Barta24

মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০১৯, ১১ আষাঢ় ১৪২৬

English Version

ছিনতাইয়ের শিকার জাবি শিক্ষার্থী

ছিনতাইয়ের শিকার জাবি শিক্ষার্থী
হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ছিনতাইয়ের শিকার জাবি শিক্ষার্থী, ছবি: সংগৃহীত
জাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ঈদের ছুটি শেষে বাড়ি থেকে ক্যাম্পাসে ফেরার পথে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) এক শিক্ষার্থী ছিনতাইয়ের শিকার হয়েছেন।

মঙ্গলবার (১১ জুন) ভোরে ওই শিক্ষার্থীকে ঢাকার আশুলিয়ার বেড়িবাঁধ এলাকা থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে সাভারের স্থানীয় এক হাসপাতালে ভর্তি করান পথচারীরা।

এ বিষয়ে বিকেলে আশুলিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ছিনতাইয়ের শিকার আল আমিন কোরাইশি। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের ৪৪তম ব্যাচ ও মওলানা ভাসানী হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

লিখিত অভিযোগ ও আল আমিন কোরাইশির কাছ থেকে জানা যায়, ঈদের ছুটি শেষে গত সোমবার হবিগঞ্জের মাধবপুর থেকে ট্রেনে করে ঢাকায় ফেরেন আল আমিন। রাত সাড়ে ১১টায় ঢাকার বিমানবন্দর রেলস্টেশনে নেমে নবীনগরগামী আশুলিয়া ক্লাসিক বাসে ওঠেন আল আমিন। বাসে ওঠার পর দশ টাকা দিয়ে শসা কিনে খান তিনি। এর কিছুক্ষণের মধ্যেই জ্ঞান হারান আল আমিন।

এ সময় কয়েকজন ছিনতাইকারীরা তার সঙ্গে থাকা ল্যাপটপ, মুঠোফোন ও নগদ টাকাসহ মানিব্যাগ নিয়ে নেন। এরপর তাকে আশুলিয়া থানার আশুলিয়া বেড়িবাঁধ এলাকায় সড়কের পাশে ফেলে রেখে যায়। এ ঘটনার পর গতকাল মঙ্গলবার ভোরের দিকে পথচারীরা তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে আশুলিয়ার জামগড়া নারী ও শিশুকেন্দ্রে নিয়ে যান। পরে সেখান থেকে দুপুর ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, 'আশুলিয়া ক্লাসিকের বাসে বাইপাইল পর্যন্ত টিকেট কাটি। গাড়িতে ওঠার পর একজন শসা বিক্রেতা শসা কেনার জন্য জোরাজুরি করতে থাকেন। বাধ্য হয়ে শসা কিনে মুখে দেওয়ার পরপরই আমি অজ্ঞান হয়ে পড়ি। এক পর্যায়ে গাড়ির হেল্পার আমাকে জাগিয়ে তুলে বলেন, বাস এখন বেড়ি বাঁধে আছে। এখান থেকে আর যাবে না। কিন্তু আমি ঘুমের ঘোরে কিছু বুঝতে পারছিলাম না। পরে জানলাম আমাকে সড়কের পাশে ফেলে রেখে গেছে।’ আল আমিন কোরাইশির অভিযোগ, বাসের ড্রাইভার ও হেল্পার মিলে তাকে অজ্ঞান করে ছিনতাই করেছে।'

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, ‘আল আমিন এখন সুস্থ। তাকে অভিভাবক এসে নিয়ে গেছে। বিষয়টি ক্যাম্পাসের বাইরে হওয়ার থানায় অভিযোগ জানাতে বলেছি।’

এ বিষয়ে আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জামিলুর রহমান বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। অভিযোগের প্রেক্ষিতে ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।’

আপনার মতামত লিখুন :

