Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

জাবিতে ‘নিবর্তনমূলক’ ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ বাতিলের দাবি

জাবিতে ‘নিবর্তনমূলক’ ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ বাতিলের দাবি
প্রশাসনিক ভবনের সামনে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন, ছবি: বার্তা২৪
জাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ ৫ এর 'ঞ' এবং 'থ' ধারাকে নিবর্তনমূলক আখ্যা দিয়ে তা বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদ।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) বেলা সাড়ে এগারোটায় বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন প্রশাসনিক ভবনের সামনে সিন্ডিকেট সভা চলাকালীন সময়ে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম অনিকের সঞ্চালনায় জাবি সংসদের সভাপতি নজির আমিন চৌধুরী জয় বলেন, ‘শিক্ষার্থী সংশ্লিষ্ট সংগঠন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কোনরূপ আলোচনা ছাড়াই এবং তাদের মতামতের তোয়াক্কা না করেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থী-স্বার্থবিরোধী বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ধারাবাহিকতায় শিক্ষার্থীদের মত প্রকাশ এবং অবাধ তথ্য প্রকাশের উপর বিধি-নিষেধ আরোপ করেছে। তথ্য অধিকার সুরক্ষায় রাষ্ট্রীয় আইন থাকার পরেও এইরকম আইন প্রণয়ন অত্যন্ত দুরভিসন্ধিমূলক। এই কালা কানুন প্রণয়নের মাধ্যমে তথ্যের অসততা বা বিকৃতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক নির্ধারণ করে দেওয়ার ফলে ক্ষমতার বিরুদ্ধে পর্যালোচনামূলক সাংবাদিকতাও বাধাগ্রস্ত হবে।’

মানববন্ধনে ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের কার্যকরী সদস্য রাকিবুল রনি শিক্ষার্থী স্বার্থবিরোধী এ অধ্যাদেশ বাতিলের দাবি জানিয়ে বলেন, ‘রাষ্ট্রকর্তৃক জনগণের টুটি চেপে ধরার যে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি সারাদেশে বিরাজমান, সেই একই পথে হাঁটছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/18/1560848696106.jpg

তিনি অবিলম্বে শিক্ষার্থী স্বার্থবিরোধী, নিবর্তনমূলক শৃঙ্খলা অধ্যাদেশ বাতিলসহ শিক্ষার্থী স্বার্থবিরোধী সকল কর্মকাণ্ড থেকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সরে আসার আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, গত ৫ এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ সিন্ডিকেট সভায় ছাত্র শৃঙ্খলা অধ্যাদেশে নতুন দুটি ধারা সংযুক্ত করা হয়। যেখানে অসত্য বা তথ্য বিকৃত করে বিশ্ববিদ্যালয় সংক্রান্ত কোনও সংবাদ বা প্রতিবেদন স্থানীয়/জাতীয়/আন্তর্জাতিক প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক সংবাদ মাধ্যমে/সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ/প্রচার করা বা উক্ত কাজে সহযোগিতা করা এবং কোন ছাত্র-ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীর উদ্দেশ্যে টেলিফোন, মোবাইল ফোন, ই-মেইল, ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোনও অশ্লীল বার্তা বা অসৌজন্যমূলক বার্তা প্রেরণ অথবা উত্যক্ত করতে পারবেন না বলে জানানো হয়।

অধ্যাদেশ মতে, ধারা দুটির ব্যত্যয় ঘটলে তা বিশ্ববিদ্যালয়ের চোখে ‘অসদাচরণ’ বলে গণ্য হবে এবং এজন্য লঘু শাস্তি হিসেবে সর্বোচ্চ পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা, সতর্কীকরণ এবং গুরু শাস্তি হিসেবে আজীবন বহিষ্কার, বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার, সাময়িক বহিষ্কার ও পাঁচ হাজার টাকার ঊর্ধ্বে যেকোনো পরিমাণ জরিমানার বিধান রাখা হয়। ধারা দুটি সংযুক্ত করার পরেই বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মরত সাংবাদিক ও ছাত্র নেতাদের মধ্যে তীব্র সমালোচনার ঝড় উঠে।

আপনার মতামত লিখুন :

ঢাবি ক্যাম্পাসে আজও বিক্ষোভ মিছিল ও তালা

ঢাবি ক্যাম্পাসে আজও বিক্ষোভ মিছিল ও তালা
ঢাবি ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল/ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে ছাত্রলীগের হুমকি উপেক্ষা করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল এবং প্রধান ফটকে তালা দিয়েছে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (২৪ জুলাই) ১১টার দিকে পূর্বঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে ঢাবির গ্রন্থাগারের সামনে সংবাদ সম্মেলন করে আন্দোলনকারীরা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/24/1563952213628.jpg

এ সময় আন্দোলনের মুখপাত্র শাকিল মিয়া দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্লাস পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন।

এরপর কয়েকশ শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে ক্যাম্পাসে মিছিল বের করা হয় এবং প্রধান ভবন ও প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগানো হয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/24/1563952232092.jpg

এরআগে সকাল থেকে আন্দোলনকারীদের রুখতে অবস্থান বিভিন্ন ফটকে অবস্থান নেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তাদের অবস্থান উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ করে। পাশেই ছাত্রলীগ কর্মীদের স্লোগান দিতে দেখা যায়। উত্তেজনাকর পরিবেশ বিরাজ করছে ক্যাম্পাসে।

ষোলশহর-ফতেয়াবাদ রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ

ষোলশহর-ফতেয়াবাদ রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ
দুর্ঘটনা কবলিত মাইক্রোবাসটি। ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া শাটল ট্রেনের সঙ্গে মাইক্রোবাসের ধাক্কা লেগেছে। এতে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া না গেলেও ষোলশহর-ফতেয়াবাদ রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

বুধবার (২৪ জুলাই) সকাল সাড়ে ৮টায় ফতেয়াবাদ স্টেশনের একটু আগে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ষোলশহর রেলওয়ে স্টেশনের সহকারী মাস্টার তন্ময় চৌধুরী জানান, মাইক্রোবাসটি রেললাইনে পড়ে থাকায় ট্রেন চলাচলে বিলম্ব ঘটছে। রেলওয়ে পুলিশ ও কর্মচারীরা উদ্ধার কাজে নিয়োজিত রয়েছে। রেল চলাচল স্বাভাবিক হতে আরও দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় লাগতে পারে।

এদিকে দুপুর আড়াইটায় নগরের বটতলী স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া শাটল ট্রেনে চড়ে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজনের চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। সেখানে তিনি উপাচার্য ও সাংবাদিক সমিতির সঙ্গে মতবিনিময় সভায় মিলিত হবেন। এতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মাঝেও চলছে আলোচনা। শাটল ট্রেনে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি ও ষোলশহর স্টেশন থেকে ডাবল রেললাইন চালুর বিষয়ে আলোচনা হবে বলে জানা গেছে।

এর আগে দায়িত্ব পালন করা সাবেক রেলমন্ত্রী মুজিবুল হকের শাটল ট্রেনে চড়ে চবি ক্যাম্পাসে যাওয়ার কথা থাকলেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে সম্ভব হয়নি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র