Alexa

স্ত্রীর নামের সঙ্গে স্বামীর নাম-পদবি যোগ কতটুকু যৌক্তিক?

স্ত্রীর নামের সঙ্গে স্বামীর নাম-পদবি যোগ কতটুকু যৌক্তিক?

স্ত্রীর নামের সঙ্গে স্বামীর নাম-পদবি যোগ কতটুকু যৌক্তিক, ছবি: সংগৃহীত

বিবাহিত নারীর জন্য স্বামীর নাম-পদবি গ্রহণ করা বাধ্যতামূলক না হলেও অনেক নারী তা করেন। এটাকে অনেকে সাধারণ নিয়মরক্ষা বলেই মনে করেন। বিষয়টি নিয়ে থুব একটা মাথা ঘামাতে দেখা যায় না। অনেকে এটাকে স্বামীর প্রতি অভূতপূর্ব ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ বলেও মনে করেন।

বিয়ের পর নারীদের কেন স্বামীর নাম-পদবি নিতে হবে, তার কোনো গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা পাওয়া যায় না। তবে স্ত্রীরা যে স্বামীর অধীনস্থ, তা বোঝানোর জন্যই সম্ভবত এ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। এটা পাশ্চাত্য সংস্কৃতি।

স্ত্রীর নামের শুরুতে কিংবা শেষে স্বামীর নাম-পদবি ব্যবহার করাকে ইসলাম সমর্থন করে না। ইসলাম মতে এটা একটি অযৌক্তিক ও হারাম কাজ। যা কবিরা গোনাহ। ইসলাম ধর্মে এর কোনো গুরুত্ব থাকলে, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর স্ত্রীরা নবীর নামের অংশ তাদের নামের সঙ্গে যোগ করতেন। কিন্তু তারা তা করেননি। বরং রাসূলের স্ত্রী হয়েও তারা পরিচিত ছিলেন তাদের বাবার নাম-পদবিতে।

এ বিষয়ে ইসলামি স্কলাররা বলেন, জন্মদাতা পিতা ছাড়া অন্য কারো সঙ্গে পরিচয় সম্বন্ধ করা নিষেধ করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে কোরআনে কারিমে আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘তোমাদের পালক পুত্রদেরকেও তোমাদের প্রকৃত পুত্র করেননি। এসব তো হচ্ছে এমন ধরনের কথা, যা তোমরা সম্মুখে উচ্চারণ করো, কিন্তু আল্লাহ এমন কথা বলেন যা প্রকৃত সত্য এবং তিনিই সঠিক পথের দিকে পরিচালিত করেন।’ –সূরা আল আহজাব: ৪

ইসলামে একমাত্র পিতার সঙ্গেই পরিচয় নির্দিষ্ট করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘পালক পুত্রদেরকে তাদের পিতার সঙ্গে সম্পর্কিত করে ডাকো। এটি আল্লাহর কাছে বেশি ন্যায়সংগত কথা।’

কারও পিতৃ পরিচয় জানা না গেলে এরূপ ক্ষেত্রেও কোনো ব্যক্তির সঙ্গে তার পিতৃ-সম্পর্ক জুড়ে দেওয়া ঠিক নয়। এ বিষয়ে আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আর যদি তোমরা তাদের পিতৃ পরিচয় না জানো, তাহলে তারা তোমাদের দ্বীনি ভাই এবং বন্ধু।’ –সূরা আল আহজাব: ৫

স্বেচ্ছায় পিতা ছাড়া অন্য কাউকে পিতৃত্বের স্থলে সম্বোধনও নিষেধ। হজরত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, ‘যে ব্যক্তি নিজেকে আপন পিতা ছাড়া অন্য কারও পুত্র বলে দাবি করে, অথচ সে জানে ওই ব্যক্তি তার পিতা নয়, তার জন্য জান্নাত হারাম।’ –সহিহ বোখারি ও মুসলিম

কোরআনে কারিমে নারীদের পরিচয় পিতার দিকে করার শিক্ষা দেওয়া হয়েছে। ইরশাদ হয়েছে, ‘ইমরানের কন্যা মরিয়ম যে তার সতিত্বকে হেফাজত করেছিল।’ –সূরা আত তাহরিম: ১২

স্বামীদের নামে কাউকে উল্লেখ করলে সে ক্ষেত্রে নামহীন কেবল স্ত্রীর সর্ম্পকটি দিয়ে পরিচয় দেওয়ার শিক্ষা দেওয়া হয়েছে। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘আল্লাহ কাফেরদের ব্যাপারে নূহ এবং লুতের স্ত্রীদেরকে উদাহরণ হিসেবে পেশ করেছেন।’

কোরআনে কারিমে আরও ইরশাদ হয়েছে, ‘আর ঈমানদারদের ব্যাপারে ফেরাউনের স্ত্রীর উদাহরণ পেশ করছেন।’ –সূরা আত তাহরিম: ১০-১১

বর্তমানে নারীর নামের শুরুতে অথবা শেষাংশে স্বামীর নামজুড়ে দেওয়ার একটি রীতি শুরু হয়েছে। এরূপ রীতি সরকারের কোনো পলিসির কারণে চালু হলে, ওই সব দেশে বসবাসকারী মুসলিমদের ক্ষেত্রে কেবল বাধ্য হলেই তা মেনে চলা বৈধ। অন্যথায় নয়। আল্লাহতায়ালা বলেন, ‘যেসব জিনিসের ব্যবহার আল্লাহ হারাম করে দিয়েছেন সেগুলোর বিশদ বিবরণ তিনি তোমাদের জানিয়ে দিয়েছেন, তবে তোমরা নিরূপায় অবস্থা ছাড়া।’ –সূরা আনআম: ১১৯

কোনো মুসলিম নারীর জন্য শুধু ফ্যাশন করে নামের শেষে স্বামীর নামের অংশ বিশেষ যোগ করা কোনোভাবেই বৈধ নয়। ব্যক্তিত্বসম্পন্ন এমন অনেক নারী আছেন, যারা এটাকে পরিবার কর্তৃক প্রদত্ত নামের বিকৃতি হিসেবে দেখেন। এমন অনেক নারী আছেন যারা এটাকে অবহেলা ও অমর্যাদা বলে বিবেচনা করেন।

আরেকটি কথা, বিয়ের পর অনেকে নারী স্বামীর নামের অংশ নিজের নামের সঙ্গে জুড়ে দিয়ে পরিচিত হন, পরে আবার ওই স্বামীর সঙ্গে তার বিচ্ছেদ হয়ে যায়। বিচ্ছেদ হওয়ার পর সে আবার পরিচয়হীন হয়ে যান। কিন্তু বাবার নামের সঙ্গে এমন কিছু ঘটার সম্ভাবনা নাই।

সুতরাং বিয়ের আগে এক পদবি, বিয়ের পরে অন্য পদবি, বিবাহবিচ্ছিন্ন হলে আবার বাবার পদবি, আবার বিয়ে হলে আরেক নতুন পদবি। এভাবে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন নাম-পদবিতে পরিচিত হওয়ার ঝামেলা থাকে না, ইসলামের বিধানমতে বাবা নামের সঙ্গে নাম যুক্ত করার ফলে। বিষয়টি ব্যক্তিত্ববান নারীরা ভেবে দেখবে বলে আমাদের বিশ্বাস।

আপনার মতামত লিখুন :