টিএসসি যেন এক মিনি স্টেডিয়াম

টিএসসি যেন এক মিনি স্টেডিয়াম
টিএসসিতে বাংলাদেশ দলের খেলা দেখছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে জাতীয় দলের খেলার দিনগুলোতে ঢাকার চিত্র যায় পাল্টে। আর বিশ্বকাপে টাইগারদের ম্যাচ হলে তো কথাই নেই। বাংলাদেশিদের ক্রিকেটের প্রতি ভালোবাসা কতটা প্রবল সেটা বোঝা যায় ম্যাচের দিন পাড়া-মহল্লা কিংবা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ঘোরাফেরা করলে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির সামনের ফাঁকা জায়গায় প্রজেক্টরের মাধ্যমে সরাসরি খেলা দেখার ব্যবস্থা হয় নিয়মিতই। সোমবারও (২৪ জুন) তার ব্যতিক্রম ছিল না। কারণ এদিন মাশরাফি বাহিনী বিশ্বকাপে মুখোমুখি হয়েছে আফগানদের। আর তাই ম্যাচটি উপভোগ করতে টিএসসি এলাকায় সমবেত হয়েছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/24/1561382608162.jpg
সোমবার বিকেলে টিএসসিতে গিয়ে দেখা যায় নানান শ্রেণি-পেশার মানুষ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে বড় পর্দায় সাকিব-মুশফিকদের ব্যাংটিং উপভোগ করছেন। প্রতিটা বাউন্ডারির সঙ্গে সঙ্গে উল্লাসে ফেটে পড়ছেন উপস্থিত লোকজন। প্রতিটা ছয়-চারের মারে চলছে উদযাপন। সমবেতদের উল্লাস-উদযাপনে মিনি স্টেডিয়ামে পরিণত হয়েছে টিএসসি।

বাংলাদেশের খেলার দিন শুধু বাড়িতে বসে বা অফিসে বসে নয়, যে যেখানে আছে সেখান থেকেই ম্যাচ উপভোগের চেষ্টা করেন। যাদের দেখার সৌভাগ্য হচ্ছে না তারা রেডিও কিংবা ইন্টারনেটে ম্যাচের খোঁজ-খবর নেন।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বাকি আছে তিনটি ম্যাচ। তিনটি ম্যাচেই জিততে পারলে সেমিফাইনালে যাবে বাংলাদেশ। তাই আফগানিস্তানের বিপক্ষে এদিনের ম্যাচটি হয়ে উঠেছে গুরুত্বপূর্ণ। আজকের ম্যাচে জিততে পারলে সেমিফাইনালের আশাটা জীবিত থাকবে।

ইবির পরিবহন পুলে নতুন ৪টি গাড়ি

ইবির পরিবহন পুলে নতুন ৪টি গাড়ি
নতুন গাড়ির উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী, ছবি: বার্তা২৪

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) পরিবহন পুলে নতুন চারটি গাড়ি যুক্ত হয়েছে। সোমবার (২৪ জুন) দুপরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসন ভবনের সামনে ফিতা কেটে গাড়িগুলো উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. সেলিম তোহা, পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলাম, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফসহ অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্ববিদ্যালয় পরিবহন অফিস সূত্রে জানা যায়, পরিবহন অফিস আরও বেশি স্বনির্ভর হওয়ার লক্ষ্যে দুটি এসি মিনি কোস্টার, একটি অ্যাম্বুলেন্স, একটি মাইক্রোবাস ক্রয় করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। নিজস্ব অর্থায়নে ক্রয়কৃত গাড়ি চারটির মধ্যে এসি কোস্টার দুটির একটি শিক্ষক ও একটি কর্মকর্তাদের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলাম বলেন, ‘প্রায় দুই কোটি ২০ লাখ ৭১ হাজার টাকায় নতুন চারটি গাড়ি ক্রয় করা হয়েছে। এর মধ্যে ৪১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা মূল্যে একটি অ্যাম্বুলেন্স, প্রতিটি ৬৭ লাখ ৯৮ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যে দুটি এসি মিনি কোস্টার এবং ৪২ লাখ ৯৯ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যে একটি হাইয়েচ মাইক্রো রয়েছে।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী বলেন, ‘বর্তমান প্রশাসনের দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে এ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন পুলে আটটি নতুন গাড়ি যুক্ত হয়েছে। আরও দুটি বড় বাস (হিনো) শিক্ষার্থীদের জন্য অতি শিগগির পরিবহন পুলে যুক্ত হবে বলে আশা করছি।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র