাকসুর সমাজসেবা সম্পাদক আখতার হোসেনকে মারধর করার অভিযোগ পাওয়া যায়। সে ঘটনা থেকে ক্যাম্পাসে উত্তেজনাকর পরিবেশ বিরাজ করছে।

আরও পড়ুন: ঢাবিতে পাল্টাপাল্টি অবস্থানে ছাত্রলীগ-আন্দোলনকারীরা

আরও পড়ুন: মার খাইতে অভ্যস্ত, প্রয়োজনে জীবন দেব: ভিপি নুর

ডাকসুর আখতারের ওপর হামলা: ছাত্র ইউনিয়নের নিন্দা

ডাকসুর আখতারের ওপর হামলা: ছাত্র ইউনিয়নের নিন্দা
ডাকসু সমাজ সেবা সম্পাদক আখতারের ওপর হামলায় নিন্দা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সমাজ সেবা সম্পাদক আখতারের ওপর ছাত্রলীগের হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ছাত্র ইউনিয়ন।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) ছাত্র ইউনিয়নের দফতর সম্পাদক অপূর্ব রায় স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ নিন্দার জানানো হয়।

এতে বলা হয়, 'সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের আন্দোলন চলাকালীন ডাকসুর সমাজ কল্যাণ সম্পাদকের ওপর ছাত্রলীগের হামলার ঘটনাটি দুঃখজনক। ক্যাম্পাসে যেকোনো ইস্যুভিত্তিক আন্দোলনে বারবার ছাত্রলীগের পেশিশক্তির ব্যবহারে তারা সুন্দর-সুস্থ ক্যাম্পাসের যে প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে তার বিপরীত রূপ তুলে ধরে। আমরা, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ, আজকের হামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।'

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, 'আমরা আজ এও দেখেছি যে, শিক্ষার্থীরা বর্তমান বিতর্কিত ডাকসুর ডাকে সাড়া না দিয়ে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে। এই পরিস্থিতি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয় যে, এই ডাকসু শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিত্ব করে না; এই ডাকসু শিক্ষার্থীদের আকাঙ্ক্ষার বিপরীতে গিয়ে নিজেদের মধ্যে (ডাকসু সাধারণ সম্পাদক বনাম সমাজ কল্যাণ সম্পাদক) মারামারিতে আজ লিপ্ত। শিক্ষার্থীদের এই সচেতনতায়, নিজেদের অধিকার বুঝে নেয়ার চেতনায় আমরা আশাবাদী হই।'

উল্লেখ্য যে, অধিভুক্তির এই আন্দোলন সাত কলেজ বিরোধী হয়ে ওঠায় এবং সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে যেভাবে বিদ্বেষ ছড়ানো হয়েছে তা পর্যবেক্ষণ করে আমরা শিক্ষার্থীদের মুখোমুখি অবস্থান লক্ষ্য করছি এবং সংঘর্ষের আশঙ্কা করছি। আমরা চাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থী এবং অধিভুক্ত সাত কলেজের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন আলোচনা সাপেক্ষে উভয় পক্ষের স্বার্থ ও অধিকার বিবেচনা করে উদ্ভূত সংকট নিরসন করবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র