Barta24

সোমবার, ২৬ আগস্ট ২০১৯, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

English

বিসিএস-এর ফরম পূরণে প্রতারণায় ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বিসিএস-এর ফরম পূরণে প্রতারণায় ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা
ফরম পূরণে প্রতারণা শিকার আবেদনকারীদের হাতে তাদের প্রাপ্য টাকা তুলে দিচ্ছেন রাবি প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান (বামে) /ছবি: বার্তা২৪
রাবি করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

৪০তম বিসিএস পরীক্ষার ফরম পূরণে প্রতারণার ঘটনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) পরিবহন মার্কেটের স্পন্দন কম্পিউটার দোকানের মালিক মোস্তাক আহমেদ মামুনসহ (৩০) তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

শনিবার (১৭ নভেম্বর) বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী আ. মমিন বাদী হয়ে নগরীর মতিহার থানায় এ মামলা দায়ের করেন।

মামলার অন্য দুই আসামি হলেন মোস্তাকের সহযোগী রফিকুল ইসলাম আকাশ (১৯) ও আরিফ হোসেন (২৪)। তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন মার্কেটের ভাই ভাই কম্পিউটার দোকানের মালিক।

মামলার এজাহারে মমিন উল্লেখ করেন, ‘আমি গত ৩১ অক্টোবর মোস্তাকের দোকান থেকে বিসিএস পরীক্ষার ফরম পূরণ করি। পরে গত বৃহস্পতিবার আমার ইউজার আইডি আর পাসওয়ার্ড দিয়ে পিএসসি’র ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে দেখতে পাই, আমি সুস্থ্য স্বাভাবিক হওয়ার পরও আমাকে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হিসেবে দেখানো হয়েছে। ঐদিনই আমি তার দোকানে যেয়ে জানতে পারি, সে আরও দুই শতাধিক শিক্ষার্থীর ফরম পূরণে প্রতারণা করে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে ৬০০ করে টাকা আত্মসাৎ করেছেন।’

মতিহার থানার দায়িত্বরত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদাত হোসেন খান বার্তা২৪কে বলেন, ‘মামলার আসামিদের আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।’

এদিকে মোস্তাকের কাছ থেকে আত্মসাৎকৃত টাকা উদ্ধার করে ভুক্তভোগীদের ফিরিয়ে দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান।

অধ্যাপক লুৎফর রহমান বার্তা২৪কে বলেন, ‘মোস্তাকের কাছ থেকে এক লাখ ৪৫ হাজার টাকা উদ্ধার করেছি। এখন পর্যন্ত ২১৫ জনকে টাকা ফিরিয়ে দিয়েছি।’

বিসিএস ফরম পূরণের জন্য পিএসসি থেকে সাধারণ শিক্ষার্থীদের জন্য আবেদন ফি ৭০০ টাকা এবং প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য ১০০ টাকা। মোস্তাক প্রায় ৩০০ সাধারণ শিক্ষার্থীর অজান্তে তাদেরকে প্রতিবন্ধী উল্লেখ করে ফরম পূরণ করে। পরে গত বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ঐ তিনজনকে আটক করে পুলিশে দেয়।

আপনার মতামত লিখুন :

ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে পৃথিবীকে স্বর্গ বানাতে হবে: শোভন

ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গিতে পৃথিবীকে স্বর্গ বানাতে হবে: শোভন
রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন, ছবি: সংগৃহীত

প্রতিবন্ধীদের উদ্দেশ্য করে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধুর নাতনি সায়েমা ওয়াজেদ পুতুলও আপনাদের মতো মানুষদের নিয়ে কাজ করেন। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্নে আপনাদেরও অংশীদার হতে হবে। আপনাদের অন্যরকম দৃষ্টিভঙ্গিতে পৃথিবীটা স্বর্গ বানাতে হবে। মুজিবের আর্দশকে ধারণ করে আত্মবিশ্বাস নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতে হবে।’

রোববার (২৫ আগস্ট) আরসি মজুমদার মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রতিবন্ধী শিক্ষা ও পুনর্বাসন সংস্থা এ আলোচনা সভার আয়োজন করে।

শোভন বলেন, ‘কৃষক-শ্রমিকসহ শ্রমজীবী মানুষের কথা ভেবে ১৯৭৫ সালে বাকশাল কায়েম করা হয়েছিল। একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে পুনর্গঠন করতেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।’

সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহদী আল মুহতাসিম নিবিড় বলেন, ‘প্রতিবন্ধীদের প্রতিবন্ধকতা অদম্য ইচ্ছাশক্তি ও প্রতিভা বিকশিত করার মাধ্যমেই দূর করতে হবে। ১৯৭৪ সালে ৪৭টি বিদ্যালয়ের সমন্বয়ে পড়াশোনা চালুর মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুই বাংলাদেশে প্রথম দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের পড়াশোনার সুযোগ করে দিয়েছিলেন। বর্তমানে দেশে প্রায় ১০ রাখ প্রতিবন্ধী মাসিক ৭৫০ টাকা হারে ভাতা পেয়ে থাকে, কিন্তু যৌক্তিক হারে তা বৃদ্ধি করা উচিত। বঙ্গবন্ধু আমাদের যে ত্যাগের শিক্ষা দিয়ে গেছে তা অনুসরণ করে অন্যদের জন্য আমাদের কাজ করতে হবে।’

