Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

মাদারীপুরের অহিদুজ্জামান হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন

মাদারীপুরের অহিদুজ্জামান হত্যা মামলায় ৪ জনের যাবজ্জীবন
আদালতে হাজির করা হয় আসামিদের, ছবি: বার্তা২৪.কম
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

মাদারীপুরের সরকারি নাজিম উদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের এমএ শেষ বর্ষের ছাত্র অহিদুজ্জামান হত্যা মামলায় চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল।

বুধবার (১৯ জুন) ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-৩ এর বিচারক মনির কামাল এ রায় ঘোষণা করেন।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- লেনিন বেপারী, শাহাবুদ্দিন দর্জি, রেজাউল বেপারী ও এমএম ফয়সাল আহমেদ। তাদের ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডও করা হয়েছে। এ অর্থ অনাদায়ে আরও দুই মাস করে কারাদণ্ডের আদেশ দেওয়া হয়েছে।

অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ না হওয়ায় মহিউদ্দিন দর্জি নামে এক আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষে সরকারি নাজিম উদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ প্যানেল থেকে কমনরুম সেক্রেটারি পদে নির্বাচিত হন অহিদুজ্জামান। তিনি ইতালি যাওয়ার জন্য মহিউদ্দিন ও রেজাউলকে ১০ লাখ টাকা দেন। কিন্তু ইতালি পাঠাতে না পারায় পরে তিনি সে টাকা ফেরত চান। এরপর ২০১৩ সালের ৬ মার্চ মানিকগঞ্জ জেলার সিংগাইর থানাধীন কাশিমপুর সাকিনস্থ চর দিঘলিয়া শাহ বেপারীর ভুট্টা ক্ষেতে অহিদুজ্জামানের লাশ পাওয়া যায়। ওই ঘটনায় সিংগাইর থানার সেই সময়ের উপপরিদর্শক (এসআই) আ. ছালাম বাদী হয়ে সিংগাইর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরের বছরের ২২ নভেম্বর পুলিশের গোয়েন্দা শাখার সেই সময়ের পরিদর্শক মদন মোহন বণিক ছয়জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। মামলার বিচারকাজ চলাকালে ৪২ জন সাক্ষীর মধ্যে ২২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন ট্রাইব্যুনাল।

আসামিপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন সংশ্লিষ্ট ট্রাইব্যুনালের স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর মো. মাহবুবুর রহমান। তাকে সহায়তা করেন অ্যাডভোকেট মোশারফ হোসেন কাজল। আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মাহবুব আহমেদ, শাহাবুদ্দিন মোল্লা ও অলিউর রহমান।

আপনার মতামত লিখুন :

আপাতত বহাল রাজীবের ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের রায়

আপাতত বহাল রাজীবের ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণের রায়
রাজীব হোসেন

রাজধানীতে দুই বাসের রেষারেষিতে হাত হারানোর পর মারা যাওয়া তিতুমীর কলেজের স্নাতকোত্তর ছাত্র রাজীবের হোসেনের দুই ভাইকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার হাইকোর্টের রায় স্থগিত করেননি আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত। ফলে আপাতত হাইকোর্টের রায় বহাল থাকছে।

হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে স্বজন পরিবহনের করা আবেদনের শুনানি শেষে বুধবার (১৭ জুলাই)  আপিল বিভাগের চেম্বার জজ বিচারপতি মো. নুরুজ্জামান আবেদনটি আগামী ১৩ অক্টোবর নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির জন্য দিন নির্ধারণ করেন।

আদালতে স্বজন পরিবহনের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শফিকুল ইসলাম বাবুল। আর রাজীবের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল।

আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজল বলেন, ‘রাজীবের দুই ভাইকে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্ট যে রায় দিয়েছিলেন তা স্থগিত চেয়ে চেম্বার জজ আদালতে আবেদন করেছে স্বজন পরিবহন। তবে চেম্বার আদালত কোন স্থগিতাদেশ দেননি। ফলে আপাতত হাইকোর্টেও রায়র বহাল রয়েছে।,

ক্ষতিপূরণ প্রশ্নে জারি করা রুল গত ২০ জুন নিষ্পত্তি করে বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলম সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চ রাজীবের দুই ভাই মেহেদী হাসান ও আব্দুল্লাহ হৃদয়কে দুই মাসের মধ্যে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার রায় দেন। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশন (বিআরটিসি) ও স্বজন পরিবহনকে ২৫ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে বলা হয় রায়ে। যাত্রী নিরাপত্তায় সাতদফা নির্দেশনা দেন হাইকোর্ট।

২০১৮ সালের ৩ এপ্রিল রাজধানীর কারওয়ান বাজারের সার্ক ফোয়ারার সামনে বিআরটিসি ও স্বজন পরিবহনের বাসের চাপায় রাজীব হোসেন ডান হাত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান তিনি।

রাজীবের বিচ্ছিন্ন হাতের প্রতিবেদন গণমাধ্যমে প্রকাশ হলে পরদিন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস কাজলের এক আবেদনের প্রেক্ষিতে রাজীবের পরিবারকে ১ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার অন্তবর্তীকালীন আদেশ এবং রুল জারি করেন হাইকোর্ট। এ রুল নিষ্পত্তি করে ৫০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেওয়ার রায় দেয়া হয়।

সিরাজগঞ্জে ট্রেন-মাইক্রোবাস সংঘর্ষ: নিহতদের ক্ষতিপূরণ দিতে নোটিশ

সিরাজগঞ্জে ট্রেন-মাইক্রোবাস সংঘর্ষ: নিহতদের ক্ষতিপূরণ দিতে নোটিশ
সিরাজগঞ্জে ট্রেনের ধাক্কায় মাইক্রোবাসের ১১ যাত্রী নিহত, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় ট্রেন দুর্ঘটনায় বর-কনেসহ নিহত ১১ জনের প্রত্যেকের পরিবারকে এক কোটি টাকা করে ক্ষতিপূরণ দিতে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আহতদের প্রত্যেকের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা করে ক্ষতিপূরণও দিতে বলা হয়েছে নোটিশে।

নোটিশ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা না হলে উচ্চ আদালতে আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়েছে।

রেল সচিব, স্থানীয় সরকার সচিব, রেলওয়ের মহাপরিচালক, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) প্রধান প্রকৌশলীর প্রতি এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

বুধবার (১৭ জুলাই) মানবাধিকার সংগঠন ল অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে নোটিশটি পাঠিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হুমায়ুন কবির পল্লব।

নোটিশে গত ১৫ জুলাইয়ের ঘটনায় ক্ষতিপূরণ চাওয়া সহ নতুন করে রেলের লেভেল ক্রসিং নির্মাণ, অবৈধ লেভেল ক্রসিং বন্ধ, রেলের গেটম্যানদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং ট্রেনের ছাদে যাত্রী তোলা বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৫ জুলাই সন্ধ্যায় সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী পদ্মা ট্রেনের সঙ্গে একটি বিয়ের মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে বর-কনেসহ ১১ জন নিহত এবং ৩ জন আহত হন।

আরও পড়ুন: সিরাজগঞ্জে ট্রেনের ধাক্কায় মাইক্রোবাসের ৯ যাত্রী নিহত

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র