Barta24

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

English

আন্দোলন জারি রাখার প্রত্যয়ে পর্তুগালে গণতন্ত্র দিবস উদযাপন

আন্দোলন জারি রাখার প্রত্যয়ে পর্তুগালে গণতন্ত্র দিবস উদযাপন
পর্তুগালের লিসবন সড়কে আনন্দের মিছিল / ছবি: বার্তা২৪
নাঈম হাসান পাভেল পর্তুগাল (লিসবন) থেকে


  • Font increase
  • Font Decrease

সবার হাতে ক্রাভো ফুল। শিশু থেকে তরুণ, বৃদ্ধ সবার মুখে মুক্তির শ্লোগান আর আনন্দের শ্লোগান। এদিন যেমনটা স্বৈরাচার মুক্তি আর পরাধীন জীবনের লাভের আনন্দ, তেমনি পরাধীনতার পরও রয়ে যাওয়া নানান অসঙ্গতির বিরুদ্ধে রাস্তায় এসে আওয়াজ তোলার দিন। ২৫ এপ্রিল পর্তুগালের আনন্দের দিন, স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র লাভের দিন। তাই এদিন পর্তুগিজদের অন্যতম জাতীয় উদযাপনের দিন।

প্রতিবছর এই দিনে দিবসটি উদযাপনে লিসবনের মার্কেশ পম্বাল চত্বর থেকে একটি আনন্দ র‍্যালি প্রথাগতভাবে অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যালিটি ঐতিহাসিক এভিনিধা দ্যা লিবরেদাদ সড়ক প্রদক্ষিণ করে রোসিও চত্বরে জড়ো হয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। এতে সমবেত হয় সমাজের সব শ্রেণী পেশার মানুষ।

২৫ এপ্রিল পর্তুগালের গণতন্ত্র দিবস (দিয়া দ্যা লিবরেদাদ) অথবা কার্নেশন বিপ্লব নামেও পরিচিত। ১৯৭৪ সালের এই দিনে লিসবনে সেনা অভ্যুত্থান হয় যা কর্তৃত্ববাদী এস্তাদো নভো শাসনকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করেছিল।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/26/1556248504470.jpeg

পর্তুগিজ মুভিটিও দাস ফোরাস আর্মাদাস, এমএফএ দ্বারা সংগঠিত সেই অভ্যুত্থান শিগগিরই একটি অবিচ্ছিন্ন, জনপ্রিয় নাগরিক প্রতিরোধ আন্দোলনে রুপ পায়। সংযুক্ত হয় সাধারণ সব শ্রেণি পেশার মানুষ। ‘বিপ্লব এস্তাদো নভো’ পর্তুগালের কর্তৃত্ববাদী শাসনের ৪৮ বছর শেষ এবং পর্তুগালের সকল ঔপনিবেশিক আফ্রিকান দেশগুলো থেকে সৈন্য প্রত্যাহারের মাধ্যমে ঔপনিবেশিক বিশেষ শাসনের অবসান ঘটে এদিন।

নাগরিক স্বাধীনতা, রাজনৈতিক স্বাধীনতা, নারী অধিকার, ঔপনিবেশিক বিরোধ, সামরিক ব্যয় কমানো, আন্তর্জাতিক বিচ্ছিন্নতা এবং বাক স্বাধীনতা দমনের প্রতিবাদে তৎকালীন সেই আন্দোলন গড়ে উঠেছিল। সেই সঙ্গে গণতন্ত্র ও বেসামরিক শাসনের প্রতিষ্ঠা এবং ঔপনিবেশিক দেশ অ্যাঙ্গোলা, কেপ ভার্দে, গিনি বিসাউ, মোজাম্বিক এবং সাও তমে ই প্রিন্সিপে এই দেশগুলোকে স্বাধীনতা প্রদানের দাবি করা হয়েছিল।

তাই প্রতিবছর এইদিনে রাজপথে তরুণদের স্লোগানে উঠে আসে সাম্য, সমতা, স্বাধীনতা আর অধিকারের কথা। কর্মজীবী মানুষেরা এদিন রাস্তায় আসেন তাদের দাবিগুলো নিয়ে। শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত থাকে শহর। জনপ্রিয় শ্লোগানের মধ্যে থাকে ‘এপ্রিল সব সময়’ ‘এপ্রিল এখনো রাস্তায়’ ‘আমাদের আন্দোলন চলমান’।

