Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ভারত-পাকিস্তানকে সংযম প্রদর্শনের আহবান

ভারত-পাকিস্তানকে সংযম প্রদর্শনের আহবান
ভারত-পাকিস্তান মুখোমুখি, প্রতীকী ছবি
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

ভারত-পাকিস্তানের পাল্টাপাল্টি হামলার মুখে নতুন করে যুদ্ধের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ অবস্থায় দুই দেশকেই সংযম প্রদর্শনের আহবান জানিয়েছেন বিশ্ব নেতারা। একই সঙ্গে, দ্বন্দ্ব নিরসনে উভয় পক্ষকে আলোচনায় বসার পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র লু কাং এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আমরা আশা করি, ভারত ও পাকিস্তান উভয়ই সংযত হয়ে সমঝোতার চর্চা করবে, যা দেশ দু’টির মধ্যে উত্তেজনা কমিয়ে স্থিতিশীল পরিবেশ তৈরিতে সহায়ক হবে। এর মাধ্যমেই তাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটবে।’

চীনা বিবৃতিতে বলা হয়, ভারত-পাকিস্তান দুই দেশই দক্ষিণ এশিয়ার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। তাদের উচিৎ পরস্পরের সঙ্গে ভালো সম্পর্ক এবং ভালো যোগাযোগ রাখা। এতে আঞ্চলিক স্থিতিশীলতা বজায় থাকবে।

মুখপাত্র লু কাং বলেন, সন্ত্রাসবাদ বিশ্বজুড়েই একটি সমস্যা। এটি দমনে আন্তর্জাতিক সহযোগিতামূলক সম্পর্ক নিশ্চিত করা জরুরি। দেশগুলোর উচিৎ আন্তর্জাতিক সহযোগিতার অনুকূল পরিবেশ বজায় রাখা।

ভারত ও পাকিস্তানকে সর্বোচ্চ ধৈর্য ধরার আহবান জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ)। ইইউ-এর মুখপাত্র মাজা কোসিজানসিচ বলেন, ‘আমরা দুই দেশের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছি। আমরা বিশ্বাস করি, আরও উত্তেজনা এড়াতে দুই পক্ষ সর্বোচ্চ সংযম প্রদর্শন করবে।’

ভারত ও পাকিস্তানকে সংযত হতে বলেছে অস্ট্রেলিয়াও। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সংযম, শান্তি ও নিরাপত্তা বিপন্ন করে, এমন কোনও কিছু থেকে উভয় দেশের বিরত থাকা উচিৎ। শান্তিপূর্ণভাবে সব সমস্যা সমাধানের জন্য আলোচনায় সম্পৃক্ত হওয়ার আহবান জানাচ্ছে অস্ট্রেলিয়ার সরকার।

আপনার মতামত লিখুন :

কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ড: পাকিস্তানকে রায় পুনর্বিবেচনার নির্দেশ

কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ড: পাকিস্তানকে রায় পুনর্বিবেচনার নির্দেশ
ভারতের সাবেক নৌসেনা কুলভূষণ যাদব

গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে ভারতের সাবেক নৌসেনা কুলভূষণ যাদবকে পাকিস্তানের সামরিক আদালতে দেওয়া মৃত্যুদণ্ডের রায় পুনর্বিবেচনা করতে বলেছে আন্তর্জাতিক আদালত।

বুধবার (১৭ জুলাই) হেগের এই আদালতের ১৬ বিচারকের প্যানেল সংখ্যাগরিষ্ঠ বিচারকের মতামতের ভিত্তিতে এ রায় ঘোষণা করে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম।

আন্তর্জাতিক আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, রায় পুনর্বিবেচনা না করা পর্যন্ত কুলভূষণ যাদবের মৃত্যুদণ্ড স্থগিত থাকবে। পাশাপাশি তার সঙ্গে দেখা করার সুযোগ দিতে হবে ভারতীয় কূটনীতিকদের।

ভারতের অভিযোগের সঙ্গে একমত হয়ে আন্তর্জাতিক আদালত জানায়, সামরিক আদালতে সাজাপ্রাপ্ত নৌসেনাকে কনস্যুলার অ্যাক্সেস না দিয়ে ভিয়েনা চুক্তির শর্ত লঙ্ঘন করেছে পাকিস্তান।

রায়ে আরও বলা হয়, কুলভূষণ যাদবের সঙ্গে যোগাযোগ করা, আটক আবস্থায় তার সঙ্গে দেখা করা এবং তার জন্য আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার অধিকার থেকে ভারতকে বঞ্চিত করেছে পাকিস্তান।

মোট ১৬ জনের রায়ের মধ্যে ৫ জনের রায়ই ভারতের পক্ষে যায়। মাত্র একজন বিচারপতি ছিলেন পাকিস্তানের। এমনকি, চীনের বিচারপতিও ভারতের পক্ষেই রায় দেন।

ভারতীয় নৌবাহিনীর সাবেক কর্মকর্তা কুলভূষণকে ২০১৬ সালের মার্চ মাসে গ্রেপ্তার করে পাকিস্তানের নিরাপত্তা বাহিনী। বেলুচিস্তানে বিচ্ছিন্নতাবাদী বিদ্রোহে মদদ দেওয়া এবং ভারতের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে।

ভারতের দাবি, কুলভূষণ তার ব্যবসার কাজে ইরানে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে তাকে অপহরণ করে পাকিস্তানে নিয়ে গিয়ে মিথ্যা অভিযোগে ফাঁসানো হয়।

পাকিস্তানের সামরিক আদালত ২০১৭ সালের এপ্রিলে কুলভূষণকে মৃত্যুদণ্ড দিলে সেই রায়ের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতে যায় ভারত।

সূত্র: এনডিটিভি

মার্কিন আদালতে মেক্সিকান মাদক সম্রাটের যাবজ্জীবন

মার্কিন আদালতে মেক্সিকান মাদক সম্রাটের যাবজ্জীবন
মাদক সম্রাট এল ছাপো গুজম্যান, ছবি: সংগৃহীত

মেক্সিকান মাদক সম্রাট এল ছাপো গুজম্যানকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের আদালত। এছাড়া ৩০ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডও দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) মাদক পাচার, মানি লন্ডারিং সহ ১০ মামলায় আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এই রায় দেন নিউ ইয়র্কের ফেডারেল আদালত।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি’র এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, মাদক মামলায় যাবজ্জীবন ও বেআইনিভাবে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের দায়ে তাঁকে আরও ৩০ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। এছাড়া তার ১২.৬ বিলিয়ন সমপরিমাণ সম্পদ বাজেয়াপ্ত ঘোষণা করা হয়।

এর আগে ২০১৫ সালের মেক্সিকোর কারাগারে আটককৃত অবস্থায় একটি টানেল দিয়ে সে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে তাঁকে ফের গ্রেফতার করা হয়। এরপর ২০১৭ সালে তাকে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এর আগে এল ছাপো যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি মাদক সরবরাহকারী সিনালোয়া কারটেলের প্রধান ছিলেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র