Barta24

বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০১৯, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

আর নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রয়োজন নেই

আর নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রয়োজন নেই
ছবি: সংগৃহীত
সেরাজুল ইসলাম সিরাজ
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
বার্তা২৪.কম
ঢাকা


  • Font increase
  • Font Decrease

২০৩০ সালের চাহিদা পূরণে নতুন করে আর বিদ্যুৎ প্রকল্প হাতে নেওয়ার প্রয়োজন নেই। বিদ্যুৎ বিভাগের উন্নয়ন ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান পাওয়ার সেলের এক প্রতিবেদনে এমন দাবি করা হয়েছে।

পাওয়ার সেল মনে করছে, ২০৩০ সালের চাহিদা পূরণের জন্য নতুন করে আর বিদ্যুৎ প্রকল্প করার প্রয়োজন নেই। নির্মাণাধীন প্রকল্প, চুক্তি স্বাক্ষরিত ও এলওআই (আগ্রহপত্র) ইস্যু করা হয়েছে- এমন প্রকল্পগুলোকে বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, সংশোধিত পাওয়ার সিস্টেম মাস্টার প্ল্যান (২০১৬) অনুযায়ী, ২০৩০ সালে বিদ্যুতের চাহিদার প্রাক্কলন করা হয়েছে ৩৭ হাজার ২৪ মেগাওয়াট, আর যদি সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি ব্যবহার (ইইঅ্যান্ডসি) নিশ্চিত করা যায়, তাহলে চাহিদা হবে ১৯ হাজার ৬১৯ মেগাওয়াট।

অন্যদিকে, বর্তমানে স্থাপিত বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোর নেট উৎপাদন ক্ষমতা রয়েছে (২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত) ১৬ হাজার ৯১৪ মেগাওয়াট। পর্যায়ক্রমে বেশকিছু বিদ্যুৎ কেন্দ্র অবসরে যাবে। এতে করে ২০৩০ সালে পুরনো বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে ৯ হাজার ২৮৯ মেগাওয়াট।

পাইপলাইনে থাকা বিদ্যুৎ প্রকল্পগুলো থেকে ২০৩০ সালে নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে আসবে ৩৪ হাজার ৭২৩ মেগাওয়াট। একই সময়ে বিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা রয়েছে ২ হাজার ৩৩৬ মেগাওয়াট। আমদানি, নতুন ও পুরনো মিলে মোট উৎপাদন ক্ষমতা দাঁড়াবে ৪৬ হাজার ৩৪৮ মেগাওয়াট। আর ঠিক সেই সময়ে সাশ্রয়ী যন্ত্রপাতি ব্যবহার নিশ্চিত করা গেলে চাহিদা দাঁড়াবে ২৯ হাজার ৬১৯ মেগাওয়াট। অর্থাৎ বর্ধিত উৎপাদন ক্ষমতা হবে ১৬ হাজার ৭১৯ মেগাওয়াট।

অর্থাৎ প্রাক্কলন অনুযায়ী সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ২০৩০ সালে চাহিদার তুলনায় প্রায় ৫০ শতাংশ বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদিত হবে। এটাকে অনেকটা ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবেই দেখা হচ্ছে। এতো বর্ধিত বিদ্যুৎ বোঝা হয়ে দাঁড়াতে পারে। বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাতের সবচেয়ে বড় বিপদ হচ্ছে, দিন-রাত ও পিক-অফপিকের ফারাক। এ কারণে বসিয়ে রেখে রেখে অনেক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ক্যাপাসিটি চার্জ দিতে হচ্ছে। শীত মৌসুমে এই চিত্র ভয়াবহ।

Graf

যেমন, রোববার (১২ মে) সকাল ৭টায় বিদ্যুতের চাহিদা ছিল ৮ হাজার ৫২৭ মেগাওয়াট। আর রাত ৮টায় গিয়ে সেই চাহিদা দাঁড়ায় প্রায় সাড়ে ১২ হাজার মেগাওয়াটে। অর্থাৎ দিন-রাতের ব্যবধান প্রায় ৪ হাজার মেগাওয়াটের মতো পার্থক্য। সেচ ও শীত মৌসুমে এই ব্যবধান আরও বেড়ে যায়। যে কারণে বসিয়ে রেখে ভাড়া পরিশোধ করায় পিডিবির কাঁধে দিন দিন ঘাটতির বোঝা বাড়ছে।

পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইন বার্তা২৪.কমকে বলেন, একটি কমিটি করা হয়েছিল, কমিটি মনে করছে, পাইপলাইনে থাকা প্রকল্পগুলোই যথেষ্ট। স্বাভাবিকভাবে চাহিদার তুলনায় ১৫ থেকে ২০ শতাংশ উৎপাদন ক্ষমতা বেশি রাখতে হয়। নিয়মিত সার্ভিসিং করতে হয়, আবার হঠাৎ বিকল হয়ে যেতে পারে এ কারণে।

প্রস্তাবিত প্রকল্পগুলো যথাযথভাবে হলে আমাদের প্রক্ষেপিত চাহিদার তুলনায় অনেক বেশি উৎপাদন ক্ষমতা অর্জিত হবে ২০৩০ সালে। সে কারণে নতুন করে আর বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের চুক্তির প্রয়োজনীয়তা কমিটি দেখছে না বলে জানান মোহাম্মদ হোসাইন।

যদি পাওয়ার সেলের এই হিসেবেকে অনেকেই কাজির গরুর সঙ্গে তুলনা করেছেন। তারা বলেছেন, চুক্তি ও এলওআই ইস্যু করা মানেই বিদ্যুৎ কেন্দ্র হয়ে গেল এমনটা ভাবার সুযোগ নেই। কারণ, অনেকের ব্যর্থতার হিসেবও চোখের সামনে জ্বলজ্বল করছে।

২০১২ সালে প্রথম ওরিয়ন গ্রুপের সঙ্গে কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের চুক্তি করে সরকার। এগুলো হচ্ছে মাওয়া ৫২২ মেগাওয়াট, খুলনা ২৮২ ও চট্টগ্রাম ২৮২ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র। খুলনা ও চট্টগ্রাম বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ২০১৬ সালের মার্চে উৎপাদন শুরু করার কথা ছিল। আর মাওয়া ৫২২ মেগাওয়াট কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ২০১৬ সালের জুলাই মাসে উৎপাদনে যাওয়ার কথা।

কিন্তু উৎপাদনে যাওয়া তো দূরের কথা, প্রায় সাড়ে ৬ বছর পেরিয়ে গেলেও কাজই শুরু করতে পারেনি ওরিয়ন গ্রুপ। দ্বিতীয় দফায় আরও তিনটি বিদ্যুৎ কেন্দ্র ঢাকা-২৮২ মেগাওয়াট, চট্টগ্রাম ২৮২ ও ঢাকা ৬৩৫ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের এলওআই (আগ্রহপত্র) ইস্যু করা হয় ২০১৩ সালে। সেগুলোর অগ্রগতিও শূন্য শতাংশ। দফায় দফায় শুধু সময় বাড়ানো হয়েছে। কিন্তু এখনও পর‌্যন্ত অর্থায়নের বিষয়টি নিশ্চিত করতে পারেনি ওরিয়ন।

এ ব্যর্থতার কারণে গত বছরের ১৭ অক্টোবর বিদ্যুৎ বিভাগের এক উচ্চ পর‌্যায়ের সভায় ভর্ৎসনা করা হয় ওরিয়ন গ্রুপকে। সেখানে বলা হয়, চলতি মাসের (অক্টোবর) পর আর যদি সময় বাড়ানো হয়, তাহলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে চুক্তি বাতিল হয়ে যাবে। এখানে বিদ্যুৎ বিভাগ যতটা গর্জেছে ততটা বর্ষণ দেখা যায়নি।

সরকারের মাস্টার প্ল্যান অনুযায়ী, ২০১৬ ও ২০১৭ সালে জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হওয়ার কথা ছিল এসব কেন্দ্রের বিদ্যুৎ। কিন্তু উৎপাদনে যেতে না পারায় সরকারকেও অনেকটা বেকায়দায় পড়তে হয়। বাধ্য হয়ে বহুল সমালোচিত রেন্টাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নতুন করে নবায়ন করতে হয়। এর আগে সামিট গ্রুপ বিবিয়ানায় একটি গ্যাস ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনে এভাবে ব্যর্থ হয়।