এইদিনে ক্রাভো ফুল সবার হাতে শোভা পায়। সংগ্রামের সেই সময় থেকে এই ফুল দিবসটি উদযাপনের ঐতিহ্য বহন করে। এই ফুলকে দিনটি উদযাপনের অনন্য একটি সংযোজন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। শিশু বৃদ্ধ সবার হাতে ক্রাভো ফুল দেখা যায়। তরুণীদের খোঁপায়ও এ ফুলটি শোভা পায়।

এই দিনে বিশেষ করে নারীরা সমবেত কণ্ঠে সেই সময়টির কথা প্রতিবাদ স্বরুপ তুলে আনেন। তাদের সেই সময়ে হরণ হওয়া অধিকারের কথা। মেয়েরা সে সময়ে অনুমতি ছাড়া বাইরে যেতে পারতো না। বাইরে কাজ করতে পারতো না।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/26/1556248521998.jpeg

র‍্যালিতে অংশ নেওয়া এক পর্তুগিজ নারী সোনিয়া সওজা বলেন, ‘এই দিনটি আমাদের অধিকার আদায়ের দিন, এই দিনটি ইতিহাসকে মনে করার দিন। এই দিনে সেই কালো অধ্যায়কে মনে করিয়ে দেওয়ার একটিই কারণ। এমন দিনগুলো যেন কখনো আমাদের জাতীয় জীবনে ফিরে না আসে। কারণ মানুষ ভুলে যায় অতীতের কথা। তাই ইতিহাসের স্মরণের মাধ্যমে আমরা তরুণদের নতুন অনুপ্রেরণা দিতে পারি। ’

এদিন অভিবাসীদেরও আন্দোলনে দেখা যায়। পর্তুগালে অভিবাসীদের জন্য কাজ করা সংগঠন সলিদারিটি ইমিগ্রেন্টস এদিন র‍্যালিতে অংশগ্রহণ করে। সেই সঙ্গে যোগ দেয় বাংলাদেশসহ বিভিন্ন অভিবাসী সম্প্রদায়ের মানুষেরা। এছাড়া রাস্তায় র‍্যালিতে অংশগ্রহণ করে প্রায় শতাধিক সংগঠন।

২৫ এপ্রিল পর্তুগিজদের জাতীয় জীবনে একটি অনন্য দিন। ২৫ এপ্রিল আনন্দের দিন, উদযাপনের দিন। পর্তুগিজদের এদিনের শ্লোগান তাই ‘২৫ শে এপ্রিল সবসময়, আর কোনো অপশাসন নয়’।

আপনার মতামত লিখুন :

ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম গ্রেফতার

ভারতের সাবেক অর্থমন্ত্রী পি চিদাম্বরম গ্রেফতার
পি চিদাম্বরম

ভারতের সাবেক মন্ত্রী ও প্রবীণ কংগ্রেস নেতা পি চিদাম্বরমকে আইএনএক্স মিডিয়া মামলায় গ্রেফতার করেছে দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থা সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই) সিবিআই।

বুধবার (২১ আগস্ট) রাতে নয়াদিল্লিতে নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। চিদাম্বরমের বাড়ির প্রাচীর টপকে ভেতরে ঢুকে সিবিআই কর্মকর্তারা তাকে গ্রেফতার করেন।

এর আগে মঙ্গলবার দিল্লি হাইকোর্ট চিদাম্বরমের আগাম জামিনের আবেদন খারিজ করে দেয়। দিল্লি হাইকোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হন ভারতের সাবেক এই অর্থমন্ত্রী। কিন্তু মামলাটি প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চে পাঠানোয় গ্রেফতারি এড়াতে পারেননি তিনি।

পি চিদাম্বরম ২০০৭ সালে ভারতের অর্থমন্ত্রী থাকাকালে ‘ফরেন ইনভেস্টমেন্ট প্রোমোশন বোর্ড’ (এফআইপিবি)-এর কাছে বিদেশি লগ্নির আবেদন করেছিল আইএনএক্স মিডিয়া। লগ্নির অর্থ সহযোগী সংস্থাগুলোতেও বিনিয়োগের অনুমতি চেয়েছিল তারা।

তবে লগ্নি অনুমোদন করলেও সেই অর্থ সহযোগী সংস্থায় বিনিয়োগে সায় দেয়নি এফআইপিবি। ওই নিষেধাজ্ঞা অগ্রাহ্য করায় আইএনএক্স মিডিয়ার বিপক্ষে দাঁড়ায় ভারতীয় আয়কর দফতর।

