Alexa

ভারতে বায়ুদূষণে ১২ লাখের মৃত্যু, মানতে নারাজ মন্ত্রী

ভারতে বায়ুদূষণে ১২ লাখের মৃত্যু, মানতে নারাজ মন্ত্রী

ভারতে বায়ুদূষণ, ছবি: সংগৃহীত

ভারতে বায়ুদূষণের কারণে শুধু ২০১৭ সালেই ১২ লাখ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এমনই চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট প্রকাশ করেছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা গ্রিনপিস।

এর আগে চলতি বছরের ৫ ফেব্রুয়ারি জাকার্তায় বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত শহরগুলোর তালিকা প্রকাশ করা হয়েছিল। তাতে বিশ্বের দূষণ মানচিত্রে ভারতকেই প্রথমস্থান দেওয়া হয়। রিপোর্টে বলা হয়েছিল, বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত ১০টি শহরের মধ্যে সাতটিই রয়েছে ভারতে। সেখানে দিল্লিকে বিশ্বের দূষিত শহরগুলির তালিকার একেবারে শীর্ষে রাখা হয়েছিল।

এরপর মৃত্যুর রিপোর্ট সামনে এল। যদিও, ২০১৭ সালেই ১২ লাখ মানুষের মৃত্যুর রিপোর্ট মানতে রাজি নন কেন্দ্রীয় পরিবেশমন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। সংবাদসংস্থাকে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি ওই রিপোর্টের গ্রহণ যোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন। তার মতে, মানুষের মধ্যে উদ্বেগ ছড়াতেই এই ধরনের রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে।

চলতি সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে এবারও দিল্লির চাঁদনি চক কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী হয়েছেন হর্ষ বর্ধন। দিল্লিতে বায়ুদূষণের মাত্রা কমাতে আপ (আম আদমি পার্টি) সরকার যে ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছে, সেটিকে সমর্থন জানিয়েই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বলেছেন, 'বায়ুদূষণ কমাতে আমরা সার্বিকভাবে চেষ্টা করছি। ঠিকই কিন্তু রিপোর্টে যে মৃত্যুর পরিসংখ্যান দেওয়া হয়েছে, তার সঙ্গে আমি একমত নই। মানছি বায়ুদূষণ শরীরের উপর প্রভাব ফেলে। তবে ২০১৭ সালে, ভারতে লক্ষাধিক মানুষের মৃত্যু হয়েছে বলা এবং উদ্বেগের পরিবেশ সৃষ্টি করার সঙ্গে আমি একমত হতে পারছি না।'

তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পরিবেশ নিয়ে কাজ করা সংস্থা গ্রিনপিস তাদের রিপোর্টে জানিয়েছে, ২০১৭ সালে ভারতে প্রায় ১২ লাখ মানুষের দূষণের কারণে মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে এগিয়ে দিল্লি। তবে মন্ত্রী হর্ষ বর্ধনের দাবি, দিল্লির সরকারের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারও জোর কদমে প্রচার অভিযান চালিয়ে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করছে।

মন্ত্রী তথা বিজেপি প্রার্থী বলেন, 'কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের ৬০টি দলকে পাঠিয়ে দিল্লির বায়ুদূষণের পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। এছাড়াও অন্তত দুবার কেন্দ্র সরকার উদ্যোগে লাগাতার ১৫ থেকে ২০ দিন দিল্লির বিভিন্ন প্রান্তে ঘুরে মানুষকে সচেতন করার কাজ চলছে।

আপনার মতামত লিখুন :