Barta24

রোববার, ২১ জুলাই ২০১৯, ৬ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ঊর্ধ্বমুখী পুঁজিবাজারের সূচক

ঊর্ধ্বমুখী পুঁজিবাজারের সূচক
ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবস বুধবার (১৯ জুন) সূচক বেড়ে চলছে লেনদেন।

বেলা ১১টা পর্যন্ত ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ১৭ পয়েন্ট, তবে সিএসইর প্রধান সূচক সিএসসিএক্স বেড়েছে ৪৩ পয়েন্ট।

এছাড়াও একই সময়ে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে ৯৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকা এবং সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২ কোটি ২৪ লাখ টাকা।

ডিএসই ও সিএসইর ওয়েবসাইট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসই

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে সূচক বাড়ে। লেনদেন শুরু হয় সাড়ে ১০টায়, শুরুতেই সূচক বেড়ে যায়। প্রথম ১০ মিনিটেই ডিএসইএক্স সূচক বাড়ে ১৭ পয়েন্ট। এরপর থেকে সূচক বাড়ার প্রবণতা বাড়তে থাকে। বেলা ১০টা ৫০ মিনিটের পর সূচক ২৩ পয়েন্ট বাড়ে যায়। বেলা ১০টা ৫৫ মিনিটে সূচক ২০ পয়েন্ট বাড়ে। আর বেলা ১১টায় সূচক ১৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়ায় ৫ হাজার ৪১৮ পয়েন্টে।

অন্যদিকে, ডিএসই-৩০ সূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ৮৯৮ পয়েন্টে এবং ডিএসই শরিয়াহসূচক ৩ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করছে এক হাজার ২৩৫ পয়েন্টে।

এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৯৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ড। একই সময়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ১৭০টির, কমেছে ৭১টির এবং অপরিবর্তীত রয়েছে ৫১টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে দাম বৃদ্ধি পাওয়া শীর্ষ ১০ কোম্পানির তালিকায় আছে-ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, নূরানী ইন্ডাস্ট্রিজ, ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স, এশিয়া ইন্স্যুরেন্স, পিপলস ইন্স্যুরেন্স, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, ড্রাগন সোয়েটার, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং এবং গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স।

সিএসই

অন্যদিকে, একই সময়ে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ সূচক (সিএসইএক্স) ৪৩ পয়েন্ট বেড়ে ১০ হাজার ৮৮ পয়েন্টে, সিএসই-৩০ সূচক ১১৯ পয়েন্ট বেড়ে ১৪ হাজার ৫১২ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ৭০ পয়েন্ট বেড়ে ১৬ হাজার ৬৪৫ পয়েন্টে অবস্থান করে।

এদিন বেলা ১১টা পর্যন্ত সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ২ কোটি ২৪ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিট।

একই সময়ে দাম বাড়ার ভিত্তিতের সিএসইর শীর্ষ কোম্পানিগুলো হলো- ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স, ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স, কনফিডেন্স সিমেন্ট, ফার্স্ট ফাইন্যান্স, পিপলসি ইন্স্যুরেন্স, কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স, ইন্টারন্যাশনাল লিজিং ফাইন্যান্স, প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, রূপালী ব্যাংক এবং প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স।

আপনার মতামত লিখুন :

নয়-ছয় সুদ হার বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ব্যাংকের চাপ নেই

নয়-ছয় সুদ হার বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ব্যাংকের চাপ নেই
ছবি: সংগৃহীত

আমানত সংগ্রহ এবং ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে নয়-ছয় সুদ হার বাস্তবায়নে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে চাপ নেই বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) চেয়ারম্যান ও ঢাকা ব্যাংকের এমডি সৈয়দ মাহবুবুর রহমান।

রোববার (২১ জুলাই) বিকেলে ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালকদের সংগঠন এবিবির সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন তিনি।

মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘শুধুমাত্র ঘোষণা দিয়ে নয়-ছয় সুদ হার বাস্তবায়ন করা সম্ভব নয়। অনেকগুলো বিষয় আছে। তবে আশা করছি, ভবিষ্যতে এটি বাস্তবায়ন হবে। কারণ আমাদের বাণিজ্য ঘাটতি কমতে শুরু করেছে এবং রফতানি বাড়ছে। এক্ষেত্রে কিছুটা সুবিধা পাচ্ছে ব্যাংক। আশা করি, আগামী জুন প্রান্তিকে এ উদ্যোগের আরও কিছুটা বাস্তবায়ন এবং খেলাপি ঋণের হার ১০ শতাংশের নিচে নেমে আসবে।’

‘শুধু একটি বিষয় নয়, এখানে বিস্তর আলোচনা হয়েছে। কীভাবে গ্রামীণ পর্যায়ে ক্ষুদ্র ও মাঝারি ঋণ বাড়ানো যায়, সেই চেষ্টাও করছে ব্যাংক খাত। আমাদের দেশের খেলাপি ঋণ মার্চ প্রান্তিকে অনেকটা বেড়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংকের পরামর্শ অনুযায়ী আগামী প্রান্তিকে কমিয়ে আনার ওপর গুরুত্ব দিচ্ছি। আমরা আশা করছি, এ খেলাপি ঋণ জুন প্রান্তিকে অন্তত ১০ শতাংশের নিচে নেমে আসবে,’ যোগ করেন তিনি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক সিরাজুল ইসলাম জানান, বাংলাদেশ ব্যাংক এবং পুরো ব্যাংক খাত মিলে নয়-ছয় সুদ হার বাস্তবায়নের চেষ্টা চলছে।

সরকারি ব্যাংকগুলো এটা বাস্তবায়ন করলেও বেসরকারি ব্যাংকগুলো কেন পারছে না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সব বেসরকারি ব্যাংকই যে ৯ শতাংশের ওপরে সুদ নিচ্ছে তা নয়। কিছু কিছু বেসরকারি ব্যাংকও এটা বাস্তবায়ন করেছে। তবে সবগুলো ব্যাংকে এ সুদ হার বাস্তবায়নে কিছুটা সময় প্রয়োজন। আমরা সবাই মিলে সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টাই করছি।’

আইডিআরএ’র বর্ষ সেরা কর্মকর্তা মারুফ, কর্মচারী খায়রুল

আইডিআরএ’র বর্ষ সেরা কর্মকর্তা মারুফ, কর্মচারী খায়রুল
কামরুল হক মারুফ ও খায়রুল ইসলাম, ছবি: সংগৃহীত

বিদায়ী অর্থবছরের দেশের বিমা কোম্পানিগুলোর নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) বর্ষ সেরা কর্মকর্তা নির্বাচিত হয়েছেন পরিচালক (উপ-সচিব) মো. কামরুল হক মারুফ। আর বর্ষ সেরা কর্মচারী নির্বাচিত হয়েছেন অফিস সহকারী মো. খায়রুল ইসলাম।

রোববার (২১জুলাই) আইডিআরএ’র সম্মেলন কক্ষে তাদের পুরুস্কার হিসেবে সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। ‘শুদ্ধাচার পুরুস্কার প্রদান নীতিমালা ২০১৭’ অনুযায়ী ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের জন্য নির্বাচিত হয়েছেন।

https://img.imageboss.me/width/700/quality:100/https://img.barta24.com/uploads/news/2019/Jul/21/1563714453084.jpg

আইডিআরএর চেয়ারম্যান মো. শফিকুর রহমান পাটোয়ারীর হাত থেকে কামরুল হক মারুফ এবং খায়রুল ইসলাম পুরুস্কার গ্রহণ করেন।

এসময় আইডিআরএ’র সদস্য গকুল চাঁদ দাস ও মোশাররফ হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তরা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন পরিচালক(উপ-পরিচালক) আবুল কাশেম ফজলুর হক।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র