Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

৯০ কেজি ওজনের ব্যক্তির নিচে পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু

৯০ কেজি ওজনের ব্যক্তির নিচে পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু
প্রতীকী ছবি: সংগৃহীত
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

নিজের বাড়ির সামনে ঘুমিয়ে ছিলেন ষাটোর্ধ্ব মদন লাল। হঠাৎ পাশের ভবন থেকে তার ওপর পড়েন ৯০ কেজি ওজনের এক ব্যক্তি। আর এতেই মৃত্যু হয় মদন লালের। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের দক্ষিণ দিল্লিতে।

দেশটির সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, গত শনিবার (২২ জুন) দক্ষিণ দিল্লির ললিতা কলোনির বাসিন্দা মদন লাল তার বাড়ির সামনে একটি রিকশা ভ্যানে ঘুমিয়ে ছিলেন। পাশের বাড়ির তিনতলা থেকে তার উপর পড়ে যান ৯০ কেজি ওজনের রবিন্দর। এতে মৃত্যু ঘটে মদন লালের।

দিল্লি পুলিশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মদন লাল ঘুমিয়ে থাকায় তার শরীরে ক্ষতির পরিমাণ বেশি হয়েছে। তার ঘাড় ভেঙে গেছে। এছাড়া শরীরের ভেতরেও আঘাত লেগেছে তার।

এ ঘটনায় রবিন্দর নিজেও আঘাত পেয়েছেন। তিনতলা থেকে নিচে পড়ায় তার শরীরের কিছু স্থানেও আঘাত লেগেছে। এছাড়া তার চোখের আশেপাশে কেটে গেছে।

এ ঘটনার পর রবিন্দর পালিয়ে যান। তবে পুলিশের কাছে ধরা পড়ার পর তিনি জানান, ঐ রাতে ছাদের উপর তিনি মোবাইলে কথা বলছিলেন। ছাদের দেয়ালে বসে কথা বলতে বলতে হঠাৎ দুর্ঘটনাবশত তিনি নিচে পড়ে যান।

ঘটনার কিছুক্ষণ আগে মদন লাল তার নাতনির সঙ্গে খেলা করছিলেন। পরে শিশুটি ঘুমিয়ে পড়ায় তিনি তাকে বিছানায় শুইয়ে দিয়ে বাইরে যান। রাত আনুমানিক পৌনে ১০টার দিকে তিনি তার রিকশা ভ্যানে ঘুমিয়ে পড়েন।

মদন লালের প্রতিবেশী নিখাত টাইমস অব ইন্ডিয়াকে জানান, তিনি অনেক জোরে শব্দ শুনতে পান। মনে করেছিলেন মদন লালের উপর কোনো দেয়াল ভেঙে পড়েছে। কিন্তু তিনি দেখতে পান, একটা মোটা মানুষ, যিনি হয়তো মদ্যপ ছিলেন। তিনি নড়াচড়া করতে পারছিলেন না।

তিনি বলেন, ‘আমরা কোনো রকম মদন লালকে সেখান থেকে বের করে পাশের হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

আপনার মতামত লিখুন :

এক ফ্যান এক লাইটের বিদ্যুৎ বিল ১২৮ কোটি

এক ফ্যান এক লাইটের বিদ্যুৎ বিল ১২৮ কোটি
বিদ্যুৎ বিল

ভারতের উত্তর প্রদেশের হাপুর শহরের কাছে চামরি নামে একটি গ্রামের এক গৃহস্থের বাড়িতে ১২৮ কোটিরও বেশি রুপির বিদ্যুৎ বিল এসেছে। বাড়িটির বাসিন্দা এক দম্পতি, যাদের ঘরে কেবল লাইট আর ফ্যান চলে।

শামীম নামে ওই বাড়ির কর্তা বিল সংশোধনের জন্য বিদ্যুৎ অফিসে বার বার ধর্না দিয়েও এর কোন সুরাহা করতে পারেননি। বিল পরিশোধ না করায় তার বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে।

পুনরায় বিদ্যুৎ সংযোগের দাবি নিয়ে বিদ্যুৎ অফিসে গেলে শামীমকে কর্মকর্তারা বলেছেন, বিল পরিশোধ করলেই কেবল তার বাড়ির বিদ্যুৎ সংযোগ চালু করে দেওয়া হবে।

বাড়িটির ২ কিলোওয়াটের বিদ্যুৎ সংযোগের বিলের কাগজে ছাপা বিলের মোট পরিমাণ ১২৮ কোটি ৪৫ লাখ ৯৫ হাজার ৪৪৪ রুপি। এই উদ্ভট পরিমাণ সংশোধন করতে গিয়ে বিদ্যুৎ অফিসের টেবিলে টেবিলে ঘুরেছেন বলে জানিয়েছেন শামীম।
https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563676901455.jpg
ভারতীয় সংবাদ সংস্থা এএনআই’কে তিনি বলেন, কেউ আমাদের কথা শুনছে না। এই অর্থ আমরা কিভাবে পরিশোধ করব? অভিযোগ নিয়ে গেলে কর্মকর্তারা বলছেন, পুরো বিল পরিশোধ করতে হবে। তারা আমার বাড়ির লাইন ইতোমধ্যেই কেটে দিয়েছেন।

অভিযোগ করে শামীম আরও বলেন, প্রতি মাসে আমার বিদ্যুৎ বিল ৭শ’ থেকে ৮শ’ রুপির মধ্যেই থাকে। কিন্তু এবার আমাকে পুরো হাপুর শহরের বিদ্যুৎ বিল ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে!

ভুক্তভোগী শামীমের স্ত্রী খাইরুন্নিসা বলেন, আমরা কেবল লাইট আর ফ্যান চালাই। আমরা গরিব মানুষ, আমরা কিভাবে এত বিল দেব?

রামশরণ নামে প্রদেশের বিদ্যুৎ বিভাগের এক প্রকৌশলী সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, এটা বড় কোন ব্যাপার না, সামান্য যান্ত্রিক ত্রুটি। পরে সংশোধন করে দেওয়া হবে।
সূত্র: এনডিটিভি

দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন

দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন
শীলা দীক্ষিত, ছবি: সংগৃহীত

দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার ৮১ বছর বয়স হয়েছিল।

শনিবার (২০ জুলাই) দিল্লির ফর্টিস এসকর্ট হার্ট ইনস্টিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। 

দেশটির গণমাধ্যম জানায়, শীলা দীক্ষিত বেশ কিছু দিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে মৃত্যুর খবর জানায় তার পরিবার।

এবারের অনুষ্ঠিতব্য লোকসভা নির্বাচনেও উত্তর-পূর্ব দিল্লি থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন শীলা দীক্ষিত। তবে পরাজিত হন বর্ষীয়ান এই কংগ্রেস নেত্রী।

১৯৯৮, ২০০৩ এবং ২০০৮ সালে পরপর তিন বার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হন শীলা দীক্ষিত। বর্তমানে তিনি দিল্লি কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন।

শীলা দীক্ষিতের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে কংগ্রেস পরিবারে। শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। 

এদিকে, শোকপ্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং। 

অন্যদিকে, এক টুইট বার্তায় শোক প্রকাশ করেছেন জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র