Barta24

সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ফেরদৌসের মতোই কি শাস্তি পাবেন বাকিরা?

ফেরদৌসের মতোই কি শাস্তি পাবেন বাকিরা?
ভারতীয় নির্বাচন কমিশন কার্যালয়/ ছবি: বার্তা২৪.কম
স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
কলকাতা
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

বাংলাদেশি অভিনেতা ফেরদৌস আহমেদ ভারতের পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থীদের হয়ে ভোটের প্রচারে নেমেছিলেন। বিদেশিদের দিয়ে প্রচার করানোর অভিযোগে রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা ও এ বিষয়ে পক্ষপাতমূলক বক্তব্য পেশের জন্য রাজ্যের অতিরিক্ত মুখ্য নির্বাচনী কর্মকর্তার পদত্যাগ দাবি করেছেন বিরোধীদলগুলো।

সূত্র জানায়, রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী কর্মকর্তা আরিজ আফতাব এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কেন্দ্রীয় (দিল্লির) নির্বাচন কমিশনের মতামত চেয়েছেন।

এদিকে ফেরদৌসের পাশাপাশি অভিনয় করার ভিসা নিয়ে ভারতে গিয়ে রাজনৈতিক প্রচারে সম্পৃক্ত হওয়ার অভিযোগ এসেছে জি-বাংলার 'রাণী রাসমণি' সিরিয়ালে রাজচন্দ্রের ভূমিকায় অভিনয় করা বাংলাদেশি গাজী আবদুন নুর সহ আরও কয়েকজন শিল্পীর বিরুদ্ধে।

তৃণমূল কংগ্রেস নেতা ও সাবেক পরিবহন মন্ত্রী মদন মিত্রের সঙ্গে রাম নবমীর মিছিলে ছিলেন নুর। এছাড়া দমদমে তৃণমূল প্রার্থী সৌগত রায়ের হয়ে প্রচারণায় ছিলেন বলে অভিযোগ এই বাংলাদেশি ছোট পর্দার অভিনেতার বিরুদ্ধে। প্রচারের ঐ ভিডিও কপি জমা পড়েছে নির্বাচন কমিশনের দফতরে। তার বিষয়ে একই ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা তা এখনও জানা যায়নি।

রবীন্দ্র ভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র আবদুন নুর বলেন, ‘মদনদার (মদন মিত্র) সাথে আমার পারিবারিক সম্পর্ক। তার সাথে দেখা করতে গিয়ে দেখি তিনি একটি প্রোগ্রামে আছেন। আমি দাদাকে বললাম, আমার এখানে থাকা ঠিক হবে না। হাইকমিশনের নিষেধ আছে।’ তখন মদনদা বললেন, ঠিক আছে, আমার সাথে গাড়িতে থাক, তোকে নামিয়ে দেব।’

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/17/1555496982222.gif
কলকাতায় বাংলাদেশি অভিনেতা গাজী আবদুন নুর (বামে)/ ছবি: সংগৃহীত

 

নুর বলেন, ‘আমি যদি প্রচারণায় যেতাম, তাহলে তো ব্যাজ লাগাতাম, উত্তরীয় পরতাম। আমাকে দিয়ে তো বক্তৃতাও দেওয়ানো হয়নি। সৌগত রায়ের সাথে ঐ দিনের আগে আমার দেখায় হয়নি। আমাকে দেখে দর্শকরা যদি হাত নাড়েন, স্বাভাবিকভাবে আমাকে হাত নাড়তে হয়।’

তিনি বলেন, ‘প্রচারণায় অনেক লোকজন থাকায় আমি একা সেখান থেকে বের হয়ে আসতে পারছিলাম না। কিন্তু আমার উচিৎ ছিল সেখান যেভাবেই হোক বের হয়ে আসা।’

বুধবার (১৭ এপ্রিল) এক তারকা অভিনেত্রীর নামেও কানাঘুষা হচ্ছে রাজ্য বিজেপির দফতরে। ঐ অভিনেত্রীকেও নাকি পশ্চিমবঙ্গের উত্তরবঙ্গের কোনো জনসভায় দেখা গিয়েছিল। যদিও তার সঠিক কোনো তথ্য রাজ্যের নির্বাচন কমিশনকে দিতে পারেনি। তাই সে বিষয়টি কেউ আমল নিচ্ছেন না। তবে একটা উৎকণ্ঠা বোধ কাজ করছে অভিনেত্রীর ফ্যানদের মধ্যে। তবে বুধবার পর্যন্ত তারকা অভিনেত্রীর তিনটি মোবাইল ফোন নম্বরের সুইচ অফ আছে।

জানা যায়, বুধবার ফেরদৌসের প্রচারণা সম্পর্কে রিপোর্ট জমা পড়েছে দেশটির বিদেশ মন্ত্রীর কাছে। সেখানে বাংলাদেশি এই অভিনেতার বিরুদ্ধে ভিসা আইন লঙ্ঘন করার অভিযোগ আনা হয়েছে। ফলস্বরূপ ভারত সরকার ফেরদৌস আহমেদের বিজনেস ভিসা বাতিল করেছে।

শুধু তাই নয়, বিদেশ থেকে আগত নাগরিকদের কালো তালিকায় বাংলদেশি এই অভিনেতার নাম যুক্ত করা হয়েছে। তবে ভারতে কোনো কাজ করতে না পারলেও টুরিস্ট ভিসা নিয়ে ভারতে আসতে পারবেন ফেরদৌস।

