Barta24

বুধবার, ২৪ জুলাই ২০১৯, ৯ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বিশ্বে প্রতি মিনিটে ২০ জন মানুষ উদ্বাস্তু হচ্ছে!

বিশ্বে প্রতি মিনিটে ২০ জন মানুষ উদ্বাস্তু হচ্ছে!
আদিঅন্তহীন শরণার্থীরা, ছবি:রয়টার্সের সৌজন্যে
ড. মাহফুজ পারভেজ
কন্ট্রিবিউটিং এডিটর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

উদ্বাস্তু বা শরণার্থী বা রিফিউজিদের পক্ষে সচেতনতা বাড়ানোর জন্য ২০ জুন আন্তর্জাতিক শরণার্থী দিবস পালন করা হলেও বৈশ্বিক রিফিউজি সমস্যার চিত্রটি মোটেও ভালো নয়। শরণার্থী দিবসের প্রাক্কালে বিলাতের প্রখ্যাত ডেইলি সান পত্রিকা যে সর্বসাম্প্রতিক পরিসংখ্যান হাজির করেছে, তা মারাত্মক, ভয়াবহ ও আশঙ্কাজনক।

'সান'-এর রিপোর্টে বলা হয়েছে, বর্তমান সময়ে প্রতি এক মিনিটে বিশ্বের নানা স্থানে ২০ জন মানুষ উদ্বাস্তু হচ্ছে। যুদ্ধ, সহিংসতা ও প্রাণনাশের বিপদ থেকে বাঁচতে ঘরবাড়ি ছেড়ে এসব মানুষ উদ্বাস্তু পরিচয়ে শরণার্থী ক্যাম্পে আশ্রয় নিচ্ছে, যাদের অর্ধেকই শিশু-কিশোর।

উদ্বাস্তুদের ৮৬% ভাগ উন্নয়নশীল দেশের হতভাগা নারী ও পুরুষ। এরা মূলত এশিয়া ও আফ্রিকার সংঘাত কবলিত দেশগুলোর বিপন্ন নাগরিক। দাঙ্গা-হাঙ্গামা-যুদ্ধ-বিদ্রোহের বিশ্ব তালিকাটিতেও এশিয়া-আফ্রিকার দেশগুলো এগিয়ে। এসব দেশের মানুষই অকাতরে উদ্বাস্তু হচ্ছে।

বিশ্বের মোট শরণার্থীর ৫১% ভাগ ১৮ বছরের কম বয়সী। তারা হলো শিশু ও কিশোর। জীবনের কঠিন বাস্তবতায় যাদের শিক্ষা ও শৈশব ধূলিসাৎ হচ্ছে রক্ত, মৃত্যু, অস্ত্রের তাণ্ডবে।

কেনিয়ার দাদাব শরণার্থী শিবিরকে বলা হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় উদ্বাস্তু আবাস, যেখানে ৩২৯,০০০ শরণার্থী নারী-পুরুষ-শিশু বসবাস করে। তবে সান পত্রিকার এই সংখ্যাগত দাবির পরিপ্রেক্ষিতে চ্যালেঞ্জ করা যায়, বাংলাদেশের কক্সবাজারের টেকনাফ-কুতুপালং রিফিউজি ক্যাম্পকে সামনে রেখে।

মায়ানমারের জাতিগত নিধনের কবল থেকে রক্ষা পেতে যে ১০ লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব সীমান্তরেখায় বসবাস করছেন, অনেক বিশেষজ্ঞই তাদেরকে বিশ্বের সবচেয়ে বৃহৎ শরণার্থী গোষ্ঠী বলে মনে করেন। তাদের আশ্রয়স্থলকে বিশ্বের সর্ববৃহৎ রিফিউজি ক্যাম্প বলেও বিশ্বাস করেন তারা।