আপনার মতামত লিখুন :

পুঁজিবাজারে সূচকের ওঠানামা

পুঁজিবাজারে সূচকের ওঠানামা
ছবি: প্রতীকী

দেশের প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সপ্তাহের পঞ্চম ও শেষ কার্যদিবস বৃহস্পতিবার (১৮ জুলাই) সূচকের ওঠানামা প্রবণতায় লেনদেন চলছে। এদিন বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ডিএসই’র প্রধান সূচক ডিএসইএক্স বেড়েছে ১ পয়েন্ট এবং সিএসইর প্রধান সূচক সিএসসিএক্স কমেছে ৮ পয়েন্ট।

এছাড়াও একই সময়ে ডিএসইতে ৮৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকার মোট লেনদেন হয়েছে এবং সিএসইতে ৩ কোটি ৫২ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে।

ডিএসই ও সিএসই’র ওয়েবসাইট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

ডিএসই

এদিন ডিএসইতে লেনদেনের শুরুতে সূচক বাড়ে। লেনদেনের শুরু হয় সকাল সাড়ে ১০টায়, শুরুতেই সূচক কমে যায়। প্রথম ৫ মিনিটেই ডিএসইএক্স সূচক বাড়ে ৬ পয়েন্ট। সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে সূচক বাড়ে ১৪ পয়েন্ট। ১০টা ৪৫ মিনিটে সূচক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে যায়। এরপর থেকে সূচক কমতে থাকে। ১০টা ৫০ মিনিটে সূচক বাড়ে ৬ পয়েন্ট। ১০টা ৫৫ মিনিটে সূচক ১ পয়েন্ট বেড়ে যায়। এরপর সূচক গত কার্যদিবসের চেয়ে নেতিবাচক হতে শুরু করে। বেলা ১১টায় সূচক ১ পয়েন্ট কমে এবং বেলা ১১টা ১০ মিনিটে ডিএসইএক্স কমে ৬ পয়েন্ট। কিন্তু এরপর সূচক আবার বাড়তে থাকে। বেলা সাড়ে ১১টায় ডিএসইএক্স ১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়ায় ৫ হাজার ১৩৪ পয়েন্টে।

অন্যদিকে, ডিএসই-৩০ সূচক ২ পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করেছে এক হাজার ৮৩২ পয়েন্টে এবং ডিএসই শরিয়াহসূচক এক পয়েন্ট বেড়ে অবস্থান করেছে এক হাজার ১৭৮ পয়েন্টে।

এদিন বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৮৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের। একই সময়ে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে দাম বেড়েছে ১১৪টির, কমেছে ১৫৫টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৬১টি কোম্পানির শেয়ারের দাম।

এদিন বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ডিএসইতে দাম বৃদ্ধি পাওয়া শীর্ষ দশ কোম্পানির তালিকায় আছে- ফরচুন সু, সি পার্ল রিসোর্ট, সোনারবাংলা ইন্স্যুরেন্স, বিকন ফার্মা, ন্যাশনাল পলিমার, রানার অটোমোবাইল, নিটল ইন্স্যুরেন্স, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ, ইউনাইটেড পাওয়ার এবং সিলকো ফার্মা।

সিএসই

অন্যদিকে, একই সময়ে চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সাধারণ সূচক (সিএসইএক্স) ৮ পয়েন্ট কমে ৯ হাজার ৫৫০ পয়েন্টে, সিএসই-৩০ সূচক ১২ পয়েন্ট কমে ১৩ হাজার ৯৩৪ পয়েন্টে এবং সিএএসপিআই সূচক ১৬ পয়েন্ট কমে ১৫ হাজার ৭১৪ পয়েন্টে অবস্থান করে।

এদিন বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত সিএসইতে ৩ কোটি ৫২ লাখ টাকার শেয়ার ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটের লেনদেন হয়েছে।

