Barta24

শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

বাংলাদেশ ব্যাংকে ৮০ লাখ প্রবাসীদের অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে

বাংলাদেশ ব্যাংকে ৮০ লাখ প্রবাসীদের অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে
বাংলাদেশ ব্যাংক, ছবি: সংগৃহীত
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

সব প্রবাসীদের রেমিট্যান্স প্রণোদনার আওতায় আনতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮০ লাখ ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার সিদ্ধান্তকে বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছে অর্থ মন্ত্রণালয়। জাতীয় সংসদের প্রাক বাজেটের মন্ত্রিসভার বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক এ ব্যাপারে যাতে শিগগিরই কাজ শুরু করে। অর্থমন্ত্রণালয়ের ব্যাংক আর্থিক বিভাগকে এ বিষয়ে যথাযোগ্য ব্যবস্থা নিতে বলেছে।

২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে প্রবাসী বাংলাদেশ কর্তৃক প্রদত্ত অর্থের ওপর সরকার ২ শতাংশ হারে বিশেষ প্রণোদনা দিয়েছে। দেশের বিভিন্ন এলাকার এই প্রবাসীদের অ্যাকাউন্টের আওতায় আনা কষ্টকর হবে, বাংলাদেশে ব্যাংকে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম বার্তা২৪.কমকে বলেন, ‘৮০ লাখ মানুষকে ব্যাংকের আওতায় আনা খুব বেশি কষ্টকর হবে না। বাস্তবায়ন করা যাবে।’

কতোদিন লাগতে পারে প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘দিনক্ষণ বলা যাবে না। তবে আমরা বাস্তবায়ন করতে পারব।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের বিভাগীয় শাখাগুলো এ নিয়ে কাজ করছে। নতুন করে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হবে।’

কেবিনেট সূত্র জানায়, ৮০ লাখ প্রবাসী রেমিট্যান্সের আওতায় আসলে সরকার অতিরিক্ত ৩ হাজার ৩৬ কোটি টাকা রাজস্ব আয় পাবে। ২০১৯-২০ অর্থ বছরের বাজেট বক্তৃতায় প্রবাসীদের ২ শতাংশ প্রণোদনার জন্য ৩ হাজার ৩৬ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে এক কোটিরও বেশি বাংলাদেশি। তাদের পাঠানো রেমিট্যান্সে ঘুরছে দেশের অর্থনীতির চাকা। বৈধ চ্যানেলের পাশাপাশি অবৈধ তথা হুন্ডির মাধ্যমেও বিপুল পরিমাণ অর্থ বাংলাদেশে পাঠান প্রবাসীরা। তবে হুন্ডির মাধ্যমে যাতে প্রবাসীরা আর অর্থ না পাঠান সেজন্য নতুন অর্থবছরে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা দেয়ার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বৃহস্পতিবার(১৩ জুন) জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের যে বাজেট তিনি উপস্থাপন করেছেন, সেখানে এ প্রস্তাব আসে। বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো রেমিট্যান্সে এ ধরনের প্রণোদনা দেয়া হবে।

এই বাজেট পাস হলে আগামী ১ জুলাই থেকে প্রবাসীরা ১০০ টাকা দেশে পাঠালে ২ টাকা প্রণোদনা পাবেন। আর এ জন্য নতুন বাজেটে ৩ হাজার ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী।

বাজেট বক্তৃতায় মুস্তফা কামাল বলেন, ‘রেমিট্যান্স প্রেরণে বর্ধিত আয় লাঘব করা এবং বৈধ পথে অর্থ প্রেরণ উৎসাহিত করার জন্য প্রবাসী বাংলাদেশিদের প্রেরিত অর্থের ওপর আগামী অর্থবছর থেকে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনা প্রদান করা হবে।’ এর ফলে বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহ উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাবে এবং হুন্ডি ব্যবসা নিরুৎসাহিত হবে।

এ ছাড়া প্রবাসী কর্মীদের বীমা সুবিধায় আনার কথাও বলা হয়েছে প্রস্তাবিত বাজেটে। প্রবাসী বাংলাদেশি কর্মীদের জন্য বীমা সুবিধা না থাকায় দুর্ঘটনা ও নানাবিধ কারণে প্রায়ই তাদের পরিবার আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। এ জন্য প্রবাসী কর্মীদের বীমা সুবিধায় আনতে ২০১৯-২০ অর্থবছরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন অর্থমন্ত্রী।

আপনার মতামত লিখুন :

বিনিয়োগকারীদের পুঁজি নেই আরও ৮ হাজার কোটি টাকা

বিনিয়োগকারীদের পুঁজি নেই আরও ৮ হাজার কোটি টাকা
ছবি: সংগৃহীত

বেশির ভাগ দিন দরপতনের মধ্য দিয়ে নতুন আরও এক সপ্তাহ পার করল দেশের পুঁজিবাজার। আলোচিত সপ্তাহে (১৪ জুলাই থেকে ১৮ জুলাই) তিন দিন সূচকের উত্থান আর দু’দিন পতন হয়েছে।

ফলে দুই পুঁজিবাজারেই সূচক লেনদেন ও বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমেছে। আর তাতে নতুন করে বিনিয়োগকারীদের পুঁজি অর্থাৎ বাজার মূলধনও কমেছে প্রায় আট হাজার কোটি টাকা।