ডেইলি সান আরও যে চাঞ্চল্যকর তথ্য জানিয়েছে তা হলো, বিশ্বের আলাদা আলাদা রিফিউজিরা এখন একটি একক জনগোষ্ঠীতে পরিণত হচ্ছে। বিভিন্ন দেশ ও জাতিসত্তার পাশাপাশি বিশ্বের রিফিউজিরাও একটি নিজস্ব দল গঠন করে অলিম্পিক ক্রীড়ায় অংশ নিচ্ছে। ২০১৬ সালের রিও অলিম্পিক প্রতিযোগিতায় প্রথমবারের মতো রিফিউজিদের নিয়ে তৈরি টিম অংশ নেয়।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jun/20/1561003239358.jpg
বিপন্ন-অসহায় শরণার্থীরা, যাদের অর্ধেকই শিশু, ছবি:রয়টার্সের সৌজন্যে

 

জাতিসংঘের একাধিক সংস্থা, মানবিক ও ত্রাণ সংগঠন, গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও বিশেষজ্ঞরা একটি বিষয়ে একমত হয়েছেন যে, পৃথিবীতে মানব সভ্যতার ইতিহাসে সর্বাধিক সংখ্যক শরণার্থীর দেখা পাওয়া যাচ্ছে বর্তমান সময়ে। অতীতে আর কখনোই এতো বিপুল শরণার্থী পৃথিবীতে ছিল না।

তবে কোনও ব্যক্তি বা সংস্থার পক্ষে বিশ্বে শরণার্থীর প্রকৃত সংখ্যা নিরূপণ করা সত্যিই কঠিন। কারণ, বর্তমানে পৃথিবীর নানা প্রান্তে প্রতি মিনিটে মানুষ গৃহহীন ও উদ্বাস্তু হচ্ছে। স্রোতের মতো মানুষ ঘরবাড়ি, দেশ ছেড়ে পালিয়ে যাচ্ছে আদিঅন্তহীন শরণার্থীদের মিছিলে। ফলে ক্রমবর্ধমান সংখ্যাটি সঠিকভাবে হিসাব করে বের করাও বেশ দুরূহ বিষয়।

তথাপি ধারণা করা হয় যে, বিশ্বে বর্তমানে আনুমানিক ৭ কোটি মানুষ স্বদেশ ও স্বগৃহ ছেড়ে শরণার্থী জীবন বেছে নিতে বাধ্য হয়েছেন। এই সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) কর্তৃক প্রতি বছর প্রকাশিত 'গ্লোবাল রিফিউজি ট্রেন্ডস' নামক রিপোর্টে প্রাপ্ত তথ্য, পরিসংখ্যান ও হিসাবগুলো লক্ষ্য করলে শরণার্থীদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যা দেখতে পাওয়া যায়।

বিভিন্ন স্টাডি রিপোর্ট অনুযায়ী ফিলিস্তিন, আফগানিস্তান, ইরাক, সিরিয়া, মায়ানমার, সোমালিয়া, দক্ষিণ সুদান, সিয়েরালিওন প্রভৃতি দেশকে বিশ্বের প্রধান শরণার্থী উৎসস্থল রূপে বিবেচনা করা হয়। বাংলাদেশ, লেবানন, আজারবাইজানকে গণ্য করা হয় সর্বাধিক সংখ্যক রিফিউজিদের আশ্রয়দাতা দেশ হিসাবে। 

আফ্রিকা, এশিয়া, বিশেষত মধ্যপ্রাচ্য, দক্ষিণ ও পশ্চিম এশিয়া অঞ্চলের মানুষ শরণার্থী হয়েছেন সবচেয়ে বেশি। দেশগুলো অনুন্নত ও দরিদ্র এবং সাংস্কৃতিক দিক দিয়ে পশ্চাৎপতা ও অশিক্ষায় জর্জরিত। দুঃখজনক তথ্য হলো, সংঘাত কবলিত ও শরণার্থী সমস্যাগ্রস্ত সিংহভাগ দেশই মুসলিম অধ্যুষিত।

