Barta24

মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯, ১ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বেরোবিতে ৩৩ দিনের লম্বা ছুটি

বেরোবিতে ৩৩ দিনের লম্বা ছুটি
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি) ক্যাম্পাস, ছবি: সংগৃহীত
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
রংপুর


  • Font increase
  • Font Decrease

পবিত্র মাহে রমজান, শবে কদর, ঈদুল ফিতর এবং গ্রীষ্মকালীন ছুটি উপলক্ষে ৩৩ দিনের লম্বা ছুটিতে যাচ্ছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি)।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সন্ধ্যায় বার্তা২৪.কমের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বেরোবির তথ্য ও জনসংযোগ দফতরের সেকশন অফিসার আরিফুল ইসলাম।

তিনি জানান, বৃহস্পতিবার থেকে আগামী ১৭ জুন পর্যন্ত মোট ৩৩ দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল প্রকার ক্লাস এবং পরীক্ষা বন্ধ থাকবে। এছাড়াও আগামী ১৯ মে থেকে ১৭ জুন পর্যন্ত ২৯ দিন অফিস ছুটি থাকবে।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন আবাসিক হল আগামী ১ জুন থেক ১৪ জুন পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। ক্যাম্পাস বন্ধকালীন সময়ে বহিরাগত কেউ অথবা বহিরাগত কোনো যানবাহন পূর্বানুমতি ব্যাতিত প্রবেশ করতে পারবে না বলেও জানান তিনি।

আরিফুল ইসলাম বলেন, ছুটি শেষে আগামী ১৮ জুন মঙ্গলবার থেকে যথারীতি ক্লাস ও পরীক্ষা শুরু হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

শাবিপ্রবির তৃতীয় সমাবর্তন ডিসেম্বরে, কমিটি গঠিত

শাবিপ্রবির তৃতীয় সমাবর্তন ডিসেম্বরে, কমিটি গঠিত
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস, ছবি: সংগৃহীত

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর ঘোষিত হয়েছে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) তৃতীয় সমাবর্তনের তারিখ। চলতি বছরের ডিসেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হবে তৃতীয় সমাবর্তন।

মঙ্গলবার (১৬ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইশফাকুল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা যায়, গত ১৪ মে একাডেমিক কাউন্সিলের এক জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ নিয়ে একটি সাংগঠনিক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে সভাপতি হিসেবে রয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

কমিটির সদস্য হিসেবে রয়েছেন- কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম, ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন, জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, কৃষি ও খনিজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, ভৌত বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, ব্যবস্থাপনা এবং ব্যবসা প্রশাসন অনুষদের ডিন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, চিকিৎসা বিজ্ঞান অনুষদের ডিন, সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রধানবৃন্দ, আইআইসিটির পরিচালক, আধুনিক ভাষা ইন্সটিটিউটের পরিচালক, ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক, প্রক্টর, হিসাব পরিচালক, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, প্রধান প্রকৌশলী এবং এতে সদস্য সচিব করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারকে।

১৯৯১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর মাত্র দুইবার সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৯৯৮ সালের ২৯শে এপ্রিল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম সমাবর্তন আয়োজন করেন তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক এম হাবিবুর রহমান। এর ঠিক নয় বছর পর ২০০৭ সালের ৬ ডিসেম্বর দ্বিতীয় সমাবর্তন আয়োজন করেন তৎকালীন উপাচার্য অধ্যাপক ড. আমিনুল ইসলাম। ১৯৯১-৯২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ২০০০-০১ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত দুই বারে সর্বমোট ১০টি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা সমাবর্তন পেয়েছেন। এরপর ২০০১-০২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ২০১৪-১৫ পর্যন্ত মোট ১৪টি ব্যাচের শিক্ষার্থীরা সম্মান সম্পন্ন করেছেন, তারা এখনো সমাবর্তন পায়নি।

এদিকে কিছুদিন আগে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জানিয়েছিলেন, দীর্ঘদিন সমাবর্তন না হওয়ায় একটি বিরাট সংখ্যক শিক্ষার্থী সমাবর্তনের অপেক্ষায় রয়েছে। যার ফলে এই বিরাট সংখ্যক শিক্ষার্থীর এক সাথে সমাবর্তন দেওয়া সম্ভব নয়। দুইভাগে সমাবর্তন দেওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মহামান্য রাষ্ট্রপতি মো. আব্দুল হামিদের সঙ্গে কথা বলে ডিসেম্বরে সমাবর্তনের তারিখ নির্ধারণ করা হবে। তৃতীয় সমাবর্তনে ২০০১-০২ শিক্ষাবর্ষ থেকে ২০১০-১১ শিক্ষাবর্ষ পর্যন্ত গ্র্যাজুয়েট শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করতে পারবে এবং আগামী বছর সম্ভাব্য চতুর্থ সমাবর্তনে বাকি শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করতে পারবে। আগস্ট থেকে রেজিস্ট্রেশন শুরু করা হবে জানিয়েছিলেন তিনি।

 

জাবির পরিবহনে যুক্ত হলো ৫টি নতুন গাড়ি

জাবির পরিবহনে যুক্ত হলো ৫টি নতুন গাড়ি
গাড়ি উদ্বোধন করলেন জাবি উপাচার্য, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) পরিবহন ব্যবস্থাকে সমৃদ্ধ করতে নতুন করে আরও পাঁচটি গাড়ি যুক্ত করা হয়েছে। পাঁচটি গাড়ির মধ্যে রয়েছে- দুটি এসি মিনিবাস, একটি নন এসি মিনিবাস, একটি এসি মাইক্রোবাস ও একটি পিকআপ।

জানা যায়, দুটি এসি মিনিবাস ও এসি মাইক্রোবাস শিক্ষকদের পরিবহনে এবং নন এসি মিনিবাসটি শিক্ষার্থীদের পরিবহনে ব্যবহৃত হবে বলে জানা যায়।

বুধবার (১৬ জুলাই) দুপুর ১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে পরিবহনগুলোর উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলাম।

উদ্বোধনকালে উপাচার্য বলেন, 'আমরা অত্যন্ত খুশি যে, শেষ পর্যন্ত নতুন বাস পেলাম। এর মধ্যদিয়ে আমাদের পরিবহন আরও সমৃদ্ধ হল। যদিও চাহিদার তুলনায় বাসের সংখ্যা এখনো কম। খুব শীঘ্রই আরও কিছু বাস আমরা পরিবহনে সংযোজন করতে পারব।'

গাড়ির রক্ষণাবেক্ষণে সকলের সহযোগিতা কামনা করে উপাচার্য আরও বলেন, 'এসব আপনাদের সম্পদ। আমাদের পরিবহন শুধু গাড়িতেই সুন্দর হবে তা নয়। পরিবহন সেবায় নিয়োজিত সকলের আচরণও ভালো হবে আশা করি।'

এদিকে দুই কোটি ৩৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে গাড়িগুলো কেনা হয়েছে। এর মধ্যে ৩০ সিটের এসি মিনিবাস দুটি ক্রয়ে এক কোটি ৩৫ লাখ ৫০ হাজার ও ১৬ সিটের মাইক্রোবাস ক্রয়ে ৪৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয় হয়েছে। এছাড়া পিকআপ ২৯ লাখ এবং ৩০ সিটের নন এসি মিনিবাস ক্রয়ে ২৭ লাখ ৫০ হাজার টাকা দিয়ে ক্রয় করা হয়েছে।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক নূরুল আলম, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক শেখ মো. মনজুরুল হক, ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক বশির আহমেদ, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ভারপ্রাপ্ত ডিন অধ্যাপক রাশেদা আখতার, ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র