একই সময়ে দাম বাড়ার ভিত্তিতে সিএসই’র শীর্ষ কোম্পানিগুলো হলো- এসইএমএল আইবিবিএল ফান্ড, স্কয়ার টেক্সটাইল, ন্যাশনাল ফিড মিল, শিফার্ড ইন্ডাস্ট্রিজ, এশিয়া ইন্স্যুরেন্স, ট্রাস্ট ব্যাংক, শাইনপুকুর সিরামিকস, এশিয়া প্যাসিফিক ইন্স্যুরেন্স, প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্স এবং ডোরিন পাওয়ার।

এসবিসির পাওনা পরিশোধে ৪০ বিমা কোম্পানির গড়িমসি

এসবিসির পাওনা পরিশোধে ৪০ বিমা কোম্পানির গড়িমসি
সাধারণ বিমা করপোরেশন

সরকারি প্রতিষ্ঠান সাধারণ বিমা করপোরেশনের (এসবিসি) পাওনা পরিশোধে গড়িমসি করছে ৪০টি নন-লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। বিমা কোম্পানিগুলোর কাছে ৫৭২ কোটি ৫৯ লাখ ৬৬ হাজার ৫০১ টাকা পাওনা রয়েছে এসবিসির।

পুনঃবিমার প্রিমিয়ামের এই টাকা ২০১৮ সালের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে পরিশোধের কথা ছিল। কিন্তু চলতি বছরের ১৫ জুলাইয়ের মধ্যেও তা পরিশোধ করেনি বিমা কোম্পানিগুলো।

পাওনা টাকা আদায়ে বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) কাছে অভিযোগ করেছে এসবিসি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু তাতেও খুব বেশি ফল পায়নি সরকারি প্রতিষ্ঠানটি।

নিময় অনুসারে ঝুঁকি কমাতে কোম্পানিগুলোর বিমার ওপর শতভাগ পুনঃবিমা করার বিধান রয়েছে। এর মধ্যে ৫০ শতাংশ সাধারণ বিমা করপোরেশনে করা বাধ্যতামূলক। বাকি ৫০ শতাংশ পুনঃবিমা কোম্পানি ইচ্ছা করলে বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে করতে পারে।

পুনঃবিমার এ আইন অনুসারে ৪০টি বিমা কোম্পানির কাছে ৫৭২ কোটি ৫৯ লাখ ৬৬ হাজার ৫০১ টাকা পাবে এসবিসি কর্তৃপক্ষ। কিন্তু বিমা কোম্পানিগুলো দীর্ঘদিন ধরে টাকা পরিশোধ করছে না। এতে এসবিসির পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বিমাখাতও। বিমা কোম্পানির প্রতি আস্থা হারাচ্ছেন গ্রাহকরা।

এসবিসি’র ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) জাকির হোসেন বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, নিয়ম অনুসারে কোম্পানিগুলো এসবিসিকে পুনঃবিমার প্রিমিয়াম বাবদ এই টাকা দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু কোম্পানিগুলো টাকা দিতে গড়িমসি করছে।

তিনি বলেন, আমরা পাওনা টাকা দ্রুত আদায়ের লক্ষ্যে চেষ্টা করছি। পাশাপাশি বিমা কোম্পানিগুলোর ক্লেইমগুলো পরিশোধ করছি। যাতে বিমা কোম্পানিগুলো দ্রুত প্রিমিয়াম পরিশোধ করে। আইডিআরএ’র মনিটরিং টিমকে আরও জোরালো ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান তিনি।

৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ পর্যন্ত তথ্য অনুসারে, এসবিসি’র সবচেয়ে বেশি বকেয়া রয়েছে পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্সের কাছে ৫৬ কোটি ৫০ লাখ ৬ হাজার ৫৯ টাকা। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা প্রগতি ইন্স্যুরেন্সের কাছে ৪৭ কোটি ৮৬ লাখ ৩৮ হাজার ৭৫৯ টাকা, তৃতীয় অবস্থানে থাকা কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের কাছে ৪২ কোটি ১২ হাজার ৩১ হাজার ৬৪৭ টাকা পাওনা রয়েছে।

এছাড়াও চতুর্থ স্থানে থাকা ইসলামিক ইসন্স্যুরেন্সের কাছে ৩৩ কোটি ৭১ লাখ ৭৬ হাজার ৮৩টাকা ও পঞ্চম স্থানে থাকা ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের কাছে ৩৩ কোটি ৫৭ লাখ ২৩ হাজার ৯৬৪ টাকা পাওনা রয়েছে।

