Barta24

রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

English

চিকিৎসক-আইনজীবীদের ট্যাক্স বাড়ানোর উপায় খোঁজা হচ্ছে

চিকিৎসক-আইনজীবীদের ট্যাক্স বাড়ানোর উপায় খোঁজা হচ্ছে
সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ও এনবিআর এর উদ্যোগে প্রাক-বাজেট আলোচনা সভা, ছবি:বার্তা২৪.কম
সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট
সিলেট
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

চিকিৎসক ও আইনজীবীদের ট্যাক্স বাড়ানোর উপায় খোঁজা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। তিনি বলেছেন, এই দুই পেশাজীবীদের আয়ের বিষয়টি এখনো সকলের কাছে পরিস্কার নয়। এছাড়া প্রাইভেট হাসপাতালে ট্যাক্স আরও বাড়ানো প্রয়োজন বলে মত দেন তিনি।

শনিবার (২০ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০টায় নগরীর দরগাহ গেইটস্থ একটি হোটেলে সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের উদ্যোগে প্রাক-বাজেট আলোচনায় তিনি এসব কথা জানান।

২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের জাতীয় বাজেটের ওপর এ প্রাক-বাজেট আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন সিলেট চেম্বারের সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদ।

সভায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য, প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, সিলেট চেম্বারের সদস্য, বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ ও সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

জানা গেছে,আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারকে মূল ভিত্তি হিসেবে বিবেচনায় নিয়ে এবারের বাজেট প্রণয়ন করা হচ্ছে। দারিদ্র্য বিমোচন, কর্মসংস্থান, সামাজিক সুরক্ষা এবং বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা এবারের বাজেটের অন্যতম লক্ষ্য। সবচেয়ে বেশি জোর দেয়া হচ্ছে দারিদ্র্য বিমোচন ও কর্মসংস্থানে।

আগামী অর্থবছরের জন্য প্রাথমিকভাবে বাজেটের আকার ধরা হয়েছে পাঁচ লাখ ২৪ হাজার ৯৫০ কোটি টাকা, যা চলতি অর্থবছরের বাজেটের চেয়ে প্রায় ৬০ হাজার কোটি টাকা বা সাড়ে ১৩ শতাংশ বেশি।

আপনার মতামত লিখুন :

চামড়া সমস্যার স্থায়ী সমাধানে আসতে চাই: শিল্পমন্ত্রী

চামড়া সমস্যার স্থায়ী সমাধানে আসতে চাই: শিল্পমন্ত্রী
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে চামড়া সংকট সমাধানে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক

শিল্পমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেছেন, চামড়া নিয়ে যে পরিস্থিতি গণমাধ্যমে দেখেছি, আমরা দায়দায়িত্ব এড়াতে পারি না। এখানে সবার স্বার্থ রক্ষা করতে হবে। চামড়া শিল্পনীতি হচ্ছে, এটি অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে রয়েছে। আমরা সব ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বসেছি। আমরা একটি স্থায়ী সমাধানে আসতে চাই।

রোববার (১৮ আগস্ট) দুপুর তিনটায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সরকার, ট্যানারি মালিক, আড়তদার ও কাঁচা চামড়া সংশ্লিষ্টদের ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শুরু হয়। বৈঠকের শুরুতে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, সবার সঙ্গে খোলামেলা আলাপের মাধ্যমে সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা করি। চামড়া শিল্প গার্মেন্টসের পরে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাত। সেজন্য আমরা এই শিল্প নিয়ে অনেক কাজ করছি। আমরা চাই ভবিষ্যতে চামড়া শিল্প যাতে প্রধান একটি খাত হিসাবে থাকে। বর্তমান সমস্যা সমাধান এবং ভবিষ্যতে যেন এ সমস্যার সম্মুখীন না হই সেজন্য সবার সাজেশন নেবো।

বাণিজ্য সচিব মো. মফিজুল ইসলাম বলেন, চামড়া রফতানি করতে গেলে আমাদের অনেক বিষয় অনুসরণ করতে হবে। প্রতিবছর আমরা কোরবানির চামড়ার মূল্য নির্ধারণ করে দেই। সবার সঙ্গে আলোচনা করে গত বছরের মতোই এবার দাম নির্ধারণ করেছি। তারা সবাই সম্মত হয়েছিল। আড়তদাররা তখন পাওনা টাকার কথা বলেছিল আর ট্যানারি মালিকরা বলেছিল গত বছরের সব চামড়া তারা বিক্রি করতে পারেনি। সেদিন সবার সম্মতিতে আমরা বলেছিলাম, নির্ধারিত দামে চামড়া বিক্রি না হলে আমরা চামড়া রফতানির সিদ্ধান্ত নেবো।

তিনি বলেন, আমরা দেখেছি মানুষ চামড়ার দাম না পেয়ে পুঁতে ফেলছে। যারা পুঁতে ফেলেছে তারা কাণ্ডজ্ঞানহীনের মতো কাজ করেছে। ২০০ টাকার লবণ লাগালে কয়েক মাস এটি সংরক্ষণ করা যায়। আমরা কাঁচা চামড়া রফতানি করলে দেশীয় চামড়া শিল্প ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

চামড়া সংকট সমাধানে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক

চামড়া সংকট সমাধানে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক
বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে চামড়া সংকট সমাধানে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক

কোরবানির পশুর চামড়ার নিয়ে সৃষ্ট সংকট সমাধানে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শুরু হয়েছে। পশুর চামড়ার অস্বাভাবিক দরপতনের পর বকেয়া টাকা না পেলে ট্যানারি মালিকদের কাছে আর কাঁচা চামড়া বিক্রি না করার ঘোষণায় এ সংকট তৈরি হয়।

রোববার (১৮ আগস্ট) দুপুর তিনটায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সরকার, ট্যানারি মালিক, আড়তদার ও কাঁচা চামড়া সংশ্লিষ্টদের ত্রিপক্ষীয় বৈঠক শুরু হয়। এ বৈঠকে আলোচনার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

বৈঠকে সরকারের পক্ষে রয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত উন্নয়ন বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, শিল্পমন্ত্রী অ্যাডভোকেট নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এবং বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মফিজুল ইসলাম। এছাড়া ট্যানারি অ্যাসোসিয়েশনের নেতৃবৃন্দ, চামড়া আড়তদার ও কাঁচা চামড়া সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত রয়েছেন।

এরআগে গতকাল শনিবার রাজধানীর লালবাগের পোস্তায় কাঁচা চামড়া আড়তদারদের জরুরি সভা শেষে বাংলাদেশ হাইড অ্যান্ড স্কিন মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন- বিএইচএসএমএ সভাপতি দেলোয়ার হোসেন অভিযোগ করে বলেন, ট্যানারি মালিকদের কারণে চামড়ার দাম কমেছে। ট্যানারিগুলো বকেয়া টাকা না দেওয়ায় এবার কোরবানিতে টাকার অভাবে চামড়া কিনতে পারিনি।

আর পূর্ব ঘোষণা মোতাবেক গতকাল থেকেই সীমিত আকারে পশুর লবণযুক্ত কাঁচা চামড়া কেনা শুরু করার কথা জানিয়েছেন ট্যানারি মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত উল্লাহ। তার দাবি, গতকাল ময়মনসিংহ থেকে আমাদের অনেকেই লবণযুক্ত কাঁচা চামড়া কিনেছেন।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র