প্রতিবন্ধী শিক্ষা ও পুনর্বাসন সংস্থার সভাপতি আবুল হোসেন বলেন, ‘আমরা একজন স্বচ্ছ মানুষের চেয়ে কম নই। ইচ্ছা থাকলেই আমরা সব কিছু করতে পারি।’

এ সময় তিনি প্রতিবন্ধীদের ভাতা তিন হাজার টাকা করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন জানান।

আবুল হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন- ইম্প্যাক্ট ফাউন্ডেশন ও বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি মনসুর আহমেদ চৌধুরী, চাকরি প্রত্যাশী দৃষ্টি প্রতিবন্ধী গ্র্যাজুয়েট পরিষদের আহ্বায়ক মো. আলী হোসেন প্রমুখ।

জাবির উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় প্রতিবাদ

জাবির উন্নয়ন প্রকল্পের টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় প্রতিবাদ
বিক্ষোভ মিছিল করেছে জাবির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

পূর্বঘোষিত তিন দফার ছয় দাবি আদায়ের লক্ষ্যে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

রোববার (২৫ আগস্ট) দুপুর ২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে ক্যাম্পাসের কয়েকটি ভবন ও প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মুরাদ চত্বরে সমাবেশের মধ্যে দিয়ে শেষ হয়।

মিছিল শেষে সমাবেশে বক্তারা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর হলের পাশের তিনটি হল স্থানান্তর করে নতুন জায়গায় দ্রুত কাজ শুরু করা, উপাচার্যের বিরুদ্ধে প্রকল্পের টাকা দূর্নীতির ব্যাপারে বিচার বিভাগীয় তদন্ত নিশ্চিত করা এবং টেন্ডার ছিনতাইকারদীর বিচারের আওতায় আনাসহ প্রকল্পের সকল ব্যয়ের হিসেব জনসম্মুখে প্রকাশ করার দাবি জানান।

এছাড়া উপাচার্যের বিরুদ্ধে উত্থাপিত প্রকল্পের দুর্নীতির অভিযোগের ব্যাপারে প্রশ্ন করলে সাংবাদিক লাঞ্ছনার ঘটনায় নিন্দা জানান বক্তারা।

আরও পড়ুন: জাবিতে সাংবাদিক লাঞ্ছনার ঘটনায় নিন্দা

উপাচার্যসহ তার পরিবার প্রকল্পের দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ করে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সাধারন সম্পাদক মোহাম্মাদ দিদার বলেন, ‘আমরা পত্রিকার মাধ্যমে জানতে পেরেছি এই দুর্নীতির সঙ্গে স্বয়ং উপাচার্য জড়িত। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় বারবার নিপীড়নের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে। এবার উপাচার্য ও তার পরিবার যে জনসাধারণের টাকা লুটপাট করতে নেমেছেন তা বন্ধ করতে আমরাও রুখে দাঁড়াব।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Aug/25/1566732339061.jpg

সমাবেশে জাহাঙ্গীরনগর সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি আশিকুর রহমান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের মাথা হলো উপাচার্য। আমরা লক্ষ্য করছি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাথায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধানের বিরুদ্ধে অর্থ কেলেঙ্কারির অভিযোগ উঠেছে। আমরা এটার বিচার বিভাগীয় তদন্তের দাবি করছি। সাংবাদিকরা যখন অর্থ কেলেঙ্কারির তথ্য তুলে ধরলেন তখন উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করলাম উপাচার্য সাংবাদিকদের কণ্ঠ রোধ করতে চেয়েছেন। আমরা স্পষ্ট করে বলে দিতে চাই হুমকি ধামকি দিয়ে আপনারা কারও কণ্ঠ রোধ করতে পারবেন না।’

আরও পড়ুন: ৬ দাবি আদায়ে আন্দোলনে জাবি শিক্ষার্থীরা

নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, ‘ছাত্রছাত্রীদের কাজ চোর ধরে বেড়ানো না। তেমনি শিক্ষকদের কাজ চুরিতে সহযোগিতা করা না। শুরু থেকে এই মাস্টারপ্ল্যান নামক জিনিসটা নিয়ে যে লুকোচুরি চলছে এবং নানা পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে যে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সাধারণের মতকে উপেক্ষা করে অস্বচ্ছ ব্যবস্থার মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিপুল পরিমান টাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়ে আসা এবং খরচ করার পায়তারা করছে।’

প্রকল্পের টাকা হাতিয়ে নেওয়ার জন্য নতুন করে ছাত্র শৃঙ্খলা বিধি যুক্ত করা হয়েছে অভিযোগ করে বাংলা বিভাগের অধ্যাপক শামীমা সুলতানা বলেন,‘আমরা উন্নয়নের বিরুদ্ধে নয়। আমরা উন্নয়ন চাই তবে সেটা হোক পরিকল্পিত উন্নয়ন। কিন্তু আমরা দেখছি তড়িঘড়ি করে উন্নয়ন বাস্তবায়ন করতে যেয়ে লুটপাট শুরু করে দেওয়া হয়েছে।’

সমাবেশে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন দর্শন বিভাগের অধ্যাপক রায়হান রাইন, বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন জাবি সংসদের সদস্য রাকিবুল রনি, বাংলাদেশ সাধারন ছাত্র অধিকার ও সংরক্ষণ পরিষদের জাবি শাখার সমন্বয়ক আবু সাইদ প্রমুখ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র