ইসলামী ইন্স্যুরেন্সের কাছে ৩৩ কোটি ৭৬ লাখ ১৭ হাজার ৮৩ টাকা, জনতার কাছে ৩৩ কোটি ৪২ লাখ ৮৯ হাজার ৯৬৬ টাকা, পিপলস ইন্স্যুরেন্সের ৩২ কোটি ৭ লাখ ৩১ হাজার ৮৭৩ টাকা, কর্ণফুলীর কাছে ২৬ কোটি ৬৬ লাখ ১২ হাজার ৩৫৪ টাকা, মেঘনার কাছে ২৬ কোটি ৯৮ লাখ ৬২ হাজার ৭৮০ টাকা, রূপালী ইন্স্যুরেন্সের কাছে ২৪ কোটি ৫৯ লাখ ৮১ হাজার ৪০৬ টাকা, ইস্ট ল্যান্ডের কাছে ১৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৬ হাজার ১২৯ টাকা, এশিয়ার কাছে ১৮ কোটি ৪১ লাখ ৫৭ হাজার ৬২৪ টাকা, ইসলামী কমার্শিয়ালের কাছে ১৭ কোটি ৩৩ লাখ ৬৫ হাজার ১১ টাকা, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির কাছে ১৬ কোটি ৩৮ লাখ ৯২ হাজার টাকা, গ্রিন ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের কাছে ১৫ কোটি ৫৮ লাখ ২ হাজার ৪৩৭ টাকা পাওনা রয়েছে এসবিসির।

এছাড়াও এশিয়া প্যাসিফিকের কাছে ১৪ কোটি ৫৬ লাখ ২২ হাজার ১৯১ টাকা, এক্সপ্রেস ইন্স্যুরেন্সের কাছে ১৪ কোটি ৫৩ লাখ ৩৮ হাজার ৯৯১ টাকা, সোনার বাংলার কাছে ২ কোটি ৭৮ লাখ২০ হাজার ৯৭ টাকা, রিপাবলিকের কাছে ১৩ কোটি ২০ লাখ ৮৫ হাজার ২৫০ টাকা, মার্কেন্টাইলের কাছে ১৪ কোটি ৫৪ লাখ ৮৯ হাজার ৩৮০ টাকা, সিটি’র কাছে ৮ কোটি ৬৪ লাখ ৩ হাজার ৯০৮ টাকা, প্রভাতীর কাছে ১০ কোটি ৮৯ লাখ ১৭ হাজার ৭৬২ টাকা, দেশ ইন্স্যুরেন্সের কাছে ৮ কোটি ৮৪ লাখ ৯ হাজার টাকা ও রিলায়েন্সের কাছে ১২ কোটি ৯৪ লাখ ৩১ হাজার ৭৬৫ টাকা পাবে এসবিসি।

১০ কোটি টাকার নিচে পাওনা কোম্পানিগুলোর মধ্যে অগ্রণী ইন্স্যুরেন্স, বিডি করপোরেশন, বিডি ন্যাশনাল, সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স, ক্রিস্টালের, ঢাকা ইন্স্যুরেন্স, ইস্টার্ন, ফেডারেল,গ্লোবাল, নিটলের, নর্দান, প্যারামাউন্ট, ফনিক্সের, প্রাইম, তাকাফুল ইসলামী ইন্স্যুরেন্স, ইউনাইটেড, ডেল্টা ইন্স্যুরেন্স, স্ট্যান্ডার্ড, সাউথ এশিয়ার, সিকদার ইন্স্যুরেন্স, সেনা কল্যাণ ইন্স্যুরেন্স, পূরবী ইন্স্যুরেন্স এবং সানলাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেডের পাওনা রয়েছে এসবিসি'র।

নাম না প্রকাশের শর্তে একাধিক কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) বার্তাটোয়েন্টিফোর.কমকে বলেন, সাধারণ বিমা করপোরেশনের কাছে বিমা দাবি পাওনা রয়েছে। পাওনাগুলো সমন্বয় করা হলে খুব বেশি টাকা বাকি থাকবে না।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র