Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মৃৎশিল্পীদের জীবনযাপন নিয়ে রাবিতে তথ্যচিত্র প্রদর্শনী

মৃৎশিল্পীদের জীবনযাপন নিয়ে রাবিতে তথ্যচিত্র প্রদর্শনী
মৃৎশিল্পীদের জীবনযাপন নিয়ে রাবিতে তথ্যচিত্র প্রদর্শনী, ছবি: বার্তা২৪.কম
রাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নওগাঁর মান্দা উপজেলার নারায়ণপুর গ্রামের মৃৎশিল্পীদের জীবনযাপন নিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) লোকশিল্প, উন্নয়ন ও গ্রামীণ অধ্যয়ন বিষয়ক ‘মৃত্তিকা’ নামক তথ্যচিত্রের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (০৫ মে) বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের শ্রেণিকক্ষে এ তথ্য চিত্রটি প্রদর্শিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও রতন কুমার তথ্যচিত্রটি যৌথভাবে নির্মাণ করেছেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহাসহ বিভাগের শিক্ষকবৃন্দ তথ্যচিত্রের ধারণকৃত সিডির মোড়ক উন্মোচন করেন। পরে তথ্যচিত্রটির প্রদর্শনী হয়। বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সেটি উপভোগ করেন। তথ্যচিত্রটিতে বাংলাদেশের লোকশিল্প এবং মৃৎশিল্পীদের জীবনযাপনের বিভিন্ন বিষয় প্রদর্শন করা হয়।

অনুষ্ঠানে অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ‘আধুনিকতার ছোঁয়ায় সমাজের নানা ঐতিহ্য এখন বিলুপ্তির পথে। আমাদের তরুণ প্রজন্মের অধিকাংশই মৃৎশিল্প বিষয়ে পরিচিত নয়। তারা জানতে পারছে না যে, কীভাবে একজন কুমার তাঁ হাতের স্পর্শে মাটি দিয়ে অসাধারণ সব তৈজসপত্র তৈরি করছেন। আমাদের ঐতিহ্য আমাদেরকেই বাঁচাতে হবে।’ সবশেষে তিনি নির্মাতাদের শুভেচ্ছা জানান।

অনুষ্ঠানে বিভাগের শিক্ষক সুস্মিতা চক্রবর্তী, মোবারা সিদ্দিকা, ফারজানা রহমান, আমিরুল ইসলাম, আব্দুল্লাহ আল মামুন, অনুপম হীরা সহ বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের অর্ধশতাধিক শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন বিভাগের সভাপতি অধ্যাপক আখতার হোসেন।

আপনার মতামত লিখুন :

ঢাবিতে সব কার্যক্রম বন্ধ

ঢাবিতে সব কার্যক্রম বন্ধ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন ও গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা দিয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সাত কলেজ অন্তর্ভুক্তি দাবিতে রোববার (২১ জুলাই) তালা ঝুলানোর পর আবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) প্রশাসনিক ভবন ও গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এতে প্রায় বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের কার্যক্রম।

সোমবার (২২ জুলাই) ভোর ৬টার দিকে শিক্ষার্থীরা তালা লাগিয়ে দেয় সব ধরনের গুরুত্বপূর্ণ ভবনে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবন, এফবিএস, রেজিস্টার বিল্ডিংয়ের গেইট, আইইয়ার ভবনের গেইট, গণিত ভবন সব জায়গায় শিক্ষার্থীরা তালা দিয়ে  কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে।

আন্দোলনকারীদের কয়েকটি গ্রুপ ভাগ হয়ে এই কাজ করছে। তাদের এক দফা এক দাবি অধিভুক্ত বাতিল না করলে আমাদের আন্দোলন চলমান থাকবে। প্রশাসন যেমন আশ্বাস দিলেও আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।

তবে আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি খুবই কম। তাদেরকে ছাত্রলীগ বিভিন্নভাবে বাধা প্রদান করেছে।

আরও পড়ুন: সোমবারও ঢাবিতে ঝুলতে পারে তালা!

সোমবারও ঢাবিতে ঝুলতে পারে তালা!

সোমবারও ঢাবিতে ঝুলতে পারে তালা!
রোববার আন্দোলনকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনের ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজ বাতিলের দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো সোমবারও (২২ জুলাই) প্রশাসনিক ও গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা ঝুলতে পারে। বন্ধ থাকতে পারে প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম।

রোববার (২১ জুলাই) রাতে আন্দোলনকারী একাধিক শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।

রোববার আন্দোলনকারীদের অবরোধে বন্ধ থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম। বিকেলে শিক্ষার্থীদের লাগানো তালাগুলো ভেঙে ফেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিতে তাদের সহানুভূতি রয়েছে দাবি করে তাদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করেন।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, সোমবার সকাল ৬টার দিকে তাদের সবার ডাকসু ভবনের সামনে একত্রিত হওয়ার কথা রয়েছে। সেখান থেকে তালা লাগানোর কর্মসূচি পালন করা হবে।

কলাভবন, এফবিএস, আইইআর, রেজিস্ট্রার বিল্ডিং ও ভিসির কার্যালয়ে এ কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানান আন্দোলনকারীরা।

এদিকে ডাকসু নেতাদের সঙ্গে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও সে সম্পর্কে গণমাধ্যমকে কিছু জানানো হয়নি। তবে বৈঠকে যাই হোক আন্দোলনকারীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র