Alexa

দ্বিতীয় দফায় পশ্চিমবঙ্গের তিন জেলায় ভোট

দ্বিতীয় দফায় পশ্চিমবঙ্গের তিন জেলায় ভোট

ছবি: সংগৃহীত

ভারতের পশ্চিমবঙ্গে চলছে দ্বিতীয় দফার লোকসভা নির্বাচন। রাজ্যে এই পর্বে দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি এবং রায়গঞ্জ কেন্দ্রে বৃহস্পতিবার (১৮ এপ্রিল) চলছে ভোট গ্রহণ। সকাল ৭টা থেকে শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ চলবে বিকাল ৫টা পর্যন্ত।  

২০১৪ লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলের নিরিখে জলপাইগুড়ি তৃণমূলের, দার্জিলিং বিজেপির এবং রায়গঞ্জ সিপিএমের দখলে ছিল। এই তিন কেন্দ্রের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নজর থাকবে দার্জিলিং কেন্দ্রের দিকেই। কারণ সাম্প্রতিককালে পাহাড়ে অশান্তি এবং প্রথমবারা বিমল গুরুংকে ছাড়া পাহাড়ে ভোট হচ্ছে। এই বিমল গুরুংই এক সময় মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সাথে ছিলেন এবং এক সময় যাকে বলা হতো পাহাড়ের সুপ্রিমো।

বিমলপন্থীরা এবার সমর্থন করছে বিজেপিকে। যদিও গুরুং প্রশাসনের ভয়ে পাহাড়ে নেই। পাশাপাশি পাহাড় থেকে বিনয় তামাংপন্থী মোর্চা নেতা অমর সিং রাই এবার তৃণমূলের টিকিটে লড়ছেন। দার্জিলিং দখলে তৃণমূল মরিয়া।

দার্জিলিং আসনে মোট ১৬ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারন হবে। প্রার্থীতালিকা দীর্ঘ হওয়ায় দার্জিলিংয়ে এক হাজার ৮৯৯টি বুথে দু’টি করে ইভিএম থাকবে। পাহাড় ও সমতল মিলিয়ে এই কেন্দ্রে মোট ভোটার ১৬ লাখ ৫৬৪ জন। মোট ভোটকর্মী ৭০৬৫ জন। এর মধ্যে মহিলা ভোটকর্মী ৩০০ জন। এই কেন্দ্রটিতে ৭৭০০ কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী থাকছে। এখানকার ৮০ শতাংশ বুথকে স্পর্শকাতর হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

বছর দু’য়েক আগে পাহাড়ের উত্তপ্ত পরিবেশের পরিপ্রেক্ষিতে এই কেন্দ্রের উপর নির্বাচন কমিশনের আলাদা নজর রয়েছে। তবে বিমল গুরুং এলাকায় ঢুকতে না পারায় বিজেপি এই কেন্দ্র কতটা দখলে রাখতে পারে, সেটাই দেখার। ভৌগোলিক কারণেও দার্জিলিংয়ের উপর বিশেষ নজর রয়েছে নির্বাচনে কমিশনের।

এর পাশ্বর্বর্তী জেলা জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্রে ১ হাজার ৮৬৮টি বুথে ভোটগ্রহণ হবে। এর মধ্যে ৩৫৪টি স্পর্শকাতর বুথ। মোট ১২ জন প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ হবে। এই কেন্দ্রে মোট ১৭ লাখ ৩১ হাজার ৮৩৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এই কেন্দ্রে রয়েছে মোট চার হাজার ৪০০ কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী।

তবে সব থেকে বেশি নির্বাচনী উত্তাপ রয়েছে রায়গঞ্জে। এই কেন্দ্রে তৃণমূল, সিপিএম, কংগ্রেস এবং বিজেপির মধ্যে চতুরমুখী লড়াই হচ্ছে। সিপিএমের মহম্মদ সেলিম তার আসন ধরে রাখতে যেমন মরিয়া, তেমনি কংগ্রেসের দীপা দাশমুন্সি আসন পুনরুদ্ধার করতে এক ইঞ্চিও জমি ছাড়তে রাজি নন। সে কারণেই এই নির্বাচনে বাম কংগ্রেসের জোট হয়নি। একে অপরের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে নেমেছে। এরই মধ্যে তৃণমূল আসনটি নিজেদের দখলে আনতে কোমর বেঁধে নেমেছে তারাও। তাদের প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়াল। তার সমর্থন করেই বাংলাদেশি তারকা ফেরদৌস আহমেদ সমস্যায় পড়েন। বিজেপির প্রার্থী দেবশ্রী চৌধুরী। চারটি দলের রাজনৈতিক লড়াইয়ে জমজমাট রায়গঞ্জ।

রায়গঞ্জ কেন্দ্রে মোট প্রার্থী ১৪ জন। মোট ভোটার ১৫ লাখ ৯৯ হাজার ৯৪৮ জন। সাত হাজার ৭০৯ জন ভোটকর্মী ১৬২৩টি বুথে ভোটগ্রহণের কাজে নিযুক্ত রয়েছে। রয়েছে ১৭টি মহিলা পরিচালিত ভোটগ্রহণ কেন্দ্র। থাকছে দুই হাজার ১২৯টি ইভিএম। থাকছে মোট ছয় হাজার ৪০০ কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনী। এছাড়া তিন কেন্দ্রে ওয়েবকাস্টিং, সিসিটিভি, ভিডিওগ্রাফির ব্যবস্থা থাকছে। আছে মাইক্রো অবজারভার।

আপনার মতামত লিখুন :