Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বিজেপিতে যোগ দিলেন অভিনেতা সানি দেওল

বিজেপিতে যোগ দিলেন অভিনেতা সানি দেওল
ছবি: সংগৃহীত
খুররম জামান
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

দিল্লি থেকে: বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা সানি দেওল ভারতীয় জনতা পার্টিতে (বিজেপি) যোগ দিয়েছেন। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) দিল্লিতে এক অনুষ্ঠানে বিজেপিতে যোগ দেন তিনি।

ওই অনুষ্ঠানে ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ও রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল উপস্থিত ছিলেন।

২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে পাঞ্জাবের গুরুদাসপুরের সংসদীয় আসন থেকে সানি দেওল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন বলে জানা গেছে।

বিজেপির সঙ্গে যোগ দেওয়ার পর সানি দেওল বলেন, "প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশের জন্য অনেক কিছু করেছেন। আমি আশা করি, তিনি আরও পাঁচ বছরের জন্য প্রধানমন্ত্রী হবেন। আমাদের যুবকদের মোদিজির মতো মানুষ প্রয়োজন।"

তিনি আরও বলেন, "আমার বাবা শ্রদ্ধেয় অভিনেতা ধর্মেন্দ্র যেভাবে অটল বিহারি বাজপেয়ির সঙ্গে কাজ করেছিলেন এবং তাকে সমর্থন করেছিলেন; আমিও আজ মোদিজীর সাথে কাজ করার এবং সমর্থন করার জন্য এখানে আছি। আমার কথা নয়, কাজই এর প্রমাণ দেবে।''

এর আগে অভিনেতা বিনোদ খান্না বিজেপি থেকে গুরুদাসপুর লোকসভা আসনে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন। উত্তর প্রদেশের মাথুরা আসন থেকে বিজেপি প্রার্থী হেমা মালিনী নির্বাচনে লড়ছেন। তিনি সানির সৎ মা হন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/23/1556006260016.jpg

২০১৭ সালের এপ্রিল মাসে বিনোদ খান্না মারা যান। পরে উপনির্বাচনে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের সুনিল কুমার জাখার ওই আসনে জয়ী হন।

গত শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) বিকেলে মহারাষ্ট্রে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করেন সানি দেওল। তখনই ধারণা করা হয়েছিল- তিনি বিজেপিতে যোগ দেবেন।

বিজেপি এখনো পাঞ্জাবের তিনটি আসন থেকে প্রার্থী ঘোষণা করেনি। এগুলো হলো- অমৃতসর, গুরুদাসপুর ও হোসিশপুর। অমিত শাহ পাঞ্জাব থেকে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য সানিকে বলেন।

লোকসভা নির্বাচনের জন্য বিজেপি পাঞ্জাবের শরীয়মানী আকালী দল নিয়ে একটি জোট গঠন করেছে। পাঞ্জাবের ১৩টি আসনের মধ্যে তিনটি আসন বিজেপির।

আপনার মতামত লিখুন :

ইরানি ড্রোন ধ্বংস করল যুক্তরাষ্ট্র

ইরানি ড্রোন ধ্বংস করল যুক্তরাষ্ট্র
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্রে নৌবাহিনী হরমুজ প্রণালীতে ইরানের একটি ড্রোন ধ্বংস করেছে বলে দাবি করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

হোয়াইট হাউসে দেওয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) ওই ড্রোনটি মার্কিন জাহাজের এক হাজার গজের মধ্যে চলে আসার পর যুদ্ধ জাহাজ ইউএসএস বক্সার প্রতিরক্ষামূলক পদক্ষেপ নেয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘ড্রোনটি বেশ কয়েক বার হুঁশিয়ারি এবং থামার নির্দেশ উপেক্ষা করে জাহাজ এবং ক্রুদের নিরাপত্তার প্রতি হুমতি তৈরি করায় এমন পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ড্রোনটি সাথে সাথেই ধ্বংস করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন: ইরান-ইয়েমেন জলসীমায় সেনা মোতায়েন

তবে ইরান দাবি করেছে, ড্রোন ধ্বংস হওয়ার কোনো তথ্য তাদের কাছে নেই। গত জুনে ওই একই এলাকায় ইরান একটি মার্কিন সামরিক ড্রোন ধ্বংস করেছিল।

এর আগে তেহরান জানিয়েছিল, উপসাগরীয় অঞ্চলে জ্বালানি চোরাচালানের অভিযোগে রোববার (১৪ জুলাই) বিদেশি একটি ট্যাঙ্কার এবং এর ১২ জন ক্রুকে আটক করা হয়েছে।

গত মে মাস থেকে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ জাহাজ চলাচল এলাকায় ইরানের বিরুদ্ধে ট্যাঙ্কারে হামলার অভিযোগ করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু এসব অভিযোগ নাকোচ করেছে ইরান।

উবারের এক রাইডেই ভাড়া ৮ লাখ টাকা!

উবারের এক রাইডেই ভাড়া ৮ লাখ টাকা!
উবারে ভাড়া বেড়ে গেল ১০০ গুণ, ছবি: সংগৃহীত

উবারে চড়বেন যুক্তরাষ্ট্রের এক নারী যাত্রী। অ্যাপে ভাড়া দেখালো মাত্র ৯৬.৭২ ডলার (৮১২৪ টাকা)। কিন্তু রাইড শেষে ভাড়া দেখে রীতিমতো 'থ' ওই যাত্রী। ভাড়া ১০০ গুণ বেড়ে দাঁড়ায় ৯ হাজার ৬৭২ ডলার যা বাংলাদেশি টাকায় আট লাখ টাকার বেশি।

ওই নারীর স্বামী এক টুইট বার্তায় উবারের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ লেখেন, 'এই যে উবার, আমার বউয়ের কাছ থেকে ৯৬.৭২ ডলারের ভাড়া ৯ হাজার ৬৭২ ডলার চার্জ করেছে। উবারে চড়ার মতো আর কোনো অবস্থা নেই।'

তবে শেষ পর্যন্ত ওই নারীকে আট লাখ টাকা পরিশোধ না করতে হলেও অনেকেই এটাকে প্রতারণা হিসেবে দেখছেন।

এই বিষয়ে উবার জানায়, এই সামান্য ভুলটি হতাশাজনক। ওই যাত্রী থেকে নির্ধারিত ভাড়াই (যা শুরুতে দেখানো হয়েছে) রাখা হয়েছে।

তবে উবারে ভাড়া বেড়ে যাওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম না, এর আগে আরেক যাত্রীর ১৯ ডলারের ভাড়া হয়ে গেল এক হাজার ৯০০ ডলার। এতে উবারের বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের যাত্রীরা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

এদিকে উবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, 'ভাড়া বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি সমাধান হয়েছে।' তবে অন্য যাত্রীদের ক্ষেত্রেও ভাড়া বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছে রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠানটি।

এই বিষয়ে ওয়াশিংটন পোস্টের কর্মকর্তা মার্ক স্মিথ বলেন, 'কেউ যদি উবার পেমেন্টের ক্ষেত্রে ডেবিট কার্ড লিংক করে থাকে, তাহলে মুহূর্তেই কেটে নিতে পারে এই বাড়তি অর্থ। এক্ষেত্রে উবার অ্যাপের সঙ্গে ডেবিড কার্ড লিংক করা উচিত নয়।'

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র