Alexa

ঈদের নতুন কাপড়ে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মুখে হাসি

ঈদের নতুন কাপড়ে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মুখে হাসি

ঈদের কাপড় পেল সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা / ছবি: বার্তা২৪

সামনে ঈদুল ফিতর। তাই ঈদের নতুন কাপড় পেয়ে বেজায় খুশি রহিমা ও আকাশ। গরীব পিতা মাতার সন্তান। দিনমজুর বাবার দিন আনতে পান্তা ফুরিয়ে যায় অবস্থা। সেখানে আবার ঈদের নতুন পোশাক! কারও জন্য স্বাভাবিক ব্যাপার হলেও রহিমা আর আকাশ এবং তাদের পরিবারের জন্য অলীক কল্পনা ছাড়া আর কিছুই নয়। কিন্তু এবার ঈদে পছন্দের নতুন কাপড় পেয়ে হাসি ফুটে উঠেছে তাদের মুখে।

শুধু রহিমা আর আকাশ নয় নতুন কাপড় পেয়ে খুশি বিজয়, খুর্শিদা, লাবনী, শান্তা, মিতু, মাহফুজারা। এবার ঈদটা হয়তো রঙিন হয়ে ধরা দেবে তাদের কাছে। তারা সবাই পড়ছে সাভারের সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত 'অ আ ক খ' স্কুলে।

সুবিধাবঞ্চিত এসব শিশুদের মাঝে কাপড় বিতরণে এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের ৪৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। টাকা সংগ্রহের পর বাচ্চাদের দোকানে নিয়ে তাদের পছন্দ অনুযায়ী কাপড় কিনে দিয়েছেন তারা।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/May/23/1558626598213.JPG

ব্যতিক্রমী এমন উদ্যোগের কথা জানালেন দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী হুমায়ুন ইবনে জামান, 'আমরা বাচ্চাদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগ করে নিতে চেয়েছি। আমাদের যাদের সামর্থ্য আছে, চাইলেই কিছু করতে পারি। কিন্তু সমাজের এসব সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের ক্ষেত্রে সেটা হয় না। ওদের পছন্দ অপছন্দের গুরুত্ব আমরা কেউ দিতে পারি না। সেই চিন্তা থেকে বন্ধুদের সহায়তায় আমরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী ঈদের কাপড় কিনে দিয়েছি। আমরা চাই ঈদের আনন্দ ছড়িয়ে পড়ুক সবার মাঝে।’

অ আ ক খ স্কুলের শিক্ষক ও সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের শিক্ষার্থী জাকির হোসেন মানিক বার্তা২৪.কমকে বলেন, 'সাভারের নিরিবিলি বস্তিতে পিছিয়ে পড়া কিছু শিশুকে সমাজের মূল ধারায় নিয়ে আসার প্রত্যয়ে ২০১৬ সালে অ আ ক খ স্কুলের যাত্রা শুরু হয়। এসব পিছিয়ে পড়া বাচ্চাদেরকে যাবতীয় শিক্ষা উপকরণ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দেওয়া হয় স্কুলের পক্ষ থেকে। আমরা চাই অন্য বাচ্চাদের মতো এসব সুবিধাবঞ্চিত শিশুরা গড়ে উঠুক। সমাজের জন্য যেন তারা কিছু করতে পারে।’

এছাড়া তিনি এবার ঈদ উপেক্ষে স্কুলের বাচ্চাদেরকে পোশাক কিনে দেওয়ার জন্য দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থীদেরকে ধন্যবাদ জানান।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ১৯ মে ৬০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিশুকে নিয়ে যাত্রা শুরু হয় অ আ ক খ স্কুলের। স্কুলের শিক্ষার্থীদেরকে পাঠ্য বইয়ের পাশাপাশি হাতে কলমে বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা প্রদান করা হয়। বর্তমানে এ স্কুলে শিক্ষার্থী রয়েছে মোট ৬৬ জন।

আপনার মতামত লিখুন :