এতে সমস্যায় পড়েছে পশ্চিমবঙ্গের একাধিক প্রযোজকসহ পরিচালকরা। কারণ ফেরদৌস অভিনীত ‘দত্তা’ নামের একটি ছবির অর্ধেকের বেশি কাজ হয়েছিল বলে জানা গেছে। ফেরদৌস যদি ভারতেই ঢুকতে না পারেন তাহলে কী করে বাকি কাজ এগোবে? প্রসঙ্গত, শুটিং -এর ফাঁকেই রায়গঞ্জের প্রচারে গিয়েছিলেন বাংলাদেশি নায়ক।

ফেরদৌসের এই আচরণে মাথায় হাত পড়েছে ‘দত্তা’র পরিচালকসহ অন্যান্য প্রযোজকদের। কারণ আরও কয়েকটি ছবিতে চুক্তিবদ্ধ ছিলেন ফেরদৌস।

আপনার মতামত লিখুন :

চাঁদের পথে পাড়ি জমাল ভারতের চন্দ্রযান-২

চাঁদের পথে পাড়ি জমাল ভারতের চন্দ্রযান-২
উৎক্ষেপণের সময় চন্দ্রযান-২, ছবি: সংগৃহীত

প্রাযুক্তিক ত্রুটি কাটিয়ে অবশেষে চাঁদের উদ্দেশে পাড়ি দিল ভারতের দ্বিতীয় উচ্চশক্তি সম্পন্ন কৃত্রিম উপগ্রহ চন্দ্রযান-২।

সোমবার (২২ জুলাই) দুপুর ২টা ৪৩ মিনিটে চেন্নাই থেকে প্রায় ১০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সতীশ ধাওয়ান অন্তরীক্ষ কেন্দ্রের দ্বিতীয় লঞ্চ প্যাড শ্রীহরিকোটা থেকে চন্দ্রযান-২ চাঁদের পথে উড়াল দেয়।

বাহুবলী নামক এ চন্দ্রযানটি সর্বোচ্চ শক্তিশালী রকেট জিএসএলবি-মার্ক III -এম-I -এর মাধ্যমে চাঁদে পাঠানো হয়। এ মিশনের জন্য ব্যয় হয়েছে প্রায় ১০০০ কোটি টাকা।

1
জিএসএলভি এমকে -III

 

উল্লেখ্য, গত ১৫ জুলাই রওনা দেওয়ার কথা ছিল চন্দ্রযান-২ এর। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মাত্র ৫৬ মিনিট ২৪ সেকেন্ড আগে ইসরোর (ISRO) বিজ্ঞানীরা প্রযুক্তিগত ত্রুটির কারণে সে যাত্রায় ক্ষান্ত দেন। রকেটের একটি ভাল্ব থেকে লিক হচ্ছিল হিলিয়াম গ্যাস। তাই ঝুঁকি নিতে চাননি বিজ্ঞানীরা। শেষে চন্দ্রযানটির উৎক্ষেপণ বাতিল করা হয়।

ভয়াবহ দাবানলে জ্বলছে পর্তুগাল

ভয়াবহ দাবানলে জ্বলছে পর্তুগাল
ভয়াবহ দাবানলে জ্বলছে পর্তুগাল, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

টানা তৃতীয় দিনের মতো দাবানলে জ্বলছে পর্তুগাল। ভয়াবহ এই দাবানলে এখন পর্যন্ত আহত হয়েছেন কমপক্ষে ২০ জন। নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে প্রায় ১ হাজার ৮০০ দমকল বাহিনী, ১৯টি হেলিকপ্টার, ১০০টি অগ্নিনির্বাপক। প্রাথমিকভাবে সিগারেটের আগুন থেকে এর সূত্রপাত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অগ্নিদগ্ধ একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রাজধানী লিসবনে তাকে স্থানান্তর করা হয়েছে। এছাড়া আটজন দমকল কর্মী গুরুতর আহত হয়েছেন।

রাজধানী লিসবন থেকে ২০০ কিলোমিটার দূরে সংঘঠিত হয়েছে এই দাবানল। দাবানলে কাস্টেলো ব্রাঙ্কো এলাকার একটি জাতীয় সড়ক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে সে এলাকার বাসিন্দাদের।

এদিকে, সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে পর্তুগালের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এদুয়ার্দো কাবরিতা বলেন, ‘কাস্টেলো ব্রাঙ্কো অঞ্চলের দাবানল এখনো নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হয়নি। তবে পূর্ব প্রস্তুতির পাশাপাশি আমরা দাবানল নিয়ন্ত্রণে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।’

উদ্দেশ্যমূলকভাবে কেউ সেখানে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে কিনা কর্তৃপক্ষ সেটি খতিয়ে দেখছে বলেও জানান তিনি।

পর্তুগালের প্রেসিডেন্ট মার্সেলো রেবেইলো ডি সওজা এক বার্তায় বলেন, ‘বীরত্বের সঙ্গে যারা দাবানলের আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কাজ করছেন তাদের কাজের প্রতি সংহতি ও শ্রদ্ধা প্রকাশ করছি।’

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ব্যাপক দাবানলে পর্তুগালে প্রাণ হারায় শতাধিক মানুষ। এরপর দাবানল নিয়ে সতর্ক অবস্থানে যায় পর্তুগাল। দুর্যোগ মোকাবিলায় নেওয়া হয় বেশ কিছু কার্যকরী উদ্যোগ। যার ফলে ২০১৮ সালেও ভয়াবহ দাবানল সংঘঠিত হলেও কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
প্রতিবছর গ্রীষ্মকালীন সময়ে পর্তুগালের পার্বত্য বনাঞ্চলগুলোতে ধারাবাহিক দাবানল সংঘঠিত হয়ে থাকে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র