বর্তমান সময়ে পৃথিবীর ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি শরণার্থী সৃষ্টি হওয়ার পেছনে যুদ্ধ, গৃহযুদ্ধ, দাঙ্গা ও সংঘাতকে অন্যতম কারণ হিসাবে চিহ্নিত করেছেন বিশেষজ্ঞ-গবেষকরা। রাজনৈতিক-মতাদর্শিক কারণে এবং ধর্মীয়-জাতিগত উগ্রতা ও সম্প্রদায়গত বিরোধের জন্য সৃষ্ট যুদ্ধ-বিগ্রহ, গণহত্যা ও শারীরিক-মানসিক-যৌন নিপীড়ন থেকে বাঁচতে পরিবার বা আস্ত সম্প্রদায় দেশ ছেড়ে শরণার্থী হয়ে পালিয়ে রক্ষা পাচ্ছে।

যারা পালাচ্ছে, তারা মানবেতর জীবন-যাপন করে হলেও বেঁচে থাকতে পারছে। কিন্তু খুব সামান্যই স্বদেশের নিজ বাস্তুভিটায় ফিরে যেতে পারছে। পৃথিবীতে এমন বহু শরণার্থী শিবির আছে, যেখানে উদ্বাস্তুরা কয়েক প্রজন্ম ধরে বসবাস করছেন। শরণার্থী পরিচয়েই মারা যাচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ এবং শরণার্থী পরিচয়েই জন্ম নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ শিশু।

ফলে বিশ্বের মানবিক সমস্যার মধ্যে এক নম্বর বলে শরণার্থী ইস্যুকে বিবেচনা করা হচ্ছে। শুধু শরণার্থী বা তাদেরকে স্বভূমিতে প্রত্যাবর্তনই নয়, তাদের পরিবার-পরিজন, শিশু-নারী, স্বাস্থ্য-শিক্ষা, ভরণপোষণ, নিরাপত্তা ইত্যাদি চ্যালেঞ্জিং এজেন্ডাও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠছে। আশ্রয়দাতা দেশগুলোর বিভিন্ন বিষয়ও শরণার্থীদের সামগ্রিক ব্যবস্থাপনা কাঠামোয় অগ্রাধিকার পাচ্ছে।

এসব কারণে শরণার্থী ইস্যু একজন ব্যক্তি বিশেষের সমস্যার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক নিরাপত্তা, সামাজিক স্থিতিশীলতা, অর্থনৈতিক ভারসাম্য, রাজনৈতিক শান্তি ও সাংস্কৃতিক সহনশীলতা বিষয়ক প্রপঞ্চের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়সমূহকেও স্পর্শ করছে।

শরণার্থী সমস্যার বহুমাত্রিক অভিমুখের কারণে এবং সংশ্লিষ্ট প্রাসঙ্গিক বিষয়াবলীকে মোকাবেলার প্রত্যয়ে বিদ্যমান শরণার্থী সমস্যাকে সমন্বিত ভাবে দেখার প্রয়োজনীয়তা তীব্রতর হচ্ছে। ফলে চলতি ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক শরণার্থী দিবসের মূল স্লোগান বা প্রতিপাদ্য ঘোষণা করা হয়েছে 'Global Compact on Refugees'.

আরও পড়ুন: বাংলাদেশের কাঁধে ১১ লাখ রোহিঙ্গার বোঝা

আপনার মতামত লিখুন :

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন

ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাজ্যের কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান নির্বাচিত হয়েছেন বরিস জনসন। এ হিসেবে তিনিই দেশটির প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন।

মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) দলের সদস্যদের ভোটে জয়ী হন তিনি। তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন জেরেমি হান্ট, তবে বেশ বড় ব্যবধানে তাকে হারিয়েছেন বরিস জনসন। তিনি পেয়েছেন ৯২ হাজার ১৫৩ ভোট। অন্যদিকে জেরেমি পেয়েছেন ৪৬ হাজার ৬৫৬ ভোট।

