Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মোদি-অমিত জুটি গুজরাতের সর্বময়

মোদি-অমিত জুটি গুজরাতের সর্বময়
ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ও বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ/ ছবি: সংগৃহীত
খুররম জামান
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

গুজরাতের আহমেদাবাদ থেকে: গুজরাতে ২০১৪ সালে লোকসভার সবগুলো আসন ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) জিতেছিল। এবার রাজ্যটিতে যেভাবেই হোক, জয় বহাল রাখতে চায় মোদি-অমিত জুটি। তারাই গুজরাতে সর্বময় রাজনৈতিক শক্তি হিসেবে বিরাজ করছে।

গুজরাতে একদিনই ভোট হবে। সেটি হলো- ২৩ এপ্রিল। এরই মধ্যে রাজ্যটির রাজনীতিতে নানাবিধ রসায়ন কাজ করছে।

এবারের নির্বাচনে বিজেপি তাদের অন্যতম নেতা এলকে আদভানিকে প্রতিযোগিতা থেকে বসিয়ে দেয়। তিনি গান্ধিনগর থেকে নির্বাচন করে আসছিলেন, বর্তমানে সেখান থেকে নির্বাচন করছেন দলটির প্রধান অমিত শাহ। এর ফলে গুজরাতে বিজেপির রাজনীতির সর্বময় নিয়ন্ত্রণ নরেন্দ্র মোদি ও অমিত শাহ জুটির হাতে চলে এসেছে।

অন্যদিকে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস তথা বিরোধী দলের হারানোর কিছু নেই। তারা ২০১৪ সালে কিছুই পায়নি। কিন্তু ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস ভালো ফল করেছিল; যা কংগ্রেস সমর্থকরা চিন্তাও করেননি। তবে সেসময় থেকে পরিস্থিতি বদলে গেছে।

অভিযোগ রয়েছে, কংগ্রেসের অনেক নেতাকেই বিজেপি কিনে নিয়েছে। তাদের নেতা আলপেশ ঠাকুর বিজেপিতে যোগ দিতে যাচ্ছেন, তাতে রাজনীতির কোনোও নৈতিকতা মানা হয়নি।যদিও কিছু দিন আগেও গান্ধিনগরের সমাবেশে করেছেন কংগ্রেসের সভাপতি রাহুল গান্ধী ও আলপেশ ঠাকুর।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/13/1555138665666.jpg

২০১৭ সালের ডিসেম্বরে ১৮২ আসনের গুজরাটের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস ৯৯টি আসনে জয়ী হয়। এমন ঝলকানি দেখানোর পর বর্তমানে দলটি তার আটজন এমএলএ হারিয়েছে।

এদের মধ্যে পাঁচজন বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। আলপেশ ও তার দুই সহকর্মী বিজেপিতে যোগ দিতে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে তারা কংগ্রেস ত্যাগ করেছেন। তারা বলেছেন, তারা এমএলএ পদ থেকে পদত্যাগ করবেন না বরং স্বাধীন বিধায়ক হিসেবে বিবেচিত হবেন।

এদিকে, কংগ্রেসের একটি বড় সমস্যা রয়েছে। সেটি হলো- বিধানসভা নির্বাচনে তাদের বিধায়ক সংখ্যা হ্রাস পেয়ে ৬৯টি আসন হয়েছে। ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনের সময় বিজেপি বিরোধী নেতৃত্বে দেওয়ার জন্য উচ্চ প্রোফাইল নেতা এখন আর গুজরাতে নেই।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/13/1555138691305.jpg

দাঙ্গা মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ার কারণে কংগ্রেস নেতা হার্ডিক প্যাটেলও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন না। উত্তর গুজরাতে চারটি আসন নিয়ে কংগ্রেসের আশা ছিল। এখানে হার্ডিক, জগেশেশ মভানি ও আলপেশের মধ্যে 'শক্তিশালী রাজনৈতিক সিন্ডিকেট' ছিল।

মভানি ও হার্ডিক, দু’জনেই আলপেশ থেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে ফেলছেন। এমন পরিস্থিতিতে কংগ্রেস বেকায়দায় পড়ে গেছে। যে উন্নয়নের কথা বলে গুজরাতের নামে সমস্ত ভারতে প্রচার করে বিজেপি ক্ষমতায় এসেছিল, বর্তমানে তার প্রতিফলন ভোটের মধ্যে পড়বে না বলে ধারণা করছেন স্থানীয় ভোটাররা।

রাজেন কুমার বার্তা২৪.কমকে বলেন, শুধু বিরোধীকে নিশ্চিহ্ন করতে চাওয়ার মাধ্যমে বিজেপি নিরঙ্কুশ আসন পাবে না। গুজরাতে শুধু বিজেপি ও কংগ্রেস শাসন করেছে। এখন দরকার, বিকল্প কোনো দল বা জোট ক্ষমতায় আসুক।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Apr/13/1555138736151.jpg

