Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ইউসিসির বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ রাবি শিক্ষার্থীদের

ইউসিসির বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ রাবি শিক্ষার্থীদের
ইউসিসির বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে রাবি শিক্ষার্থীদের সংবাদ সম্মেলন, ছবি: বার্তা২৪.কম
রাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ইউনিভার্সিটি কোচিং সেন্টার (ইউসিসি) রাজশাহী শাখার বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২ মে) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ক্যাফেটেরিয়ায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থীরা এ অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী সানজিদা ঢালী বলেন, ‘চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে ইউসিসি কর্তৃপক্ষ সংবর্ধনার নাম করে বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্সপ্রাপ্ত বিভিন্ন বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের তথা আমাদের কাছ থেকে ছবি, মোবাইল নম্বর, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার রোল নম্বর, রেজিস্ট্রেশন নম্বর ও প্রাপ্ত জিপিত্রসহ ফরম পূরণ করিয়ে নেয়। এসব তথ্য ব্যবহার করে ইউসিসি ২০১৯ সালে রাজশাহী শাখা থেকে প্রকাশিত প্রসপেক্টাসে আমাদের ইউসিসি’র শিক্ষার্থী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে আমাদের কেউই ইউসিসিতে কোচিং করিনি। ইউসিসি কর্তৃপক্ষ আমাদেরকে যেভাবে তাদের শিক্ষার্থী হিসেবে উল্লেখ করেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যাচার ও প্রতারণা।’

সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষার্থীরা বলেন, 'শুধু আইন বিভাগই নয়, অন্য বিভাগেরও বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থীর ছবি ব্যবহার করেছে ইউসিসি। দুয়েকদিন আগে সংবর্ধনার জন্য আমাদের মুঠোফোনে ক্ষুদে বার্তা পাঠায় ইউসিসি সাহেব বাজার শাখা। সে অনুযায়ী ১৩ই মে তারা এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন এবং আমাদেরকে ১-১০ই মে তারিখের মধ্যে অনুষ্ঠানের টোকেন সংগ্রহ করতে বলা হয়েছে।'

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইউসিসি রাজশাহী শাখার পরিচালক দেলোয়ার হোসেন অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবি করে বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘প্রসপেক্টাসে আমরা যাদের ছবি ব্যবহার করেছি তারা সবাই আমাদের কোচিংয়ের শিক্ষার্থী। সব তথ্য আমাদের কাছে আছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থী যারা বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেয়েছে তাদের সংবর্ধনার জন্য পরবর্তীতে তথ্য সংগ্রহ করেছি। ওই সময় যদি অন্য কেউ নিজে থেকে ফরম পূরণ করে ফেলতে পারে। সেক্ষেত্রে আমাদের কিছু বলার নেই।’

ইউসিসির ঢাকা হেড অফিসের ম্যানেজার সেলিম বার্তা২৪.কম-কে বলেন, ‘কেউ যদি ইউসিসিতে কোচিং না করে তাহলে তাদের ছবি ছাপানোর ক্ষমতা আমাদের নেই। রাজশাহী শাখা এমনটা করেছে কিনা জানি না। ওদের সাথে কথা বলে দেখব। আর এসব বিষয়ে আপনার-আমার মাথা ঘামিয়ে লাভ নেই।’

সংবাদ সম্মেলনে বিভাগের লামিয়া, এষা, মারুফ, মোর্শেদ, তন্বী, আছিয়া, হুমায়ুন কবীর, সাজেদুল হকসহ ১৯ জন শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত লিখুন :

ঢাবিতে সব কার্যক্রম বন্ধ

ঢাবিতে সব কার্যক্রম বন্ধ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন ও গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা দিয়েছে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সাত কলেজ অন্তর্ভুক্তি দাবিতে রোববার (২১ জুলাই) তালা ঝুলানোর পর আবারও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) প্রশাসনিক ভবন ও গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা দিয়েছেন আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এতে প্রায় বন্ধ রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের কার্যক্রম।

সোমবার (২২ জুলাই) ভোর ৬টার দিকে শিক্ষার্থীরা তালা লাগিয়ে দেয় সব ধরনের গুরুত্বপূর্ণ ভবনে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবন, এফবিএস, রেজিস্টার বিল্ডিংয়ের গেইট, আইইয়ার ভবনের গেইট, গণিত ভবন সব জায়গায় শিক্ষার্থীরা তালা দিয়ে  কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে।

আন্দোলনকারীদের কয়েকটি গ্রুপ ভাগ হয়ে এই কাজ করছে। তাদের এক দফা এক দাবি অধিভুক্ত বাতিল না করলে আমাদের আন্দোলন চলমান থাকবে। প্রশাসন যেমন আশ্বাস দিলেও আমরা আন্দোলন চালিয়ে যাব।

তবে আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি খুবই কম। তাদেরকে ছাত্রলীগ বিভিন্নভাবে বাধা প্রদান করেছে।

আরও পড়ুন: সোমবারও ঢাবিতে ঝুলতে পারে তালা!

সোমবারও ঢাবিতে ঝুলতে পারে তালা!

সোমবারও ঢাবিতে ঝুলতে পারে তালা!
রোববার আন্দোলনকারীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনের ফটকে তালা ঝুলিয়ে দেন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত কলেজ বাতিলের দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো সোমবারও (২২ জুলাই) প্রশাসনিক ও গুরুত্বপূর্ণ ভবনে তালা ঝুলতে পারে। বন্ধ থাকতে পারে প্রশাসনিক ও একাডেমিক কার্যক্রম।

রোববার (২১ জুলাই) রাতে আন্দোলনকারী একাধিক শিক্ষার্থীর সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে।

রোববার আন্দোলনকারীদের অবরোধে বন্ধ থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক কার্যক্রম। বিকেলে শিক্ষার্থীদের লাগানো তালাগুলো ভেঙে ফেলে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবিতে তাদের সহানুভূতি রয়েছে দাবি করে তাদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার অনুরোধ করেন।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা জানান, সোমবার সকাল ৬টার দিকে তাদের সবার ডাকসু ভবনের সামনে একত্রিত হওয়ার কথা রয়েছে। সেখান থেকে তালা লাগানোর কর্মসূচি পালন করা হবে।

কলাভবন, এফবিএস, আইইআর, রেজিস্ট্রার বিল্ডিং ও ভিসির কার্যালয়ে এ কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানান আন্দোলনকারীরা।

এদিকে ডাকসু নেতাদের সঙ্গে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও সে সম্পর্কে গণমাধ্যমকে কিছু জানানো হয়নি। তবে বৈঠকে যাই হোক আন্দোলনকারীরা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র