বিজয়ের পর দেওয়া ভাষণে জনসন ব্রেক্সিট রক্ষা এবং দেশে একতা ফিরিয়ে আনার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন। 

তিনি বলেন, আমরা দেশের শক্তি বৃদ্ধি করতে যাচ্ছি। ৩১ অক্টোবরের মধ্যে ব্রেক্সিট সম্পন্ন করব। এর সমস্ত সুযোগ-সুবিধা নতুন শক্তির সঞ্চার ঘটাবে।

ব্রিটেনের নতুন এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা আবারো নিজেদের স্বকীয়তায় বিশ্বাসী হতে যাচ্ছি। আমরা নিদ্রাকাতরতা থেকে জেগে উঠতে যাচ্ছি। যারা আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি এবং নেতিবাচকতা ধারণ করছেন, আমরা তাদের জাগাতে যাচ্ছি।

সদ্য সাবেক হওয়া প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মেকে ধন্যবাদ দেন তিনি। নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ায় বরিস জনসনকে অভিনন্দন জানান থেরেসা মে। তাকে সব ধরনের সহযোগিতা করা ঘোষণা দেন তিনি।

সূত্র: বিবিসি

হুয়াওয়েকে ‘সময়মত’ ব্যবসার লাইসেন্স দেবে যুক্তরাষ্ট্র

হুয়াওয়েকে ‘সময়মত’ ব্যবসার লাইসেন্স দেবে যুক্তরাষ্ট্র
ছবি: সংগৃহীত

হুয়াওয়ের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর মার্কিন মুল্লুকে ব্যবসা করতে ফের অনুমতি দিয়েছিল ট্রাম্প প্রশাসন। তবে পুরো ব্যবসার জন্য ‘সময়মত’ লাইসেন্স ফিরিয়ে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে মার্কিন সরকার।

চীনা জায়ান্টটির ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিতে মঙ্গলবার (২৩ জুলাই) যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের উপদেষ্টারা বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে এ কথা জানায় হোয়াইট হাউজ।

ওই বৈঠকে গুগল, কোয়ালকমসহ আরও বড় প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিনিধিরা অংশ নেন। হুয়াওয়েকে কালো তালিকাভুক্তি থেকে সরাতে গুগলের মতো প্রতিষ্ঠানও হোয়াইট হাউজকে অনুরোধ জানায়।

হোয়াইট হাউজ সোমবার (২২ জুলাই) এক বিবৃতিতে জানায়, হুয়াওয়ের পক্ষ থেকে দেশটিতে মুক্তভাবে ব্যবসা করার লাইসেন্স চেয়ে অনুরোধ জানানো হয়। এরপর বৈঠকে তারা ‘সময় মত’ সিদ্ধান্তটি জানাবে। তবে দেশটির শক্ত অবস্থান থাকবে জাতীয় নিরাপত্তা ইস্যুটিতে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সিসকো সিস্টেম ইনকর্পোরেশনের সিইও, ইন্টেল, ব্রডকম, কোয়ালকম, মাইক্রোন টেকনোলজি, ওয়েস্টার্ন ডিজিটাল এবং আলফাবেট ও গুগলের প্রধান নির্বাহী ও কর্মকর্তারা।

এর আগে গত মে মাসে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য বিভাগ হুয়াওয়েকে দেশটিতে কালো তালিকায় অন্তুর্ভুক্ত করে। পরে দেশটির বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি বাতিল করে দেয়।

হুয়াওয়ে এখন পর্যন্ত টেলিযোগাযোগ খাতে বিশেষ করে ফাইভজি বিস্তারে বিশ্বের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ করছে। তবে কবে পাওয়া যাবে সেই লাইসেন্স, তা জানায়নি হোয়াইট হাউজ।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র