প্রণব ভাই বলেন, গত পাঁচ বছরে জিনিসপত্রের দাম অনেক বেড়েছে। সরকার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তা পালন করতে না পেরে অন্য ইস্যু তুলে ধরছে।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক রাজ্যের আরেক ভোটার বলেন, সব কিছুর পরেও এখানে বিজেপিই জিতবে। আজ জাতীয়তাবাদ ও হিন্দুত্ববাদ যেভাবে জনপ্রিয়তা পেয়েছে, মানুষ ভোট দেওয়ার সময় এছাড়া কিছুই চিন্তা করতে পারছে না।

গুজরাতে চাকরির বিশাল সংকট রয়েছে। দলিতরা এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। মাঝে-মাঝেই আন্দোলন করছেন তারা। এরই মাঝে কংগ্রেসের নেতারা মনে করছেন, জনগণের ক্ষোভ তাদের জন্য ভোটে পরিণত হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন

দিল্লির সাবেক মুখ্যমন্ত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন
শীলা দীক্ষিত, ছবি: সংগৃহীত

দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা কংগ্রেস নেত্রী শীলা দীক্ষিত মারা গেছেন। মৃত্যুকালে তার ৮১ বছর বয়স হয়েছিল।

শনিবার (২০ জুলাই) দিল্লির ফর্টিস এসকর্ট হার্ট ইনস্টিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। 

দেশটির গণমাধ্যম জানায়, শীলা দীক্ষিত বেশ কিছু দিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। শনিবার বেলা সাড়ে ৩টার দিকে মৃত্যুর খবর জানায় তার পরিবার।

এবারের অনুষ্ঠিতব্য লোকসভা নির্বাচনেও উত্তর-পূর্ব দিল্লি থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন শীলা দীক্ষিত। তবে পরাজিত হন বর্ষীয়ান এই কংগ্রেস নেত্রী।

১৯৯৮, ২০০৩ এবং ২০০৮ সালে পরপর তিন বার দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী হন শীলা দীক্ষিত। বর্তমানে তিনি দিল্লি কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন।

শীলা দীক্ষিতের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছে কংগ্রেস পরিবারে। শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও। 

এদিকে, শোকপ্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ড. মনমোহন সিং। 

অন্যদিকে, এক টুইট বার্তায় শোক প্রকাশ করেছেন জম্মু-কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লা।

যুক্তরাষ্ট্রে তীব্র তাপদাহ, আক্রান্ত হচ্ছে কানাডাও

যুক্তরাষ্ট্রে তীব্র তাপদাহ, আক্রান্ত হচ্ছে কানাডাও
ছবি: সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে তীব্র তাপদাহ ছড়িয়ে পড়েছে। আহাওয়াবিদরা বলছেন, কিছু কিছু জায়গায় তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যাবে। কানাডার কিছু অংশ এই তাপদাহে আক্রান্ত হতে পারে। 

বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, তীব্র তাপদাহে যুক্তরাষ্ট্র ও আশে পাশের দেশের ২০০ মিলিয়ন মানুষ আক্রান্ত হতে পারে। এর সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়বে নিউইয়র্ক, ওয়াশিংটন, বস্টনের পূর্ব উপকূলে। চলতি মাসে, যুক্তরাষ্ট্রের আলাস্কায় আর্কটিক সার্কেলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। তাপদাহ কলোরাডো এবং কানসাস থেকে প্রসারিত হয়ে দেশজুড়ে আরো তীব্র আকার ধারণ করবে।

ইতোমধ্যে পূর্ব উপকূলের বেশিরভাগ এলাকায় তাপমাত্রা বেড়েছে। দেশটির আবহাওয়া অফিস (এনডব্লিউএসএস) তাপদাহে আক্রান্ত এলাকাগুলোর মানচিত্র প্রকাশ করেছে। তারা বলছেন, "সপ্তাহজুড়েই তাপদাহ থাকবে, তাই সবাইকে সতর্ক ও সাবধানে থাকতে হবে।"

নিউইয়র্কের মেয়র বিল ডি ব্লাসিও তীব্র তাপদাহের কারণে স্থানীয় জরুরি অবস্থা জারি করেন। এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, গরমের তাপমাত্রা বেড়েই চলেছে। এটি খুবই গুরুতর বিষয়। শুক্রবার তাপমাত্রা বেড়েছে, শনিবার আরও বাড়বে, রোববার তা তীব্র আকার ধারণ করবে।

এই অবস্থায় নিউইয়র্কবাসীকে গুরুত্ব সহকারে বিষয়টি মোকাবিলার আহ্বান জানিয়ে বিল ডি ব্লাসিও বলেন, ঠান্ডা স্থানে থাকুন এবং বাইরে গরম জায়গায় যাবেন না। নিউইয়র্কে ৫০০ "শীতল কেন্দ্র" খেলা হয়েছে। অন্যান্য শহরেও এ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে তীব্র তাপদাহে কানাডার কুইবেক, অন্টারিও এবং নোভা স্কটিয়া প্রদেশে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। শনিবার টরোন্টোতে দিনের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রী সেলসিয়াস হতে পারে বলে জানিয়েছে দেশটির আবহাওয়া অফিস।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাম্প্রতিক সময়ে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাবে তাপমাত্রার বৃদ্ধি পাচ্ছে।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র