Barta24

মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

অবশেষে ঝিনাইদহ রুটে ইবির দ্বিতল বাস চালু

অবশেষে ঝিনাইদহ রুটে ইবির দ্বিতল বাস চালু
ঝিনাইদহ রুটে ইবির দ্বিতল বাস চালু / ছবি: বার্তা২৪
ইবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ঝিনাইদহ শহরে অবস্থানকারী শিক্ষার্থীদের দীর্ঘ দিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ঝিনাইদহ রুটে ডাবল ডেকার (দ্বিতল বাস) চালু করেছে ইসলামী বিশ^বিদ্যালয় (ইবি) পরিবহন প্রশাসন।

বুধবার (৬ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবনের সামনে ঝিনাইদহ রুটে একটি ডাবল ডেকার বাসের উদ্বোধন করেন উপ-উপচার্য অধ্যাপক ড. এম শাহিনুর রহমান।

বিশ্ববিদ্যালয় পরিবহন দফতর সূত্রে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন পুলে বর্তমানে একটি নিজস্ব ডাবল ডেকার এবং বিআরটিসি থেকে চুক্তিভিত্তক তিনটি ডাবল ডেকার আছে। গাড়িগুলো দীর্ঘদিন ধরে শুধুমাত্র কুষ্টিয়ার বিভিন্ন রুটে যাতায়াত করছে।

শুরু থেকেই ঝিনাইদহ শহরের অবস্থানকারী শিক্ষার্থীরা ওই রুটে একটি ডাবল ডেকার দেওয়ার জন্য দাবি জানিয়ে আসছিল। তবে বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতার কারণে তা সম্ভব হয়নি। এরপর বিষয়টি নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ঝিনাইদহ মালিক সমিতি এবং রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে আলোচনার পর বুধবার (৬ মার্চ) ওই রুটে একটি ডাবল ডেকার চালু করা হয়।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম শাহিনুর রহমান এবং ঝিনাইদহ পৌরসভা মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু ডাবল ডেকার বাসটির উদ্বোধন করেন।

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলাম, ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মাহবুবর রহমান, ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ, প্রক্টর (ভারপ্রাপ্ত) সহযোগী অধ্যাপক ড. আনিছুর রহমান, কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি শামসুল ইসলাম জোহা প্রমুখ।

এদিকে দীর্ঘ প্রতিক্ষার পর ঝিনাইদহ রুটে ডাবল ডেকার বাস চালু হওয়ায় আনন্দ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে ঝিনাইদহ অবস্থানকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের শিক্ষার্থী শাহনাজ ফারদিন বলেন, ‘অনেক দিনের কাঙ্ক্ষিত বস্তু পেয়ে মানুষ যেমন খুশি হয়, তেমনি ডাবল ডেকার পেয়ে আমরা ঝিনাইদহ বাসীও অনেক আনন্দিত। ডাবল ডেকার একসঙ্গে দুটি বাসের কাজ করে। তাই এখন থেকে সহজেই বাসে সিট পাওয়া যাবে।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. রেজওয়ানুল ইসলাম বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রক্ষিতে ঝিনাইদহ রুটে একটি ডাবল ডেকার চালু করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন খাত যাতে আরও বেশি স্বনির্ভর হতে পারে সে জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থেকে ইতোমধ্যে কিছু পরিবহন ক্রয়ের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

আপনার মতামত লিখুন :

প্রজ্ঞাপন না দেওয়া পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা

প্রজ্ঞাপন না দেওয়া পর্যন্ত আন্দোলনের ঘোষণা
ঢাবির ঐতিহাসিক অপরাজেয় বাংলা ভাস্কর্য, ছবি: সংগৃহীত

অধিভুক্ত সাত কলেজ বাতিলের দাবিতে গত দু’দিন ‘তালা লাগাও কর্মসূচি’ পালন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) শিক্ষার্থীদের একাংশ। গুরুত্বপূর্ণ একাডেমিক ভবনের গেট এবং প্রশাসনিক ভবনে তালা লাগিয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও অসহযোগ আন্দোলন করেন তারা।

সোমবার (২২ জুলাই) শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) পূর্ণ সমর্থন দেয়। শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহবান জানান ডাকসু নেতারা।

কিন্তু রাতে নিউমার্কেট এলাকায় এক ঢাবি শিক্ষার্থীকে মারধরের পর এই আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সাত কলেজ অন্তর্ভুক্তির বিরোধীরা।

রাতেই আন্দোলনকারীরা এক প্রেসবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। এতে ঢাবি শিক্ষার্থীর ওপর হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

DU Clash

আন্দোলনের মুখপাত্র শাকিল মিয়া স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বারবার শিক্ষার্থীদের মিথ্যা আশ্বাস ও ঘৃণ্য প্রতারণা করে আসছে। এতে শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের ওপর আস্থা হারিয়ে ফেলছে।

‘এমতাবস্থায় প্রশাসন সাত কলেজের অধিভুক্তি বাতিল করে লিখিত প্রজ্ঞাপন জারি না করা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব শিক্ষার্থী ক্লাস-পরীক্ষা স্থগিত রেখে অসহযোগ আন্দোলন পালন করবে। লাগাও তালা, বাঁচাও ঢাবি, এই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে এবং ক্যাম্পাসজুড়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালিত হবে।’

আরও পড়ুন: ঢাবি শিক্ষার্থীকে নিউমার্কেট এলাকায় মারধর

ঢাবি শিক্ষার্থীকে নিউমার্কেট এলাকায় মারধর

ঢাবি শিক্ষার্থীকে নিউমার্কেট এলাকায় মারধর
মারধরের শিকার আহত ঢাবি শিক্ষার্থী, ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থীকে মারধর করা হয়েছে। ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীরা তাকে পিটিয়েছে বলে অভিযোগ ভুক্তভোগীর।

মারধরের শিকার শিক্ষার্থীর নাম- হাসান চৌধুরী পিয়াল। তিনি ঢাবির ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগে মাস্টার্সে অধ্যয়নরত। তিনি হাজী মুহম্মদ মুহসীন হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

আহত শিক্ষার্থীর বরাত দিয়ে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক ড একে এম গোলাম রাব্বানী জানান, সোমবার (২২ জুলাই) রাত ৮টার দিকে কোচিং থেকে হলে ফেরার পথে নিউমার্কেট এলাকায় ঢাকা কলেজের কয়েকজন শিক্ষার্থী তার পথ রোধ করেন। এসময় কিছু বুঝে ওঠার আগেই রড ও লাঠি দিয়ে পিয়ালের ওপর চড়াও হন তারা। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তিনি এখন  হলে রয়েছেন।

এদিকে, কোনো পূর্ব শত্রুতার জেরে নয়, বরং ঢাবির শিক্ষার্থী হওয়ায় পিয়ালের ওপর হামলা হয়েছে বলে দাবি তার বন্ধুদের।

এ বিষয়ে সাত কলেজ বাতিল আন্দোলনের মুখপাত্র শাকিল মিয়া বলেন, শুধু ঢাবির শিক্ষার্থী হওয়ায় পিয়ালের ওপর হামলা হয়েছে। হামলাকারীদের সাহস দেখে বিষ্মিত হচ্ছি। আমরা আন্দোলনের মাধ্যমে তার জবাব দেব। আমাদের আন্দোলন চলমান থাকবে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র