এর মধ্যে প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বিনিয়োগকারীদের পুঁজি কমেছে চার হাজার ৩২৭ কোটি ৪৩ লাখ আট হাজার ৫৩১ টাকা। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছে তিন হাজার ৬১৬ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

এর আগের সপ্তাহের টানা পাঁচ দিন সূচক পতনের মধ্য দিয়ে লেনদেন হয়েছিল। সেই সময় বিনিয়োগকারীদের মূলধন কমেছিল সাড়ে ২১ হাজার কোটি টাকা।

বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুঁজিবাজার ভালো হবে, বিনিয়োগকারীদের এ প্রত্যাশার ছিটেফোঁটাও পূরণ হচ্ছে না। বরং ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাজেট পাসের পর থেকে আবার নগদ লভ্যাংশ দেওয়ার পরিবর্তে কোম্পানিগুলো আগামীতে ‘নো ডিভিডেন্ট’ ঘোষণা করবে—এমন গুজব ও ব্যাংক এবং আর্থিক খাতের দূরাবস্থার খবরে হতাশা বিরাজ করছে পুঁজিবাজারে।

পাশাপাশি সুশাসনের অভাবে বাজারে পুঁজিবাজারে দরপতন অব্যাহত রয়েছে বলেও অভিযোগ বিনিয়োগকারীদের। এছাড়াও গ্রামীণফোনের দেনা-পাওনা নিয়ে বিটিআরসির সঙ্গে দ্বন্দ্ব এবং পিপলস লিজিং কোম্পানির অবসায়ন ঘোষণায় নতুন করে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ও তারল্য সঙ্কট তৈরি হয়েছে। পুঁজি ফিরে পাওয়ার পরিবর্তে নতুন করে পৌনে ২৭ লাখ বিনিয়োগকারীদের প্রায় আট হাজার কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

ফলে নতুন করে অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়েছে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। নতুন করে সৃষ্ট দরপতনের ফলে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের হাহাকার বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই তারা দরপতনের প্রতিবাদে সপ্তাহ জুড়ে মতিঝিলের রাস্তায় মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর দফতরে ১৫ দফার একটি স্মারকলিপিও দিয়েছে।

বিদায়ী সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের সপ্তাহের চেয়ে ৯১ পয়েন্ট কমে পাঁচ হাজার ১৩০ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএস-৩০ সূচক ২৮ পয়েন্ট কমে এক হাজার ৮২৯ পয়েন্ট এবং ডিএসইএস সূচক কমে ১৮ পয়েন্ট কমে এক হাজার ১৭৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে ৬৬ কোম্পানির শেয়ারের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে, কমেছে ২৭৩টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৫টি কোম্পানির শেয়ারের দাম। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ৬০টির, কমেছে ২৮১টির আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১৩ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

সূচক ও বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম কমার পাশাপাশি বিদায়ী সপ্তাহের চেয়ে লেনদেন ৪৬৭ কোটি টাকা কমেছে। গত সপ্তাহে ডিএসইতে মোট লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৬৩৬ কোটি ৭৭ লাখ ২৮ হাজার ৭৯৬ টাকা। এর আগের সপ্তাহে লেনদেন হয়েছিল দুই হাজার ১১২ কোটি ৮৭ লাখ ৫৪ হাজার ৩৮ টাকা।

সিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানির মধ্যে দাম বেড়েছে ৬৯টির, কমেছে ২৩৪টির, আর অপরিবর্তিত রয়েছে ১১ কোম্পানির শেয়ারের দাম। তাতে সিএসইর প্রধান সূচক ২৪৮ পয়েন্ট কমে ১৫ হাজার ৭২৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর তাতে গত সপ্তাহে লেনদেন হয়েছে ৮৯ কোটি ৪৭ লাখ ১৫ হাজার ৯৫২ টাকা।

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না বিমা কোম্পানি
ছবি: সংগৃহীত

এজেন্টদের ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন দেবে না সাধারণ বিমা কোম্পানিগুলো।

বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির চেয়ারম্যান ও মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তরা বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের বৈঠকে (আইডিআরএ) অঙ্গীকার করেছেন।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান পাটোয়ারির সভাপতিত্বে বৈঠকে আইডিআরএ’র সদস্য, পরিচালক এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ মাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্সে অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট শেখ কবির হোসেনসহ কোম্পানির চেয়ারম্যান, এমডি এবং মুখ্য নির্বাহীরা ১৫ শতাংশের অধিক কমিশন বন্ধে দৃঢ় প্রত্যয় এবং কর্তপক্ষের সার্কুলারের সাথে পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেছেন।

সভায় শেখ কবির হোসেন আইডিআরএ’র নির্দেশনা যথাযথভাবে বাস্তবায়নের জন্য বিমা কোম্পানিগুলোর চেয়ারম্যান ও নির্বাহীদের আন্তরিকতা প্রদর্শনে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানান। তিনি বলেন, ‘এখন থেকে কোনো নন-লাইফ বিমাকারী ১৫ শতাংশের বেশি কমিশন প্রদান করে ব্যবসা করবে না।’

সভায় আইডিআরএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘সকলের এ কার‌্যকর এবং সম্মিলিত উদ্যোগের ফলে বিমা শৃঙ্খলা ও সুষ্ঠুবাজার ব্যবস্থা গড়ে উঠবে।’

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র