Barta24

শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯, ৪ শ্রাবণ ১৪২৬

English Version

ফরিদগঞ্জে জাল নোটসহ তিন নারী আটক

ফরিদগঞ্জে জাল নোটসহ তিন নারী আটক
আটকের প্রতীকী ছবি
ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট
চাঁদপুর
বার্তা২৪.কম


  • Font increase
  • Font Decrease

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলায় জাল টাকাসহ তিন নারীকে আটক করেছে পুলিশ।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) বিকালে উপজেলার ইছাপুরা এলাকা থেকে তাদের আটকের ঘটনা ঘটে। আটককৃতরা হলেন ফাতেমা বেগম(৩০), শিল্পি বেগম (৩৫) ও তাছলিমা বেগম (২৭)।

স্থানীয় লোকজন ও থানা পুলিশ সূত্র জানায়, উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিণ ইউনিয়নের আনন্দ বাজারের বিভিন্ন দোকান থেকে জাল টাকা দিয়ে মালামাল ক্রয় করেন। পরে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা বিষয়টি বুঝতে পেরে তাদেরকে ইছাপুরা এলাকা থেকে আটক করে। এ সময় থানা পুলিশকে সংবাদ দিলে থানা পুলিশের এএসআই ইলিয়াছ তাদেরকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এসময় তাদের কাছ থেকে এক হাজার টাকার ৪টি জাল নোট উদ্ধার করে। আটককৃত ফাতেমা ও শিল্পির বাড়ি উপজেলার চরপোয়া গ্রামে এবং অপর জন তাছলিমার বাড়ি চাঁদপুর সদর উপজেলার রামদাসদী এলাকায়। পুলিশের ধারণা এরা পেশাদার জাল টাকার ব্যবসায়ী।

এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) অহিদুল ইসলাম জানান, জাল টাকাসহ আটককৃদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে।

আপনার মতামত লিখুন :

নাগর নদে বাঁধ ও সুতি জাল দিয়ে মাছ শিকার

নাগর নদে বাঁধ ও সুতি জাল দিয়ে মাছ শিকার
মাছ শিকারে বানার বাঁধ ও সুতি জাল বসানো হয়েছে, ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

নাটোরের সিংড়া উপজেলার ১১নং ছাতারদীঘি ইউনিয়নের নাগর নদে বানার বাঁধ (বাঁশের চাটাই) ও সুতি জাল (ক্ষুদ্র ফাঁসবিশিষ্ট) দিয়ে মাছসহ বিভিন্ন প্রজাতির জলজ প্রাণী শিকার করছে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল।

এছাড়া নদের বাশারনগর-লালপাড়া ও ধরমপুর এলাকার বেশ কয়েকটি পয়েন্টেও বাঁশের বাঁধ ও সুতি জাল ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে একদিকে যেমন মাছসহ চলনবিলের জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হচ্ছে, অন্যদিকে আটকে পড়া পানির স্রোতে শত শত ঘর-বাড়ি ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে।

চলনবিলের জীববৈচিত্র নিয়ে কাজ করা কয়েকটি সংগঠনের দাবি, প্রজনন মৌসুমে দখলদারদের বেপরোয়া দৌরাত্মে ব্যহত হচ্ছে মাছের স্বাভাবিক প্রজনন।

মৎস্যভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত নাগর নদের বিভিন্ন পয়েন্ট ঘুরে দেখা যায়, বাঁশরে বাঁধ ও সুতি জাল দিয়ে সব ধরনের মাছ, কাঁকড়া ও শামুকসহ বিভিন্ন জলজ প্রাণী নিধন করা হচ্ছে। জাল এটাই নিশ্ছিদ্র যে পোনাসহ জলজ কীটপতঙ্গ পর্যন্ত আটকা পড়ছে।

বাশারনগর গ্রামের সুমতী রানী, আব্দুল ওয়াহেদ, রুস্তম আলী জানান- সিংড়া উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা হওয়ায় এখানকার কেউ খবর রাখে না। এসব অবৈধ বাঁধের কারণে হুমকির মুখে এলাকার শতাধিক বাড়ি-ঘর।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলতাব হোসেন আকন্দ নাগর নদের পানি আটকে মাছ শিকারে কথা স্বীকার করেন। তিনি জানান, বিষয়টি স্থানীয় প্রশাসনকে জানানো হয়েছে।

চলনবিল জীববৈচিত্র্য রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘নাগর নদে বাঁধ ও সুতি জাল দিয়ে এভাবে পানি আটকে মাছ ও জলজ প্রাণী শিকারে চলনবিলের জীববৈচিত্র্য মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে। এর সঙ্গে কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি জড়িত থাকায় এটি রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। আমরা সংগঠনের পক্ষ থেকে এলাকাবাসীকে সচেতন করার চেষ্টা করছি।’

সিংড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুশান্ত কুমার সুতি জালের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনার আশ্বাস দিয়েছেন।

নাটোরে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় প্রতিবন্ধী নসিমন চালক নিহত

নাটোরে পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় প্রতিবন্ধী নসিমন চালক নিহত
ছবি: বার্তাটোয়েন্টিফোর.কম

নাটোরে গাজী ফুডস কোম্পানির একটি পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় আব্দুর রহমান (৫০) নামে এক প্রতিবন্ধী নসিমন চালক নিহত হয়েছেন।

শুক্রবার (১৯ জুলাই) ভোর রাতে সদর উপজেলার দত্তপাড়া এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত আব্দুর রহমানের বাড়ি বড়াইগ্রামের বনপাড়ায়।

সে একটি কৃত্রিম পা নিয়ে নসিমন চালিয়ে নাটোরসহ বিভিন্ন মোকামে পুকুর মালিকের মাছ সরবরাহের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলেন বলে স্থানীয় সূত্রে জানা যায়।

নাটোরের ঝলমলিয়া হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোজাম্মেল হক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে তিনি জানান, আব্দুর রহমান প্রতিদিনের মতো শুক্রবার ভোর রাতে বড়াইগ্রাম থেকে পাঙ্গাস মাছ নিয়ে নসিমন চালিয়ে নাটোর বাজারে আসছিলেন। পথে নাটোর-ঢাকা-পাবনা সড়কের দত্তপাড়া এলাকায় ঢাকা থেকে রাজশাহীমুখী গাজী ফুডসের একটি পিকআপ ভ্যান রহমানের নসিমনকে পেছন থেকে চাপা দেয়। এতে তিনি মারাত্মক আহত হন।

খবর পেয়ে ঝলমলিয়া হাইওয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রহমানকে উদ্ধার করে নাটোর সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পিকআপ ভ্যানটি আটক করা হলেও চালক পলাতক রয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ সম্পর্কিত আরও খবর

Barta24 News

আর্কাইভ

শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র