এরপর আইএনএক্স মিডিয়ার যুগ্ম প্রতিষ্ঠাতা পিটার ইন্দ্রাণী ও অনান্যরা চিদাম্বরমের ছেলে কার্তি চিদাম্বরমের কোম্পানির দ্বারস্থ হন। সেই সময় অর্থের বিনিময়ে আইএনএক্স মিডিয়াকে ছাড়পত্র পাইয়ে দিয়েছিলেন কার্তি। পি চিদাম্বরমের বিরুদ্ধে অভিযোগ তিনি ছেলের সংস্থার হয়ে আইএনএক্সকে অন্যায় সুবিধা দিয়েছিলেন।

বিদেশি ঋণের ভারে মিয়ানমারের অর্থনীতি নুয়ে পড়েছে

বিদেশি ঋণের ভারে মিয়ানমারের অর্থনীতি নুয়ে পড়েছে
ছবি: সংগৃহীত

বিদেশি ঋণের ভারে মিয়ানমারের অর্থনীতি নুয়ে পড়েছে। বিশেষ করে চীন ও জাপানের কাছ থেকে উচ্চ সুদে ঋণ নিয়ে শোধ করতে না পেরে এখন বিপাকে মিয়ানমার। এই দুই দেশ ছাড়াও আরও প্রায় ২০টি দেশ ও সংস্থা থেকে ঋণ নিয়েছে দেশটি।

যৌথ পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটি ২০১৭-১৮ অর্থবছরের কেন্দ্রীয় বাজেটের প্রতিবেদনে এসব উল্লেখ করেছে।

কমিটি বলেছে স্বরাষ্ট্র, কৃষি, প্রাণিসম্পদ এবং সেচ; পরিবহন ও যোগাযোগ, বিদ্যুৎ ও শিল্প এসব খাতে ১০.২ বিলিয়ন ডলারের বিশাল অঙ্কের ঋণ নিয়েছে মিয়ানমার।

এর আগের অর্থ বছরের চেয়ে এ বছর ঋণ নেওয়ার হার বেড়েছে ১১.৫ শতাংশ যা প্রায় এক বিলিয়ন ডলার সমমূল্য অর্থ।

২০১৮ সালের মার্চ পর্যন্ত চীন থেকে সর্বোচ্চ ৪ বিলিয়ন ডলার নিয়েছে যা দেশটি বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, প্রতিরক্ষা, শিল্প, কৃষি, প্রাণিসম্পদ এবং সেচখাতে ব্যয় হয়েছে।

এদিকে, মিয়ানমার জাপানের কাছ থেকে ৩ বিলিয়ন ডলার নিয়েছে। অন্যান্য ঋণদাতাদের মধ্যে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক, আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল, ভারত, থাইল্যান্ড এবং যুক্তরাজ্যের মতো বহুপক্ষীয় সংস্থার যোগ রয়েছে।

প্রতিবেদনে বিদ্যুৎ ও শিল্পখাতে উচ্চ সুদে ঋণ নিয়েছে মিয়ানমার। এ সুদের হার ২.৫ থেকে ৪.৫ শতাংশ। উচ্চতর সুদের হার ও মিয়ানমারে নিম্নমূল্যের মুদ্রা দেশের উপর একটি ভারী বোঝা সৃষ্টি করেছে। এই জাতীয় ঋণ গ্রহণের সিদ্ধান্ত সাবধানতার সঙ্গে বিবেচনা করা উচিত বলে কমিটি সুপারিশ করেছে।

প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে উচ্চতর সুদের হার, দুর্বল কায়াত এবং ক্রমবর্ধমান পরিচালন ব্যয়ের কারণে সরকারী অর্থায়নে ক্ষতি হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, শিল্প মন্ত্রকের অধীনে বেশ কিছু ব্যর্থ প্রকল্প রয়েছে যারা ঠিক সময়ে ঋণ পরিশোধ করতে পারেনি। কৃষি, প্রাণিসম্পদ ও সেচের জন্য বিতরণের পরে কর্পোরেট প্রশাসনকে শক্তিশালী করার সুপারিশ করা হয়েছিল। কিন্তু এটি না করার ফলে আর্থিক ক্ষয়ক্ষতি ও দুর্নীতির ঘটনা ঘটেছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র