Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

নারী দিবসে ইবিতে র‌্যালি

নারী দিবসে ইবিতে র‌্যালি
নারী দিবসে ইবিতে র‌্যালি / ছবি: বার্তা২৪
ইবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

আর্ন্তজাতিক নারী দিবস উপলক্ষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের আয়োজনে শুক্রবার (৮ মার্চ) র‌্যালি ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে দিবসটি পালন করে হলের শিক্ষার্থীরা।

‘সবাই মিলে ভাবো, নতুন কিছু করো, নারী-পুরুষ সমতার নতুন বিশ্ব গড়ো’ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে সকাল ১০টায় দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের হয়। হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরীনের নেতৃত্বে র‌্যালিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে প্রশাসন ভবনের সামনে গিয়ে শেষ হয়। র‌্যালিতে হলের আবাসিক শিক্ষক ও বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

র‌্যালি শেষে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে প্রশাসন ভবনের সামনে নারীর ক্ষমতায়নের উপর এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় অনুষ্ঠিত হয়।

হলের আবাসিক শিক্ষার্থী স্বর্ণার সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান বলেন, ‘নারী-পুরুষ আলাদা কোনো বিষয় নয়। যার মধ্যে মেধা ও দক্ষতা থাকবে সেই সামনে এগিয়ে আসবে। সেই নেতৃত্ব দেবে। আমাদের সেই নেতৃত্ব মেনে নেওয়ার মানসিকতা তৈরি করতে হবে। তাহলেই প্রত্যেকটি কাজে দেশ এগিয়ে যাবে।’

হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরীন বলেন, ‘আমরা আজ সমাবেত হয়েছি শুধুমাত্র নিজেদেরকে একত্রিত করার জন্য নয়। জাতি গঠনে আমাদের সন্তানদের উপযুক্ত হিসেবে গড়ে তুলতে যে অনূকুল পরিবেশ দরকার তা যদি আমরা সুষ্ঠুভাবে তৈরি করতে পারি, তাহলে আমরা আমাদের দক্ষতা ও সার্মথর প্রমাণ রাখতে পারব।’

আপনার মতামত লিখুন :

সার্টিফিকেটে আলাদা রঙে বোল্ড থাকবে সাত কলেজের নাম

সার্টিফিকেটে আলাদা রঙে বোল্ড থাকবে সাত কলেজের নাম
সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের দাবিতে আন্দোলন, পুরনো ছবি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের সার্টিফিকেট এবং ঢাবির সার্টিফিকেট অভিন্ন। এটাকে আরও বেশি পরিষ্কার এবং আলাদা করার জন্য এখন থেকে কলেজের নাম বোল্ড ও আলাদা রঙ ব্যবহারের করা হবে বলে জানিয়েছেন সাত কলেজের সমন্বয়ক ও ঢাবির ব্যবসা শিক্ষা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. শিবলী রুবায়াতুল ইসলাম।

রোববার (২১ জুলাই) ঢাবি কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নেতৃবৃন্দ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্তরের ডিনদের সঙ্গে সাত কলেজ ইস্যুতে উদ্ভূত সমস্যা নিয়ে এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান তিনি।

শিবলী রুবায়তুল ইসলাম বলেন, 'আমাদের শিক্ষার্থীরা মনে করেন, সাত কলেজের সঙ্গে আমাদের সার্টিফিকেট অভিন্ন নয় বরং হুবহু। সেটা মাথায় রেখে আমাদের ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর প্রস্তাবনা রেখেছে, কলেজের নাম বোল্ড অথবা আলাদা রং ব্যবহার করার জন্য। আমরা সে উদ্যোগ নিচ্ছি।'

তিনি বলেন, 'তথ্যগত কিছু বিভ্রান্তিতে আমাদের শিক্ষার্থীরা আছেন। শুধু আমাদের শিক্ষকরা তাদের খাতা দেখেন না, মাত্র দশ ভাগ আমাদের শিক্ষক আর বাকি নব্বই ভাগ তাদের কলেজের শিক্ষকরায় দেখেন। তাদের ভাইভা এবং ভর্তি কার্যক্রমও তাদের স্ব-স্ব কলেজে দেওয়া হবে। সমাবর্তনের বিষয়টাও স্ব-স্ব কলেজেই হচ্ছে।'

তিনি আরও বলেন, 'আমরা আইটি সেক্টর গঠন করেছি যাতে সবকিছু আইটির মাধ্যমে সম্পাদন করা যায়। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হবে এটা কোনোভাবেই আমরা হতে দেব না।'

অধিভুক্ত বাতিলের এখতিয়ার আমাদের নেই: ঢাবি উপ-উপাচার্য

অধিভুক্ত বাতিলের এখতিয়ার আমাদের নেই: ঢাবি উপ-উপাচার্য
ডাকসু নেতৃবৃন্দ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিনদের সঙ্গে বৈঠকে ঢাবি উপ-উপাচার্য, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) অধীনে থাকা সরকারি সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিলের এখতিয়ার আমাদের নেই বরং এটা সরকারের বিষয় বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ।

রোববার (২১ জুলাই) উপাচার্য ভবনে ডাকসু নেতা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিনদের সঙ্গে এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

উপ-উপাচার্য বলেন, 'আমাদের শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক দাবির প্রতি আমাদের সমর্থন ও সহানুভূতি রয়েছে। শিক্ষার্থীদের প্রশাসনিক ভবনে তালা ও ক্লাস পরীক্ষা বর্জন আমাদের অনেক কার্যক্রম ব্যাহত করেছে। উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে আমরা ডাকসু নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করেছি। তারা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলবেন এবং শিক্ষার্থীরা জানেন না এমন কিছু তথ্য প্রদান করবেন। আশা করি, শিক্ষার্থীরা ক্লাসে ফিরবে এবং বাকি সিদ্ধান্ত উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান চীন থেকে ফিরলে নেওয়া হবে।'

এক প্রশ্নের জবাবে মুহাম্মদ সামাদ বলেন, 'অধিভুক্তি বাতিলের এখতিয়ার আমাদের নেই, এটা সম্পূর্ণ সরকারের সিদ্ধান্ত। আমরা যেটা পারি সেটা হচ্ছে, এটাকে নতুন করে সাজাতে এবং শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে। যাতে করে আমাদের শিক্ষার্থীদের কোনো স্বাভাবিক কাজে ব্যাঘাত না ঘটে।'

এ সময় ছাত্র নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর, জিএস গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসাইন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন প্রমুখ।

শিক্ষকদের মধ্যে ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয় কোষাধ্যক্ষ ড কামাল উদ্দিন, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন সাদেকা হালিম, কলা অনুষদের ডিন আবু দেলোয়ার মুহাম্মদ, ডাকসুর কোষাধ্যক্ষ ও সাত কলেজের সমন্বয়ক অধ্যাপক শিবলী রুবায়তুল ইসলাম প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র